BBC navigation

গাজা সফরে হামাস নেতা খালেদ মেশাল

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 7 ডিসেম্বর, 2012 16:16 GMT 22:16 বাংলাদেশ সময়
গাজা সফরে হামাস নেতা খালেদ মেশাল

গাজা সফরে হামাস নেতা খালেদ মেশাল

ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাসের নির্বাসিত রাজনৈতিক নেতা খালেদ মেশাল এই প্রথম বারের মতো গাজা সফরে গেছেন।

১৯৬৭ সালে পশ্চিম তীর থেকে চলে আসার পর কোন ফিলিস্তিনি ভূখন্ডে এটাই তাঁর প্রথম সফর।

গাজায় তিনি হামাসের ২৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। আগামীকাল শনিবার তিনি গাজায় এক বড় সমাবেশে বক্তৃতা দেবেন বলেও কথা রয়েছে।

গাজায় খালেদ মেশালের এই সফরকে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। বিবদমান দুই ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাস এবং ফাতাহ’র মধ্যে তিনি ঐক্য প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখতে পারেন বলে আশা করছেন অনেকে।

৪৫ বছরের নির্বাসিত জীবন

খালেদ মেশাল হচ্ছেন হামাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রভাবশালী নেতাদের একজন।

২০০৪ সালে ইসরায়েল যখন হামাসের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ইয়াসিনকে হত্যা করে, তারপর থেকে খালেদ মেশালই হামাসের রাজনৈতিক নেতার ভূমিকা পালন করছেন।

এ বছরের ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত তিনি দামেস্ক থেকেই তার কার্যক্রম চালিয়েছেন, কিন্তু সেখানে বিদ্রোহ শুরু হওয়ার পর তিনি এখন বেশিরভাগ সময় কাতার এবং মিশরেই থাকেন।

অতীতে ইসরায়েলও তাকে হত্যার প্রচেষ্টা চালিয়েছে, কিন্তু ভাগ্যক্রমে তিনি প্রাণে বেঁচে যান।

তবে অদ্ভুত ব্যাপার হচ্ছে, খালেদ মেশালের গাজা সফর নিয়ে ইসরায়েল কোন উচ্চবাচ্য করছে না।

মিশর থেকে সীমান্ত পথে গাজায় ঢোকার পর তিনি বলেন, এত বছর পর ফিলিস্তিনি ভূমিতে পা রাখতে পেরে তিনি আনন্দিত।

খালেদ মেশাল বলেন, “গাজা সব সময়েই আমার হৃদয়ে ছিল, একারণেই আমি গাজায় এসেছি। ১৯৬৭ সালে আমি পশ্চিম তীর ছেড়ে যাই, তারপর এই প্রথম কোন ফিলিস্তিনি মাটিতে পা রাখলাম। গাজায় আসতে পেরে এবং এখানকার ফিলিস্তিনিদের সাক্ষাৎ করতে পেরে আমি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি।”

ঐক্য প্রতিষ্ঠার সুযোগ

বিশ্লেষকরা বলছেন, খালেদ মেশালের গাজা সফর ফিলিস্তিনীদের দুই বিবদমান গোষ্ঠী, হামাস এবং ফাতাহর মধ্যে ঐক্য প্রতিষ্ঠার সুযোগ সৃষ্টি করেছে।

গত বছর ফিলিস্তিনিদের দুই দলকে এক করার যে উদ্যোগ মিশর নিয়েছিল, খালেদ মেশাল তাতে সায় দিয়েছিলেন।

যদিও এই প্রক্রিয়া পরে থমকে যায়, তারপরও এবারের এই সফরের সময় এই প্রসঙ্গ আবার সামনে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে।

পিএলওর সাবেক মুখপাত্র এবং ঊর্ধ্বতন ফিলিস্তিনি কর্মকর্তা হানান আশরাবি বলেন, খালেদ মেশাল এই লক্ষ্যে কিছু একটা করবেন বলে তারা আশাবাদী।

“খালেদ মেশাল সবসময় ইতিবাচক এবং গঠনমূলক ভূমিকা রেখেছেন। তিনি সবসময় ফিলিস্তিনি ঐক্যের পক্ষে কথা বলেছেন। কাজেই তিনি গাজা সফরের সময় কিভাবে এই ঐক্য অর্জন করা যায় সে লক্ষ্যে হামাসের সিদ্ধান্তকে প্রভাবিত করতে পারবেন বলে আশা করি।”

এ মাসেই জাতিসংঘে ফিলিস্তিনিরা পর্যবেক্ষক সদস্যের মর্যাদা অর্জনের পর খালেদ মেশাল ফিলিস্তিনী প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের প্রশংসা করেছিলেন।

গাজা সফরে যাওয়ার আগে খালেদ মেশাল নিজেও সাংবাদিকদের বলেছেন, যে নতুন আবহ এখন তৈরি হয়েছে তার ফলে ফিলিস্তিনিদের মধ্যে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব।

কিন্তু গাজার হামাস নেতৃত্বকে তিনি এই লক্ষ্যে কতোটা প্রভাবিত করতে পারেন, সেটা একটা বড় প্রশ্ন।

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻