চাঞ্চল্যকর রুপা ধর্ষণ ও হত্যায় চারজনের ফাঁসি, একজনের সাত বছরের কারাদণ্ড

জাকিয়া সুলতানা রুপা ছবির কপিরাইট ফেসবুক
Image caption জাকিয়া সুলতানা রুপা

বাংলাদেশে চাঞ্চল্যকর রুপা ধর্ষণ ও হত্যা মামলার রায়ে বাসের চালক এবং সহকারীসহ চারজনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। এ মামলায় একজনের সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া যে বাসে ঐ ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছিল, সেই বাসটি জব্দ করে রুপার পরিবারকে দিয়ে দেবার আদেশ দিয়েছে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশুবিষয়ক ট্রাইব্যুনাল।

গত বছরের ২৫শে অগাস্ট বগুড়ায় পরীক্ষা দিয়ে বাসে কর্মস্থল ময়মনসিংহে যাবার পথে বাসের চালক, সহকারী এবং সুপারভাইজার জাকিয়া সুলতানা রুপাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে রাস্তায় ফেলে রেখে যায়।

ঘটনার পরে রুপার লাশ উদ্ধার করে, ময়নাতদন্ত শেষে বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে টাঙ্গাইলে দাফন করা হয়।

আরো পড়তে পারেন:বাংলাদেশে ইন্টারনেটের গতি কমছে না: বিটিআরসি

হজে গিয়েও যৌন হয়রানি: টুইটারে নারীদের প্রতিবাদ

পরে ২৮শে অগাস্ট রুপার ভাই মধুপুর থানায় এসে লাশের ছবি দেখে বোনকে শনাক্ত করেন।

অরণখোলা পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। এ মামলায় অভিযোগ গঠন, সাক্ষী ও যুক্তিতর্কের জন্য মাত্র ১৪ দিন সময় নেওয়া হয়।

এ ঘটনার পর রাস্তাঘাট ও গণপরিবহনে নারীর নিরাপত্তা হীনতার বিষয়টি নতুন করে সামনে আসে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সহ বিভিন্নভাবে ক্ষেত্রে ব্যাপক সমালোচনা হয়।