BBC navigation

পাকিস্তানী ক্রিকেটাররা বাংলাদেশে খেলতে যাচ্ছে না

সর্বশেষ আপডেট বুধবার, 16 জানুয়ারি, 2013 11:49 GMT 17:49 বাংলাদেশ সময়

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান জাকা আশরাফ বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, তাদের ক্রিকেটাররা বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে খেলতে যাচ্ছে না।

এক একান্ত সাক্ষাৎকারে পিসিবির চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ কথা দিয়েও পাকিস্তানে তাদের দল পাঠায়নি। তাই বাংলাদেশের কথায় তারা আর বিশ্বাস রাখতে পারছেন না।

“আমরা আশা করেছিলাম বাংলাদেশ ১০ ই জানুয়ারী পাকিস্তানে খেলতে আসবে। তারপর তারা কখনো বলেছে তারা আসছে, কখনো বলেছে তারা আসছে না।”

তিনি বলেন, “এখন তারা বলছে, পাকিস্তানের খেলোয়াড়দের বিপিএল এ খেলতে দাও। তাহলে আমরা এপ্রিল মাসে পাকিস্তানে দল পাঠাবো। কিন্তু আমরা কিভাবে তাদের কথা আর বিশ্বাস করি। তাদের বিশ্বাসযোগ্যতা শূন্যে নেমে এসেছে।”

উল্লেখ্যে ৪০ জনের বেশি পাকিস্তানী ক্রিকেটার বিপিএল এর বিভিন্ন দলে খেলবেন বলে কথা ছিল। বাংলাদেশের এই টুর্ণামেন্ট আগামীকাল বৃহস্পতিবার উদ্বোধন করা হবে। শুক্রবার থেকে খেলা শুরু হওয়ার কথা।

"বাংলাদেশ কথা দিয়েও পাকিস্তানে তাদের দল পাঠায়নি। তাই বাংলাদেশের কথায় আমরা আর বিশ্বাস রাখতে পারছি না।"

জাকা আশরাফ, চেয়ারম্যান, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড

বাংলাদেশে বিপিএল-এর ফ্রাঞ্চাইজিগুলো বলছে যে পিসিবি’র সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পাকিস্তানী খেলোয়ারেরা বিপিএলে অংশ না নিলে প্রাথমিকভাবে হয়তো একটু অসুবিধা হবে, কিন্তু সামগ্রিকভাবে এর বড় কোন প্রভাব বিপিএলে পড়বে না।

ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস্ এর চেয়ারম্যান সেলিম চৌধুরী বলেন, “সব দল ইতোমধ্যেই বিকল্প খেলোয়াড় খোঁজা শুরু করেছে। পাকিস্তানী যেসব খেলোয়াড় খেলার কথা ছিল তাদের থেকে বড় তারকা খেলোয়াড় আনার কথা ভাবছি আমরা।”

তবে তিনি পিসিবি’র এই সিদ্ধান্তকে অত্যন্ত অপেশাদার বলে মন্তব্য করেন।

পাকিস্তানী খেলোয়াড় শহীদ আফ্রিদীর খেলার কথা ছিল ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস্ এ।

পাল্টা প্রতিশোধ নয়

বাংলাদেশ যেহেতু পাকিস্তানে দল পাঠায়নি তাই পাল্টা প্রতিশোধ হিসেবে পাকিস্তান তাদের খেলোয়াড়দের বাংলাদেশে যাওয়া আটকে দিল কীনা—এ প্রশ্নের উত্তরে পিসিবির চেয়ারম্যান জাকা আশরাফ বলেন, তারা প্রতিশোধে বিশ্বাস করেন না।

“বাংলাদেশের জনগণকে আমরা আমাদের ভাই হিসেবে দেখি। আমরা সবসময় বাংলাদেশের ক্রিকেটের প্রতি আমাদের সমর্থন দিয়ে গেছি। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের প্রতিও আমাদের সমর্থন ছিল। আমরা আমাদের সব খেলোয়াড়কে সেখানে খেলতে দিয়েছি।”

"পাকিস্তানী যেসব খেলোয়াড় খেলার কথা ছিল তাদের থেকে বড় তারকা খেলোয়াড় আনার কথা ভাবছি আমরা"

সেলিম চৌধুরি, চেয়ারম্যান, ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বার বার অঙ্গীকার ভঙ্গের অভিযোগ এনে তিনি বলেন, “বাংলাদেশ আমাদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল যে বিপিএলে পাকিস্তানী ক্রিকেটারদের পাঠালে এবং আইসিসির সহ সভাপতি পদে বাংলাদেশের প্রার্থীকে সমর্থন দিলে তারা পাকিস্তানে বাংলাদেশ দলকে খেলতে পাঠাবে।”

তিনি বলেন, কলম্বোতে আইসিসির সভায় তারা সহ সভাপতি পদে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের তৎকালীন প্রধান মোস্তফা কামালের প্রতি সমর্থন দেন। মোস্তফা কামাল পরে ই মেল পাঠিয়ে নিশ্চিত করেছিলেন যে বাংলাদেশ পাকিস্তানে খেলতে যাবে।

জাকা আশরাফ বলেন, বিসিবির নতুন সভাপতি নাজমুল হাসানও অতি সম্প্রতি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে বিপিএল শুরুর আগেই বাংলাদেশ পাকিস্তান যাবে দুটি ম্যাচ খেলতে।

“নাজমুল হাসানকে আমি দিল্লীতে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ দেখার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। তিনি এসেছিলেন। তিনি খুবই ভালো মানুষ। আমি তাকে পছন্দ করেছি। সেখানে আমাদের মধ্যে এরকম একটা সমঝোতা হয়েছিল যে তিনি দেশে ফিরে বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করবেন এবং বিপিএল এর আগেই বাংলাদেশ দুটি ম্যাচ খেলতে পাকিস্তান যাবে।”

জাকা আশরাফ বলেন, এর পর তিনি বাংরাদেশের সঙ্গে বার বার যোগাযোগ করেছেন, কিন্তু কোন সাড়া পাননি।

“আমরা আশা করেছিলাম বাংলাদেশও তাদের অঙ্গীকার রক্ষা করবে। কিন্তু তারা কথা রাখেনি।”

“আমি প্রতিশোধে বিশ্বাস করি না। আমি মনে করি একদিন সব ঠিক হয়ে যাবে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড তাদের ভুল শুধরে নেবে। আপনি যদি অতীত ইতিহাস দেখেন, তাহলে বুঝতে পারবেন পাকিস্তান সবসময় বাংলাদেশের ক্রিকেটের প্রতি সমর্থন জানিয়ে এসেছে।”

বিসিবির চিঠি

বিপিএলে খেলার জন্য পাকিস্তানী ক্রিকেটারদের ছাড়পত্র দেয়া হবে কিনা তা জানতে পাকিস্তানী ক্রিকেট বোর্ড বা পিসিবিকে এর আগে চিঠি পাঠিয়েছিল বাংলাদেশের বোর্ড বিসিবি।

বিসিবির মুখপাত্র জালাল ইউনুস বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছিলেন, তারা পিসিবির উত্তরের জন্য বুধবার সকাল দশটা পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন।

এর মধ্যে কোনও জবাব না এলে ক্লাবগুলোকে বিকল্প খেলোয়াড় খোঁজার জন্য বলে দেয়া হবে।

মি. ইউনুস আরও জানান, মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনও জবাব আসেনি।

মূলত: বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দল নিরাপত্তার কারণে পাকিস্তানে একটি সফর বাতিল করার পর বিপিএলে পাকিস্তানী খেলোয়াড় পাঠানো নিয়ে সংকট তৈরি হয়।

এরই এক পর্যায়ে সংকট নিরসনে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান দিল্লীতে পিসিবি সভাপতি জাকা আশরাফের সাথে বৈঠক করেও সংকট দূর করতে পারেননি।

জালাল ইউনুস বলছেন, সব মিলে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানী ক্রিকেট অঙ্গনে কিছুটা হলেও সম্পর্কের টানাপোড়ন তৈরি হয়েছে।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻