ইন্টারনেটে জিহাদি উপকরণ শনাক্ত ও মুছে দেয়ার নতুন সফটওয়্যার

যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আম্বার রাড ছবির কপিরাইট বিবিসি
Image caption যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আম্বার রাড

অনলাইনে জিহাদ সংক্রান্ত বিষয়বস্তু শনাক্ত এবং তাৎক্ষণিক-ভাবে মুছে দেয়ার এক নতুন ধরণের সফটওয়্যার তৈরিতে সাহায্য করেছে ব্রিটেন।

যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আম্বার রাড বলেছেন, এই সফটওয়্যার টুলের মাধ্যমে ৯৪ শতাংশ আইএস এর কর্মকাণ্ড শনাক্ত করা সম্ভব।

সেগুলো মুছে দিতে ই সফটওয়্যারটির সক্ষমতা ৯৯.৯৯৫ শতাংশ পর্যন্ত প্রমানিত।

আর যেসব জিনিস মুছে দেবার ক্ষেত্রে সফটওয়্যারটি নিজে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না, সেটি মানব সিদ্ধান্তের জন্য ছেড়ে রাখবে।

লন্ডনের একটি ফার্ম নতুন এই বিশেষ টুলটি তৈরি করেছে।

এটি তৈরিতে ব্রিটিশ সরকার ছয় লাখ পাউন্ড অর্থ প্রদান করেছে।

ইন্টারনেটে ইসলামিক স্টেট গ্রুপ আইএসের নানারকম অডিও-ভিডিও উপকরণসহ বড় ডাটাবেস আছে, যা দিয়ে নানারকম প্রচারণা চালিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষকে জিহাদে উদ্বুদ্ধ করা হয়।

মধ্যপ্রাচ্যে আইএস যোদ্ধাদের সঙ্গে যোগ দেয়ার উদ্দেশে পাশ্চাত্য দেশগুলোর বহু তরুণতরুণী তাদের বাড়িঘর ছেড়েছে।

পাশ্চাত্যের উন্নত বহু দেশেই সন্ত্রাস দমন বিভাগের তদন্তকারীরা বিষয়টি নিয়ে ক্রমেই উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ছেন।

পশ্চিমা দেশের এসব অল্পবয়সী ছেলেমেয়েরা হঠাৎ তাদের বাড়িঘর থেকে উধাও হয়ে যায়।

আরো পড়ুন: বিটকয়েন খুঁজতে গিয়ে যে দেশ বিদ্যুৎ সংকটে

'খালেদা জিয়ার কারাবাস দীর্ঘ করার চেষ্টা চলছে'

পরে ইরাক ও সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে অনেকের।

এদের বড় অংশটিকে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে ইন্টারনেটের প্রচারণাও মাধ্যমে।

ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, হয়ত এই জায়গাটিতে কাজ করবে নতুন সফটওয়্যারটি।

তিনি বলেন, হয়ত একদিন সব প্রতিষ্ঠানের জন্য এই প্রযুক্তি ব্যবহার ভবিষ্যতে আইন দ্বারা বাধ্যতামূলক করা হতে পারে।

সন্ত্রাস-দমন সংক্রান্ত আলাপ আলোচনায় এখন যুক্তরাষ্ট্র সফরে রয়েছেন তিনি।

এসময় মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে নতুন সফটওয়্যার নিয়েও আলাপ করবেন।

তবে, এ ধরণের প্রযুক্তি আগে মুক্ত ইন্টারনেটের পক্ষের মানুষেরা ব্যপকভাবে সমালোচনা করেছেন।

সম্পর্কিত বিষয়