মিয়ানমারের গণমাধ্যমে 'বাঙালি সন্ত্রাসী ও বিদেশীদের ব্যাপারে হুঁশিয়ারি'

রাখাইন রাজ্যে হামলার ঘটনায় মংদু থেকে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের একাংশ ছবির কপিরাইট মিয়ানমার টাইমস
Image caption রাখাইন রাজ্যে হামলার ঘটনায় মংদু থেকে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের একাংশ

রাখাইন প্রদেশে নতুন করে সেনা অভিযান শুরুর পর মিয়ানমারের গণমাধ্যমে রোহিঙ্গাদের 'বাঙালি সন্ত্রাসী' হিসেবে চিহ্নিত করে বিভিন্ন নিবন্ধ প্রকাশিত হচ্ছে।

'বাঙালি সন্ত্রাসী'দের ব্যাপারে মিয়ানমারের জনগণ এবং বিদেশী নাগরিকদের সাবধান থাকতে বলেছে সরকার। মিয়ানমার থেকে প্রকাশিত দৈনিক মিয়ানমার টাইমসের সোমবারের পত্রিকার প্রধান শিরোনাম এটি।

একই সাথে সতর্ক থাকতে আহ্বান জানানো হয়েছে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভাশন আর্মি বা আরসার ব্যাপারেও।

মিয়ানমারের সরকারের ভাষ্য অনুযায়ী, শনিবারে রাখাইনের টং বাজার গ্রামটি 'বাঙালি সন্ত্রাসী'রা অবরোধ করেছিল।

অভিযোগ করা হয়েছে যে এর সঙ্গে আরো জড়িত আছে বেসরকারি আন্তর্জাতিক সংস্থার কিছু কর্মীও। রিপোর্টে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি'র অফিস স্টেট কাউন্সেলর অফিস ইনফরমেশন কমিটির বরাত দিয়ে আরো বলা হয়েছে, সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর বিদেশী সমর্থকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকার ইন্টারপোলের সাহায্য চেয়েছে।

ছবির কপিরাইট ফ্রন্টিয়ার মিয়ানমার

শুক্রবার মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে সর্বশেষ সহিংসতার পর সীমান্ত দিয়ে হাজার হাজার রোহিঙ্গা মুসলিমরা পালিয়ে আবারও বাংলাদেশে ঢোকার চেষ্টা করছে বলে জানা যাচ্ছে। এ ঘটনা নিয়ে দেশটির বিভিন্ন দৈনিকে সরকারের বিভিন্ন ধরণের ভাষ্য প্রকাশিত হয়েছে।

মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন দৈনিক গ্লোবাল নিউ লাইট অব মিয়ানমারের এক রিপোর্টে বলা হচ্ছে, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর কর্মীদের একটি অংশ আরসা'কে সহায়তা করছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে অং সান সু চি'র অফিস।

ঐ প্রতিবেদনে 'আরসার সন্ত্রাসী'দের সমর্থনে নেয়া যেকোনো কাজের জন্য দেশটির সন্ত্রাসবিরোধী আইনে বিচার করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে। এর আগে ঐ এলাকায় নিরাপত্তা ব্যাপকভাবে বাড়ানো হয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়।

ছবির কপিরাইট EMRUL KAMAL
Image caption শনিবারই মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ঢুকেছেন মহম্মদ হাসান ও তার পরিবার

এদিকে, দ্য ইরাওয়াদি দৈনিকে স্টেট কাউন্সেলরের অফিসের বরাত দিয়ে শুক্রবারের ঘটনাকে 'সন্ত্রাসী হামলা' হিসেবে আখ্যা দিয়ে বলা হয়েছে, এর পেছনে উত্তর রাখাইনের সন্ত্রাসী সংগঠন আরসা দায়ী।

আরো পড়ুন: রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে ঢুকতে বাধা দিচ্ছে বিজিবি

রানির প্রাসাদের কাছে তরবারি ঘুরিয়ে 'আল্লাহু আকবর'

তবে মিয়ানমার থেকে প্রকাশিত ইংরেজি দৈনিক ফ্রন্টিয়ার মায়ানমারে আজকের প্রধান সংবাদ বলা হয়েছে, উত্তর রাখাইন প্রদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। রোববার রাখাইন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সেখানে পরিদর্শনে যান, আর তা কেন্দ্র করে নিরাপত্তা বাহিনীর চালানো অভিযানের পর বলা হয় পরিস্থিতি এখন স্থিতিশীল রয়েছে।

মিয়ানমার থেকে প্রকাশিত দৈনিক ডেমোক্রেটিক ভয়েস অব বার্মায় প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, সরকার রাখাইনে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য দায়ী সন্ত্রাসীদের ধরতে পূর্ণ শক্তি ব্যবহার করবে।

বৃহস্পতিবার রাতে মিয়ানমারের রাখাইনে একসঙ্গে ৩০টি পুলিশ পোস্ট ও একটি সেনা ক্যাম্পে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার পর ওই রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। ওই রাতের পর থেকে এ পর্যন্ত ৯৮ জন নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে ১২ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য।

আরও সহিংসতার আশঙ্কায় হাজার হাজার রোহিঙ্গা নাফ নদী ও স্থল সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে ঢোকার চেষ্টা করছে। সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশ অংশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের লক্ষ্য করে মিয়ানমারের সীমান্ত রক্ষীদের গুলি করার ঘটনাও ঘটেছে।

সম্পর্কিত বিষয়