প্রধান বিচারপতি বললেন, তিনি সুস্থ আছেন

ছবির কপিরাইট Bangladesh Supreme Court
Image caption প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা

বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেছেন, তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন।

বিচার বিভাগ যাতে 'কলুষিত' না হয় সেজন্য তিনি 'সাময়িকভাবে' দেশ ছেড়ে যাচ্ছেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন মি: সিনহা।

শুক্রবার রাতে অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশ্যে বিমানবন্দরে যাবার আগে তাঁর বাসভবনের সামনে প্রধান বিচারপতি সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।

বাসভবন থেকে বের হয়ে মূল ফটকের সামনে প্রধান বিচারপতি সাংবাদিকদের বলেন, " আমি কোন কারো প্রতি কোন বিরাগ নেই। আমার দৃঢ় বিশ্বাস .. আমার দৃঢ় বিশ্বাস.. সরকারকে ভুল বোঝানো হয়েছে।"

এরপর প্রধান বিচারপতি তাঁর একটি লিখিত বিবৃতির কপি সাংবাদিকদের দেন।

সে বিবৃতিতে ষোড়শ সংশোধনী রায়ের প্রতি ইঙ্গিত করে প্রধান বিচারপতি বলেন, " ইদানীং একটা রায় নিয়ে রাজনৈতিক মহল, আইনজীবী ও বিশেষভাবে সরকারের কয়েকজন মন্ত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে ব্যক্তিগতভাবে যেভাবে সমালোচনা করেছেন, এতে আমি সত্যিই বিব্রত।"

সরকারের একটি মহল তাঁর রায়ের ভুল ব্যাখ্যা করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পরিবেশন করায় প্রধানমন্ত্রী তাঁর প্রতি অভিমান করেছেন বলে মনে করেন মি: সিনহা।

এটি অচিরেই দূর হবে বলে মি: সিনহা বিশ্বাস করেন।

প্রধান বিচারপতি তাঁর দেয়া লিখিত বিবৃতিতে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিয়েও আশংকা প্রকাশ করেছেন।

লিখিত বিবৃতিতে তিনি উল্লেখ করেন, "গতকাল প্রধান বিচারপতি কার্যভার পালনরত দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রবীনতম বিচারপতির উদ্ধৃতি দিয়ে মাননীয় আইনমন্ত্রী প্রকাশ করেছেন যে, দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি অচিরেই সুপ্রিম কোর্টের প্রশাসনে পরিবর্তন আনবেন। প্রধান বিচারপতির প্রশাসনে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি কিংবা সরকারের হস্তক্ষেপ করার কোনো রেওয়াজ নেই। তিনি শুধুমাত্র রুটিন মাফিক দৈনন্দিন কাজ করবেন। এটাই হয়ে আসছে। প্রধান বিচারপতির প্রশাসনে হস্তক্ষেপ করলে এটি সহজেই অনুমেয় যে, সরকার উচ্চ আদালতে হস্তক্ষেপ করছে।"

এর দ্বারা বিচার বিভাগ ও সরকারের মধ্যে সম্পর্কের আরও অবনতি হবে বলে মি: সিনহা উল্লেখ করেন।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার আইনমন্ত্রী জানিয়েছেন, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা অস্ট্রেলিয়ায় যাচ্ছেন।

আইন মন্ত্রণালয় বলছে, ১৩ অক্টোবর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের বাইরে অবস্থানের অনুমতি চেয়ে একটি চিঠি দিয়েছিলেন প্রধান বিচারপতি।

সম্পর্কিত বিষয়