হাসপাতালে একের পর এক ৪২ শিশুর মৃত্যু

Image caption সংকটময় অবস্থায় শিশুদের হাসপাতালে আনা হয়েছিল।

ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যে একটি হাসপাতালে গত দুদিনে ৪২টি শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

গোরখপুরের এই হাসপাতালেই কয়েক সপ্তাহ আগে ৫ দিনের ব্যবধানে ১০০'র বেশী শিশু মারা গিয়েছিল।

সেই সময়ে অভিযোগ উঠেছিল, হাসপাতালের অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলেই ওই মৃত্যু হয়েছিল।

উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা যোগী আদিত্যনাথ এই গোরখপুর শহর থেকেই নির্বাচিত হয়েছেন।

বিআরডি মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ড. পি কে সিং বলছেন, "হঠাৎ করে অনেকগুলি বাচ্চা মারা গেছে ঠিকই, কিন্তু এটা অস্বাভাবিক না। বছরের এই সময়ে এরকম হয়ে থাকে।"

তিনি আরো জানিয়েছেন মৃত ৪২ টি শিশুর মধ্যে ৭ জনের এনসেফেলাইটিস হয়েছিল।

ড. সিং বলছেন, "সব কটি বাচ্চাই বেশ সিরিয়াস অবস্থায় হাসপাতালে এসেছিল। সেজন্যই জরুরী ওষুধপত্র আর অন্যান্য ব্যবস্থা মজুত থাকা সত্ত্বেও ওদের বাঁচানো যায় নি। এই মুহূর্তে হাসপাতালে অক্সিজেন বা অন্য ওষুধের কোনও অভাব নেই।"

তার মতে, জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় বাচ্চাদের জন্য খুব সংবেদনশীল সময়। এনসেফেলাইটিস হওয়ার এটাই সময়।

চলতি মাসের গোড়ার দিকে যখন একের পর এক শিশু মৃত্যু শুরু হয়েছিল, তখনই অভিযোগ সামনে এসেছিল যে হাসপাতালে যে সংস্থাটি অক্সিজেন সরবরাহ করে, তারা বার বার পাওনা অর্থ মিটিয়ে দেওয়ার তাগাদা দিলেও টাকা না পাওয়ায় অক্সিজেন সিলিন্ডার পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছিল।

তবে ওই ঘটনায় কয়েকজন চিকিৎসকেরও জড়িত থাকার অভিযোগ এসেছে।

তা নিয়ে তদন্ত শুরু হতেই মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ এবং এক শিশু চিকিৎসক সহ বেশ কয়েকজন সাসপেন্ড হয়ে গেছেন।

অধ্যক্ষ এবং তার স্ত্রী, যিনি নিজেও একজন চিকিৎসক ছিলেন - দুজনকেই উত্তরপ্রদেশ পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স গত মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করেছে।

সম্পর্কিত বিষয়