বাংলাদেশে মহাসড়ক সংস্কারে স্থায়ী সমাধান নেই কেন

বাংলাদেশের মহাসড়কগুলোয় বর্ষার মৌসুমে দেখা যায় বেহাল দশা ছবির কপিরাইট Focus Bangla
Image caption বাংলাদেশের মহাসড়কগুলোয় বর্ষার মৌসুমে দেখা যায় বেহাল দশা

বাংলাদেশে সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দেশের সব মহাসড়ক ১০দিনের মধ্যে সংস্কার করে সচল করার নির্দেশ দিয়েছেন। তবে সড়ক বিশেষজ্ঞরা বলছেন মহাসড়কগুলোর টেঁকসই সমাধানের উদ্যোগ না নেওয়ায় অনেক মহাসড়কের বেহাল দশা থেকেই যাচ্ছে।

বুধবার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়ক পরিদর্শনে গিয়ে মন্ত্রী সিরাজগঞ্জ এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক সংস্কার না করায় সেখানকার নির্বাহী প্রকৌশলীকে মন্ত্রী তাৎক্ষণিকভাবে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেন।

মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, অতি বর্ষণে মহাসড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় বগুড়া থেকে ঢাকা যেতে চার বা সাড়ে চার ঘন্টার জায়গায় এখন দ্বিগুণ সময় লাগছে। তিনি তাই দেশের সব মহাসড়ক ১০দিনের মধ্যে সংস্কার করে সচল করার নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান।

কিন্তু বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক শামসুল হক বলেছেন, সপ্তাহ দুয়েক পরই ঈদ উল আযহা সামনে রেখে মহাসড়কে চাপ কয়েকগুণ বেড়ে যাবে। এধরনের কোন উৎসব এলেই হুড়োহুড়ি করে অ্যাডহক ভিত্তিতে কিছু ব্যবস্থা নেয়া হয়, ফলে সেটা টেঁকসই বা স্থায়ী সমাধান হয় না বলে তিনি মনে করেন।

"মহাসড়কে যে জায়গাগুলোতে সংস্কার দরকার, সেগুলোতে যানবাহনের অত্যাধিক চাপ রয়েছে। এর সাথে এখন বর্ষা মৌসুম চলছে। এই অবস্থায় অত্যন্ত অস্থায়ী ভিত্তিতে খোয়া দিয়ে কিছু একটা হয়তো করার চেষ্টা হবে। জরুরি ভিত্তিতে কোনভাবে ঠেকা দিয়ে যেন ইভেন্টটাকে পার করা যায়। কিন্তু টেঁকসই সমাধান যে করা যায়, সেদিকে আমরা যাচ্ছি না।"

বর্ষা মৌসুমে রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত হলে, তা তাৎক্ষণিকভাবে সংস্কারের ব্যবস্থা সরকারের থাকে বলে বলা হয়। কিন্তু এবার দেশের বিভিন্ন এলাকায় মহাসড়কে ব্যাপক ক্ষতির পরও সংস্কার করা হয়নি- এমন অভিযোগ উঠেছে।

আরো পড়ুন:

ভারতে নারীরা কেন মাঝরাতে তোলা ছবি শেয়ার করছে

'ব্রিজ খেলতে দেখলে পরিবার বলতো জুয়া খেলছি'

প্রসূতি মৃত্যু বন্ধে বাংলাদেশি ডাক্তারের অভিনব পদ্ধতি

অধ্যাপক শামসুল হক জানিয়েছেন, সারা দেশে মহাসড়ক এবং আঞ্চলিক সড়ক মিলিয়ে ২২শ কিলোমিটারের মতো রাস্তা আছে। বর্ষার এই মৌসুমে অনেক সড়কের নাজুক অবস্থা বা বেহাল দশা হয়েছে। সমস্যার মূলে নজর দেয়া হচ্ছে না বলেই তিনি মনে করেন।

"রাস্তায় জলাবদ্ধতা এবং অতিমাত্রায় ওভারলোড ট্রাক চলার কারণে সড়কের ক্ষতি হচ্ছে। গত বছরই যে সড়ক সংস্কার করা হচ্ছে, বছর না পেরুতেই দেখা যাচ্ছে তার বেহাল দশা। অনেক রাস্তা আউট অব অর্ডার হয়ে গেছে।সামনে ঈদে ভোগান্তি দেখা দিতে পারে।"

তবে মহাসড়কে বেহালদশার অভিযোগ অস্বীকার করছে সড়ক পরিবহণ এবং সেতু মন্ত্রণালয়। এই মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বেলায়েত হোসেন বলেছেন, এসব অভিযোগ অতিরঞ্জিত বলে তিনি মনে করেন।

তিনি আরও বলেছেন, মন্ত্রী ১০দিনের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত মহাসড়ক সংস্কার করার যে কথা বলেছেন, সেটা বাস্তবায়ন সম্ভব।

একইসাথে এই কর্মকর্তা দাবি করেছেন, স্থায়ী সমাধানের জন্য মহাসড়ক সংস্কারে ইতিমধ্যে কিছু প্রকল্প নেয়া হয়েছে এবং শুস্ক মৌসুমে সেগুলোর কাজ শুরু হবে।

সম্পর্কিত বিষয়