BBC navigation

অঘটন ছাড়াই পেরিয়ে গেল পৃথিবী ধ্বংসের ক্ষণ

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 21 ডিসেম্বর, 2012 13:15 GMT 19:15 বাংলাদেশ সময়

মায়া বর্ষপঞ্জী অনুযায়ী ২১শে ডিসেম্বর পৃথিবী ধ্বংস হওয়ার কথা

পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাওয়ার ক্ষণটি ছিল গ্রীনিচ মান সময় এগারোটায়। মায়া সভ্যতার বর্ষপঞ্জী আর তাদের ভবিষ্যত বাণীকে যারা সঠিক বলে ধরে নিয়েছিলেন, তারা প্রস্তুত ছিলেন। যারা এটা বিশ্বাস করেননি, তারাও নেহায়েত মজা করার জন্য আয়োজন করেছিলেন নানা উৎসবের।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোন অঘটন ছাড়াই পরিয়ে গেল ধ্বংসযজ্ঞের সেই ক্ষণ। মেক্সিকো আর মধ্য আমেরিকার বিভিন্ন দেশে মায়া সভ্যতার প্রাচীন তীর্থে যারা জড়ো হয়েছিলেন, তারা এতে হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন, নাকি হতাশ হলেন, তা অবশ্য বোঝা গেল না।

মেক্সিকোতে প্রাচীন মায়া সভ্যতার নিদর্শন এখনো ছড়িয়ে আছে চিচেন ইটজায়। সেখান থেকে দেড় ঘন্টার পথ প্রাচীন মেক্সিকান শহর মেরিডা। পৃথিবী ধ্বংসের ক্ষণ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে সেই শহরে জড়ো হন শত শত মানুষ।

অনেকের পরনে সাদা পোষাক। সঙ্গে আগর বাতিও এনেছেন অনেকে। ২১ শে ডিসেম্বরের যে নতুন সুর্যোদয়, তা এক নতুন যুগের সূচনা করবে বলে তাদের ধারণা।

প্রতিবেশী গুয়াতেমালাতে হাজার হাজার মানুষ সমবেত হন প্রাচীন মায়া সভ্যতার পীঠস্থান টিকালের জঙ্গলে।

এই ধ্বংসযজ্ঞ থেকে রেহাই পাওয়ার নাকি একটাই জায়গা, তা হচ্ছে ফ্রান্সের দক্ষিণের বুগারাচ পর্বত। সেখানে বাঁচার জন্য জড়ো হয়েছিলেন যে বিশ্বাসীরা, তাদের তুলনায় অবশ্য খবর সংগ্রহে যাওয়া সাংবাদিকদের সংখ্যা ছিল বহুগুণ বেশি!

একই দৃশ্য দেখা গেছে তুরস্কের সাইরিন্স শহরে।

সার্বিয়ার টানজ পর্বতমালার নাকি যাদুকরি ক্ষমতা আছে এই ধ্বংসযজ্ঞ থেকে মানুষকে রক্ষার। সেখানকার সব হোটেল বহু আগে থেকেই বুক করে রেখেছেন মজা করতে যাওয়া পর্যটকরা।

‘আমি মোটেই বিশ্বাস করি না যে পৃথিবী আজ ধ্বংস হয়ে যাবে। স্রেফ মজা করতেই এখানে আসা। যদি সত্যি অস্বাভাবিক কিছু ঘটে,’ বললেন বেলগ্রেড থেকে বেড়াতে আসা ২৮ বছর বয়সী ডার্কো।

চীনে অবশ্য ব্যাপারটা শেষ পর্যন্ত আর মজার থাকেনি। একটি খ্রীস্টান গোষ্ঠীর অনুসারি, যারা বিশ্বাস করে ২১শে ডিসেম্বর শুক্রবার থেকে তিন দিনব্যাপী এক ঘোর অমানিশা শুরু হবে, তাদের পুলিশি ঝামেলায় পড়তে হয়েছে। এই গোষ্ঠীর এক হাজার সমর্থককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻