BBC navigation

জামায়াতে ইসলামীর বিরুদ্ধে নাশকতার চেষ্টার অভিযোগ

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 9 নভেম্বর, 2012 14:43 GMT 20:43 বাংলাদেশ সময়

বাংলাদেশের প্রধান ধর্মভিত্তিক দল জামায়াতে ইসলামী যুদ্ধাপরাধের বিচার ব্যাহত করতে পরিকল্পিতভাবে নাশকতার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু।

উল্লেখ্য বাংলাদেশে সম্প্রতি জামায়াতে ইসলামীর কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সাথে দলটির নেতা-কর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু হুঁশিয়ারি দিয়েছেন যে দলটির এধরনের কর্মসূচি প্রতিহত করা হবে।

তবে সরকারের অভিযোগ অস্বীকার করে জামায়াতে ইসলামী বলছে, তারা গণতান্ত্র্রিক প্রক্রিয়াতেই তাদের কর্মসূচি পরিচালনা করছেন।

স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু বলেন, তারা বিশ্বাস করেন যুদ্ধাপরাধের বিচার একটি সমাপ্তির দিকে এগিয়ে আসার সাথে সাথে জামায়াতে ইসলামী ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড চালানোর চেষ্টা করছে। আর সেকারণেই তারা জামায়াতের এসব কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন।

"যুদ্ধাপরাধের বিচার যত সমাপ্তির দিকে, তত তারা হিংস্র হয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ব্যহত করবার জন্যে এবং যুদ্ধাপরাধীদের মুক্ত করবার জন্য তাদের সর্বশেষ স্টান্ট এই কয়েকদিনের নাশকতা। আমরা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দিয়ে তাদের নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি।"

তবে জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, তারা রাজনৈতিক অধিকারের প্রয়োগ করেই তারা তাদের কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন।

জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা তাসনিম আলম অভিযোগ করছেন যে, সরকার প্রভাব খাটিয়ে যুদ্ধাপরাধের বিচার দ্রুত শেষ করার চেষ্টা করছে এবং বিনা উস্কানিতেই তাদের কর্মসূচিতে বাধা দেয়া হচ্ছে।

"বিচারের নামে সেখানে প্রহসন করা হচ্ছে। সরকারের মন্ত্রীরা বলছে ফাঁসি দেয়া হবে বা ঐ তারিখের মধ্যে বিচার শেষ হবে। এখানে আদালতের চাইতে সরকারের ভূমিকাই বেশী।"

এদিকে জামায়াতের এসব কর্মসূচিকে শুধুমাত্র রাজনৈতিক কর্মসূচি হিসেবে মানছেন না স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু।

তিনি বলছেন, তারা মনে করেন, যুদ্ধাপরাধের বিচারকাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত জামায়াতে ইসলামী নৈরাজ্য সৃষ্টি করার চেষ্টা চালিয়ে যাবে। আর ভবিষ্যতেও জামায়াতে ইসলামীর এধরনের কোন কর্মসূচি প্রতিহত করা হবে বলে জানান স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

"তাদের বিরুদ্ধে বিচারকাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের এই দাম্ভিকতা, অরাজকতা এবং নৈরাজ্য সৃষ্টির প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকতে পারে। আমরা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছি তাদের সর্বোচ্চ শক্তি, মেধা এবং কৌশল প্রয়োগ করে তাদের বিরত রাখতে এবং প্রতিহত করতে"

তবে জামায়াতে ইসলামী বলছে, তারা তাদের কর্মসূচি চালিয়ে যাবেন এবং বর্তমান কর্মসূচি শেষ হবার পর শীঘ্রই তারা আবারো নতুন কর্মসূচি ঘোষনা করতে পারেন।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻