BBC navigation

সিরিয়া সংকট নিয়ে শতাধিক দেশের বৈঠক শুরু

সর্বশেষ আপডেট বুধবার, 12 ডিসেম্বর, 2012 13:10 GMT 19:10 বাংলাদেশ সময়

সিরিয়ার সংঘাত নিয়ে আলোচনার জন্য একশোর বেশি দেশের প্রতিনিধিরা মরক্কোর মারাকেশ শহরে এক বৈঠকে যোগ দিয়েছেন।

ফ্রেন্ডস অব সিরিয়া’র নামে আয়োজিত এই বৈঠক শুরুর প্রাক্কালে যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার বিরোধী জোট ন্যাশনাল কোয়ালিশনকে সিরিয়ার জনগণের বৈধ প্রতিনিধি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। কিন্তু রাশিয়া যুক্তরাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্তের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

অন্যদিকে সিরিয়ার ন্যাশনাল কোয়ালিশনের নেতা মোয়াজ আল খাতিব বলেছেন, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট আসাদ যদি এই লড়াইয়ে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেন, সেজন্য তারা বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলো, বিশেষ করে রাশিয়াকে দায়ী করবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বীকৃতি

সিরিয়ার বিরোধী জোট ন্যাশনাল কোয়ালিশনকে সেদেশের জনগণের বৈধ প্রতিনিধি হিসেবে এপর্যন্ত স্বীকৃতি দিয়েছে মাত্র হাতে গোণা কয়েকটি দেশ।

বিরোধী জোট সিরিয়ার জনগণের বৈধ প্রতিনিধি: ওবামা

এদের মধ্যে রয়েছে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, তুরস্ক এবং কিছু উপসাগরীয় রাষ্ট্র। তারপর এই তালিকায় এখন যুক্ত হলো যুক্তরাষ্ট্রের নাম। বিশ্বের একমাত্র পরাশক্তির তরফ থেকে এই স্বীকৃতি সিরিয়ার বিরোধী জোটের জন্য এক বড় অর্জন।

এই ঘোষণার জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট যে সময়টা বেছে নিয়েছেন সেটাও গুরুত্বপূর্ণ। মরক্কোর মারাকেশ শহরে প্রায় একশোটি দেশের প্রতিনিধিরা যখন সিরিয়া নিয়ে বৈঠকে বসেছেন, তার ঠিক আগে প্রেসিডেন্ট ওবামা এই স্বীকৃতির কথা প্রকাশ করলেন।

মার্কিন টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এবিসিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেন, “সিরিয়ার বিরোধী জোটকে আমরা সিরিয়ার জনগণের প্রতিনিধিত্বশীল সংগঠন বলে মনে করি। সেখানে প্রায় সব দল অন্তর্ভুক্ত। প্রেসিডেন্ট আসাদের সরকারের তুলনায় আমরা তাদেরকেই সিরিয়ার জনগণের আইনগত প্রতিনিধি বলে মনে করি। সুতরাং আমরা তাদেরকে স্বীকৃতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু এই স্বীকৃতির পর সিরিয়ার বিরোধী জোটকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।”

মারাকেশে ফ্রেন্ডস অব সিরিয়ার নামে আয়োজিত বৈঠকেও এই একই বিষয় নিয়ে কথাবার্তা চলছে। তবে সেখানে বিতর্কটা হবে বিরোধী জোটকে কি সিরিয়ার একমাত্র প্রতিনিধি বলে স্বীকৃতি দেয়া হবে, না অন্যতম প্রতিনিধি হিসেবে।

সিরিয়ার বিরোধী জোট চাইছে তাদেরকেই একমাত্র প্রতিনিধি বলা হোক। আর কিছু ইউরোপীয় দেশও তাই চায়, যাতে তারা বিদ্রোহীদের অস্ত্র এবং অর্থ সরবরাহ করতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের ঘোষণাকেও সেই হিসেব মাথায় রেখেই নেয়া পদক্ষেপ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

ক্ষুব্ধ রাশিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের স্বীকৃতিতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রী

কিন্তু প্রেসিডেন্ট ওবামার এই ঘোষণার বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে রাশিয়া। আন্তর্জাতিকভাবে ক্রমশ একঘরে হতে থাকা সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট আসাদের প্রতি রাশিয়াই এখনো পর্যন্ত অকুন্ঠ সমর্থন জানিয়ে চলেছে।

রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ অভিযোগ করেছেন, যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার বিরোধী জোটকে স্বীকৃতি দেয়ার মাধ্যমে এই যুদ্ধে তাদের জয়ী হওয়ার জন্য মদত দিচ্ছে, “ যুক্তরাষ্ট্র যে সিরিয়ার ন্যাশনাল কোয়ালিশনকে সিরিয়ার জনগণের একমাত্র প্রতিনিধি বল স্বীকৃতি দিয়েছে, সেটা আমাকে অবাক করেছে। জেনেভায় যে চুক্তি হয়েছিল, এটা কিন্তু তার লংঘন। কারণ সেই চুক্তিতে সিরিয়ার সরকারের নিয়োগ করা প্রতিনিধি এবং বিরোধীদের প্রতিনিধিদের মধ্যে আলোচনা শুরু করার কথা বলা হয়েছিল। বিরোধী জোটকে এভাবে স্বীকৃতি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র এমন মনোভাবই প্রকাশ করলো, যে তারা প্রেসিডেন্ট আসাদের বিরুদ্ধে এই লড়াইয়ে বিরোধীদের বিজয়ী দেখতে চায়।”

যুক্তরাষ্ট্র অবশ্য বলছে, তারা সিরিয়ার বিদ্রোহীদের অস্ত্র যোগান দেয়ার কোন সিদ্ধান্ত এখনো নেয়নি। কিন্তু মার্কিন কর্মকর্তারা এ নিয়ে কোন রাখঢাক করছেন না যে, বিদ্রোহীদের অস্ত্রসজ্জিত করলে যদি সিরিয়া সংকটের দ্রুত সমাধান হয়, সেটা তারা বিবেচনা করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বীকৃতির পর মারাকেশ সম্মেলনে এখন বাকী দেশগুলোর স্বীকৃতি আদায় খুব কঠিন হবে না বলে মনে করছে সিরিয়ার বিদ্রোহীরা।

আজকের বৈঠকে বিদ্রোহীরা একটা মানবিক সহায়তা তহবিল গঠনের জন্য জোর দাবি জানাবে। এই তহবিলের জন্য কত অর্থ দরকার, তার নানা হিসেব দেয়া হচ্ছে, বিদ্রোহীরা বলছে জরুরী মানবিক ও চিকিৎসা সাহায্য দেয়ার জন্য ৫০ কোটি হতে একশো কোটি ডলারের মত দরকার।

কিন্তু এই অর্থ দেয়ার আগে যুক্তরাষ্ট্র এবং পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলো বিরোধী কোয়ালিশনের কাছ কিছু বিষয়ে নিশ্চয়তা চাইছে। বিশেষ করে তারা দেখতে চায় লড়াইয়ে লিপ্ত বিদ্রোহীদের ওপর এই জোটের নির্বাসিত নেতাদের কতখানি সত্যিকারের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻