BBC navigation

থাইল্যান্ডে সরকারবিরোধী ব্যাপক বিক্ষোভ, সংঘর্ষ

সর্বশেষ আপডেট শনিবার, 24 নভেম্বর, 2012 12:38 GMT 18:38 বাংলাদেশ সময়

দশ হাজারেরও বেশি বিক্ষোভকারী জড়ো হয় রাজধানী ব্যাঙ্ককের রয়্যাল প্লাজায়

থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাঙ্ককে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী যখন প্রধানমন্ত্রী ইয়িংলাক চিনাওয়াতের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন, পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ছুড়েছে ও বহু লোককে আটক করা হয়েছে।

এই বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে রাজতন্ত্রের সমর্থক একটি নতুন গোষ্ঠী - পিতাক সিয়াম।

একজন সাবেক সেনা জেনারেল এই গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দিচ্ছেন এবং তারা দাবি করছেন থাইল্যান্ডে যে গণতন্ত্র চলছে সেটা ভুয়ো গণতন্ত্র!

প্রধানমন্ত্রী ইয়িংলাক চিনাওয়াত ব্যাপক ভোটে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন গত বছর।

এর আগে তার ভাই থাকসিন চিনাওয়াত সেনাবাহিনী সমর্থিত এক অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত হন এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত ওয়ার আগেই দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান।

"সরকার দাবি করে তারা যে দেড় কোটি ভোট পেয়েছে। আমি যে তাদের মধ্যে নেই –তা দেখাতেই আমি এখানে এসেছি। আমি এই সরকারকে বাছাই করিনি"

ব্যাঙ্ককে একজন বিক্ষোভকারী

এখন বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ যে, প্রধানমন্ত্রী ইয়িংলাক চিনাওয়াত তার ভাই মি. থাকসিনের পুতুল হিসেবে কাজ করছেন।

এই সরকারের বিরুদ্ধেও বিক্ষোভকারীরা ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ এনেছে।

একজন বিক্ষোভকারী বলেছেন, ‘সরকার দাবি করে তারা যে দেড় কোটি ভোট পেয়েছে। আমি যে তাদের মধ্যে নেই –তা দেখাতেই আমি এখানে এসেছি। আমি এই সরকারকে বাছাই করিনি।‘

সংবাদদাতারা বলছেন যে, রাজধানী ব্যাঙ্ককে পার্লামেন্টের কাছেই রয়্যাল প্লাজায় আজকের বিক্ষোভে ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ অংশ নেয়।

বিক্ষোভকারীরা যাতে চত্বরের ভেতরে ঢুকতে না পারে সেজন্যে তার চারপাশে কাঁটাতারের বেড়া বসানো হয়।

প্রতিবাদকারীরা এক পর্যায়ে অবরোধ ডিঙ্গিয়ে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করলে দাঙ্গা পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে এবং আটক করে বহু বিক্ষোভকারীকে।

প্রধানমন্ত্রী ইয়িংলাক চিনাওয়াত

প্রধানমন্ত্রী ইয়িংলাক চিনাওয়াত

সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন পুলিশও আহত হয়েছে। পুলিশ বলছে যে তারা বিক্ষোভকারীদের কাছ থেকে বুলেট, ছুড়িসহ বিভিন্ন রকমের অস্ত্র জব্দ করেছে।

সেনাবাহিনীর সাবেক এক জেনারেলের নেতৃত্বে নতুন একটি গ্রুপ পিতাক সিয়ামের শ্লোগান- থাইল্যান্ডকে রক্ষা করো।

রাজতন্ত্রের সমর্থক বিভিন্ন গ্রুপ এই আন্দোলনের প্রতি সমর্থন ঘোষণা করেছে।

এদের মধ্যে রয়েছে পিপলস এ্যালায়েন্স ফর ডেমোক্র্যাসির ‘ইয়েলো শার্ট’ সদস্যরাও।

২০০৬ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত থাকসিন চিনাওয়াতের সমর্থনে তৎকালীন সরকারের বিরুদ্ধেও তারা প্রতিবাদ বিক্ষোভে অংশ নিয়েছিল।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻