ভারতীয় ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলার রায়ের পর সহিংসতায় নিহত অন্তত ২৮

ধর্মগুরুর রায়ের পর ভারতের হরিয়ানায় ব্যাপক সহিংসতা চলছে ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ধর্মগুরুর রায়ের পর ভারতের হরিয়ানায় ব্যাপক সহিংসতা চলছে

ভারতের উত্তরে পুলিশ বলছে বহুল জনপ্রিয় 'রকস্টার বাবা' নামে ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংকে ধর্ষণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করার পর সহিংসতায় অন্তত ২৮জন প্রাণ হারিয়েছে।

পনের বছর আগে দুজন মহিলাকে ধর্ষণের অভিযোগে আদালত তাকে দোষী সাব্যস্ত করে রায় দিয়েছে।

পাঁচকুলায় রায় ঘোষণার পর তার হাজার হাজার ক্রুদ্ধ ভক্ত এই রায়ের প্রতিবাদে যানবাহন, ভবন ও রেলস্টেশনে আগুন দিয়েছে।

খবরে বলা হচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা জবাবে গুলি চালিয়েছে।

সহিংসতা হরিয়ানা ও পাঞ্জাবের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়ার পর রাম রহিম সিংয়ের শহর সিরসায় সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

মি: সিং-এর আড়াই হাজার অনুসারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দিল্লি থেকেও সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে। সেখানে দুটি ট্রেনের কামরায় আগুন দেবার খবর পাওয়া গেছে।

পাঞ্জাব ও হরিয়ানার বহু এলাকায় কারফিউ জারি করা হয়েছে।

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption রায়ের প্রতিবাদে পাঁচকুলায় টেলিভিশনের গাড়িতে ভাংচুর করা হয়েছে
Image caption গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের অনুরাগ ভক্তের সংখ্যা কয়েক লক্ষ

আরও পড়তে পারেন:

কে এই 'রকস্টার বাবা' গুরু রাম রহিম সিং?

ভারতীয় ধর্মগুরু ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত

ভারতে এক ধর্মগুরুর ধর্ষণের মামলার রায়ের আগে তুলকালাম

বিবিসি-র সংবাদদাতারা জানাচ্ছেন নিরাপত্তা বাহিনী ও ডেরা সমর্থকদের মধ্যে হিংসায় অন্তত তিন জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে প্রশাসন, তবে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলি জানাচ্ছে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৬ জনের। আহতের সংখ্যা শ খানেক।

ডেরা সমর্থকদের মোকাবেলা করতে জলকামান, কাঁদানে গ্যাস আর গুলিও চালানো হয়েছে বলে আমাদের সংবাদদাতারা জানাচ্ছেন।

উত্তেজিত সমর্থকরা হরিয়ানার বিভিন্ন জায়গায় ভাংচুর আর অগ্নিসংযোগ করছে।

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
ধর্মগুরুর রায় ঘোষণার পর হাঙ্গামার আশঙ্কায় তার মূল আশ্রমস্থল সিরসায় কারফিউ

বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের গাড়ি ও সাংবাদিক-চিত্রসাংবাদিকদের ওপরে হামলা চালানো হয়েছে।

পাঞ্জাব আর হরিয়ানা - দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীই শান্তিবজায় রাখার আবেদন জানিয়েছেন।

যদিও তাকে পুলিশেরই গ্রেপ্তার করার কথা, কিন্তু অভূতপূর্ব হিংসা ছড়ানোর আশঙ্কায় তাকে নিজেদের কাছে না রেখে সরাসরি সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। তাকে এখন ভারতীয় সেনাবাহিনীর পশ্চিমাঞ্চলীয় মুখ্য দপ্তরে রাখা হয়েছে। পরে তাকে হেলিকপ্টারে চাপিয়ে কোনও দূরবর্তী কারাগারে নিয়ে যাওয়া হবে।

বিবিসি-র সংবাদদাতারা পাঞ্জাব আর হরিয়ানার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে জানাচ্ছেন:

• পাঞ্জাবের মানসা আর মলোটে বিতর্কিত ধর্মগুরুর ভক্তরা দু দুটি রেল স্টেশনে আগুন লাগিয়ে দিয়েছেন। ফিরোজপুর জেলায় প্রশাসন কারফিউ জারি করার কথা ঘোষণা করেছে।

• পাঞ্জাব-হরিয়ানা সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। চলছে কড়া তল্লাশি।

• সংবাদ সংস্থা পি টি আই জানাচ্ছে হরিয়ানার যে পাঁচকুলা শহরের আদালত আজ গুরমিত রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করেছে, সেখানে কারফিউ জারি করা হয়েছে।

মি: সিং-এর দুই লাখের বেশি ভক্ত রায় ঘোষণার আগেই পাঁচকুলা শহরে জমায়েত হয়েছিল।

ছবির কপিরাইট Manoj Dhaka
Image caption গুরুর হাজার হাজার ভক্ত

সোমবার তার সাজা ঘোষণার কথা রয়েছে।

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী আমরিন্দর সিং মি: সিংয়ের বিপুল সংখ্যক ভক্তকে পাঁচকুলায় যেতে দেবার জন্য হরিয়ানা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করেছেন।

দুই রাজ্যেরই রাজধানী চণ্ডীগড়।

এলাকার স্কুল ও অফিস বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, ট্রেন ও রাস্তাঘাট বন্ধ রয়েছে এবং কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন হাঙ্গামায় গ্রেপ্তারকৃতদের জন্য শহরের তিনটি স্টেডিয়ামকে অস্থায়ী জেলখানা বানানো হয়েছে।

সম্পর্কিত বিষয়