BBC navigation

পদ্মা দুর্নীতি তদন্ত পর্যবেক্ষণে প্যানেল ঘোষণা

সর্বশেষ আপডেট শনিবার, 6 অক্টোবর, 2012 16:14 GMT 22:14 বাংলাদেশ সময়
luis moreno ocampo

লুইস মোরেনো ওকাম্পো

বাংলাদেশের পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত পর্যালোচনা করতে বিশ্ব ব্যাংক একটি স্বাধীন আন্তর্জাতিক প্যানেলের নাম ঘোষণা করেছে।

তিন সদস্য বিশিষ্ট এই প্যানেলের নেতৃত্ব দেবেন নেদারল্যান্ডস-ভিত্তিক আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের সাবেক প্রধান প্রসিকিউটর লুইস মোরেনো ওকাম্পো।

বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন এ প্যানেলকে স্বাগত জানিয়েছে।

টিআইবি মনে করছে, অভিযোগ সঠিক হলে দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি নিশ্চিত করতে এই প্যানেল একটি সুযোগ সৃষ্টি করবে।

যুদ্ধাপরাধের বিচারের জন্যে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রধান প্রসিকিউটর ছিলেন লুইস মোরেনো ওকাম্পো।

তাঁর নেতৃত্বাধীন প্যানেলের অন্য দুই সদস্য হলেন, হংকংয়ের দুর্নীতিবিরোধী স্বাধীন কমিশনের সাবেক কমিশনার টিমোথি টং এবং যুক্তরাজ্যের গুরুতর অপরাধ দমন দপ্তরের সাবেক পরিচালক রিচার্ড অল্ডারম্যান।

বিশ্ব ব্যাংক বলছে, পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করতে বাংলাদেশের অনুরোধের পর তাদের দেয়া শর্ত সরকার মেনে নেয়ার প্রেক্ষিতে এই প্যানেলটি গঠন করা হয়েছে।

"যেহেতু আন্তর্জাতিক একটি প্রেক্ষাপটে এই ঘটনাটি ঘটেছে, তাই তাঁরা পেশাদারিত্ব নিশ্চিত করতে এটিকে একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেবেন বলে আমি মনে করি।"

ডঃ ইফতেখারুজ্জামান, টিআইবির নির্বাহী পরিচালক

প্যানেলের সদস্যরা সবাই আন্তর্জাতিকভাবে সুপরিচিত এবং নিজের নিজের ক্ষেত্রে দক্ষ বলে সুনাম রয়েছে, আর তাই এই প্যানেল তাদের দায়িত্ব ভালোভাবে পালন করতে পারবে বলে মনে করেন দুর্নীতি বিরোধী প্রতিষ্ঠান টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ডঃ ইফতেখারুজ্জামান।

তিনি বলেন, যে নামগুলো এসেছে, তাতে আপাতদৃষ্টিতে কোন সন্দেহ থাকতে পারে না তাদের যোগ্যতা সম্পর্কে।

“যেহেতু আন্তর্জাতিক একটি প্রেক্ষাপটে এই ঘটনাটি ঘটেছে, তাই তাঁরা পেশাদারিত্ব নিশ্চিত করতে এটিকে একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেবেন বলে আমি মনে করি।“

বিশ্ব ব্যাংক বলছে, দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্তদের ছুটিতে পাঠানোর পাশাপাশি আরো শর্ত ছিল যে দুর্নীতি দমন কমিশন একটি বিশেষ তদন্ত ও প্রসিকিউশন দল গঠন করবে, যারা একটি স্বাধীন আন্তর্জাতিক প্যানেলের কাছে সব তথ্য সরবরাহ করবে।

এই প্যানেল আবার সরকারি তদন্তের বিশ্বাসযোগ্যতার বিষয়ে বিশ্ব ব্যাংক ও অন্য দাতাদের পরামর্শ দেবে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান জানান, সরকারের সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংকের যে সমঝোতা হয়েছে, তারই ফলাফল হিসেবে মিঃ ওকাম্পোর নেতৃত্বাধীন এই প্যানেলটি গঠিত হয়েছে।

তিনি এই প্যানেল গঠনকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের সাথে কমিশনের আলাদা কোন চুক্তি করতে হবে না, বরং এ বিষয়ে সরকারের সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংকের সমঝোতায় তাঁরা সম্মতি জানিয়েছেন।

প্যানেলের কাজ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন যে প্যানেল সদস্যরা কী করবেন, তা আগেই ঠিক করা হয়েছে।

"দুর্নীতি দমন কমিশন যে তদন্ত করছে, তা সুষ্ঠু, পূর্ণাঙ্গ ও স্বচ্ছ কীনা তাই পর্যবেক্ষণ করবে বিশ্বব্যাংকের প্যানেল সদস্যরা।"

গোলাম রহমান, দুর্নীতি দমন কমিশন

“দুর্নীতি দমন কমিশন যে তদন্ত করছে, তা সুষ্ঠু, পূর্ণাঙ্গ ও স্বচ্ছ কীনা তাই পর্যবেক্ষণ করবে বিশ্বব্যাংকের প্যানেল সদস্যরা। এটিই তাদের কার্যপরিধি,“- বলেন মিঃ রহমান।

তবে আন্তর্জাতিক প্যানেলের সদস্যরা তদন্ত কাজে সরাসরি অংশ গ্রহণ করবেন না বলে তিনি জানান।

প্রকল্প বাস্তবায়নে বিকল্প ব্যবস্থা ও সেতু নির্মাণের জন্যে কেনাকাটায় দাতাদের আরো বেশি নজরদারি করার এখতিয়ার দেয়ার শর্তটি স্মরণ করিয়ে দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক।

এরপর সংস্থাটির পক্ষ থেকে আবার স্পষ্ট করে বলা হয়েছে যে শর্তগুলোর বাস্তবায়ন ও স্বাধীন প্যানেলের কাছ থেকে ইতিবাচক রিপোর্ট পেলেই কেবল বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন করবে।

বিশ্ব ব্যাংকের প্রসিডেন্ট ডঃ জিম ইয়ং কিম বিবৃতিতে বলেছেন, প্যানেলটির গঠন বাংলাদেশে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও সুশাসন নিশ্চিত করার একটি অনন্য সুযোগ সৃষ্টি করেছে।

ডঃ ইফতেখারুজ্জামান বলেন, নেতিবাচক ও অসম্মানজনক প্রেক্ষিতে এই প্যানেল গঠিত হলেও এটি সরকারের জন্যেও একটি সুযোগ।

তিনি বলেন, তদন্ত প্রক্রিয়াটি কতটা সুষ্ঠু হচ্ছে, নিরপেক্ষ হচ্ছে এবং এ ধরনের তদন্তে যতটা পেশাদারিত্ব দেখানো প্রয়োজন তা হচ্ছে কীনা, এসব বিষয় নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

“বিশ্ব ব্যাংক ও দাতাদের পাশাপাশি সরকার ও মানুষের মধ্যে দুর্নীতির অভিযোগের ব্যাপারে যে প্রশ্নগুলো আছে, সেগুলো কতখানি সঠিক এবং সঠিক হলে এর শাস্তি দেয়ার একটি সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে এর মাধ্যমে।“

মিঃ ওকাম্পোর প্যানেল বিশ্ব ব্যাংকের কাছে রিপোর্ট পেশ করার পর তা বাংলাদেশ সরকারকেও দেয়া হবে। আর এর ফলাফলের ওপরই নির্ভর করবে বিশ্ব ব্যাংকের কাছ থেকে বাংলাদেশ ১২০ কোটি ডলার পাবে কিনা।

একই ধরনের খবর

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻