BBC navigation

বাংলাদেশে গোলাম আজমের বিচার পুনরায় শুরুর আবেদন

সর্বশেষ আপডেট বুধবার, 19 ডিসেম্বর, 2012 15:56 GMT 21:56 বাংলাদেশ সময়
golam azam

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে বিচারাধীন, জামায়াতের সাবেক আমীর, গোলাম আজমের বিচার প্রক্রিয়া নতুন করে শুরু আবেদন করা হয়েছে।

বিচারাধীন জামায়াত নেতাদের আইনজীবী দলের প্রধান এবং জামায়াত নেতা আব্দুর রাজ্জাক বিবিসিকে বলেছেন, পুনরায় বিচার শুরুর যুক্তি হিসাবে তাঁরা বলেছেন, ইন্টারনেট থেকে ফাঁস হওয়া বিচারকের কথোপকথনে প্রমাণিত হয় বিচার প্রক্রিয়া প্রভাবিত হয়েছে।

"ট্রাইবুনাল-১ এর একজন বিচারপতি পদত্যাগ করেছেন, ভালকথা । কিন্তু ইন্টারনেট কথোপকথন এবং ইমেইল চালাচালি যা ফাঁস হয়েছে, তা থেকে বোঝা যাচ্ছে, বিচার প্রভাবিত হয়েছে, সংক্রমিত হয়েছে। ফলে নতুন করে বিচার করা ছাড়া সুবিচার নিশ্চিত করা যাবে না।"

"ইন্টারনেটে কথোপকথন এবং ই-মেইল চালাচালিতে যা ফাঁস হয়েছে, তা থেকে বোঝা যায় বিচার প্রভাবিত হয়েছে, সংক্রমিত হয়েছে"

আব্দুর রাজ্জাক, আইনজীবী ও জামায়াত নেতা

মি. রাজ্জাক জানিয়েছেন, একই যুক্তিতে অপর দুই আসামী-- জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামী এবং অন্যতম শীর্ষ নেতা দেলোয়ার হোসেন সাঈদী -- তাঁদের বিচারও পুনরায় শুরুর পক্ষে আবেদনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

ঐ আইনজীবী বলেন, যেহেতু এই তিন আসামীর বিচারকাজ প্রায় শেষের পথে, তাই এখনই বিচার কাজ পুনরায় শুরুর আবেদন করছেন তারা।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল -১ এই আবেদনের ওপর শুনানির দিন ধার্য করেছে সোমবার।

"নতুন করে বিচার শুরুর সুযোগ নেই"

ট্রাইব্যুনালের আইনজীবী প্যানেলের সদস্য সৈয়দ হায়দার আলী বিবিসিকে বলেছেন, আইনগতভাবে নতুন করে বিচার শুরুর কোন সুযোগ নেই।

"যে আইনে বিচার হচ্ছে, সেটি সহ দেশের অন্য কোন আইনেই নতুন করে বিচার শুরুর কোন বিধান নেই। কাজেই নতুন করে বিচার শুরুর কোন প্রশ্ন নেই। এটাই আমাদের মুল বক্তব্য।" তিনি জানান, এই যুক্তিই তারা আদালতে তুলে ধরবেন।

"যে আইনে বিচার হচ্ছে, সেটি সহ দেশের অন্য কোন আইনেই নতুন করে বিচার শুরুর কোন বিধান নেই।"

সৈয়দ হায়দার আলী, ট্রাইব্যুনালের আইনজীবী প্যানেলের সদস্য

যুদ্ধাপরাধের মামলাগুলো নিয়ে ট্রাইব্যুনাল-১ এর সাবেক প্রধান, বিচারপতি নিজামুল হকের সাথে বেলজিয়াম প্রবাসী একজন আইন বিশেষজ্ঞের ইন্টারনেটে স্কাইপির মাধ্যমে কথোপকথন ফাঁস হওয়ার পর থেকেই আসামী পক্ষ থেকে বিচার পুনরায় শুরুর কথা বলা হচ্ছিল।

ফাঁস হওয়া কথোপকথন নিয়ে বিতর্কের মাঝে বিচারপতি হক ট্রাইব্যুনাল-১ থেকে পদত্যাগ করেন। তাঁর জায়গায় এসেছেন বিচারপতি এটিএম ফজলে কবির।

আব্দুর রাজ্জাক জানিয়েছেন, ট্রাইব্যুনালে দেওয়া ৬০০ পৃষ্ঠার আবেদনে ইন্টারন্টে থেকে রেকর্ডকৃত বিচারপতি নিজামুল হকের কথোপকথনের বিবরণ, ফাঁস হওয়া তাঁর বিভিন্ন ই-মেল, এ সবের ওপর ব্রিটেন ও ঢাকার পত্রিকায় প্রকাশিত বিভিন্ন রিপোর্ট সংযুক্ত করা হয়েছে।

ট্রাইব্যুনালের কৌঁসুলির অপসারণ দাবি

ওদিকে, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের আইনজীবী প্যানেলের অন্যতম সদস্য জিয়াদ আল মালুমের অপসারণের দাবিতে একটি আবেদন করা হয়েছে আজ (বুধবার)।

ট্রাইব্যুনাল-১ এ এই আবেদন করেছেন বিচারাধীন আসামী বিরোধী বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর আইনজীবী।

ঐ আইনজীবী ফখরুল ইসলাম বিবিসিকে জানান, বিচারপতি নিজামুল হকের ফাঁস হওয়া কথোপকথনের বিভিন্ন সময়ে মি মালুমের নাম যেভাবে এসেছে, তাতে আশঙ্কা রয়েছে তিনি বিচারকাজ প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছেন।

এই আবেদনের উপর শুনানি হবে রোববার।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ নয়জন নেতা সহ মোট ১১ জনের বিরুদ্ধে বিচার কাজ চলছে।

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻