BBC navigation

মৃত্যুদণ্ডের সুপারিশ প্রত্যাহার করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক

সর্বশেষ আপডেট শুক্রবার, 18 জানুয়ারি, 2013 08:56 GMT 14:56 বাংলাদেশ সময়

জাল নোটের সমস্যা নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্বেগ বাড়ছে

বাংলাদেশে টাকা জাল করার সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডের সুপারিশ প্রত্যাহার করে নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্ণর আতিউর রহমান বিবিসিকে জানিয়েছেন, বিষয়টি তারা ইতোমধ্যে জার্মান কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন এবং কিভাবে এরকম একটি সুপারিশ করা হয়েছিল তা নিয়েও তদন্ত করা হবে।

"যারা জাল নোট ছড়ায়, তারা নিঃসন্দেহে বড় ধরণের অপরাধী। তাদের শাস্তিও হওয়া উচিৎ। কিন্তু তাই বলে এত বড় শাস্তি না দিলেও চলবে। আমরা সেরকম একটা ভারসাম্যপূর্ণ আইন করার জন্য পাঠাবো।"

আতিউর রহমান, গভর্ণর, বাংলাদেশ ব্যাংক


উল্লেখ্য বাংলাদেশে নোট জাল করার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার সুপারিশ করা হয়েছে, এমন খবর পেয়ে জার্মানির কেন্দ্রীয় ব্যাংক গতকাল বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক প্রকল্পে সহযোগিতা স্থগিত রাখার ঘোষণা দেয়।


জার্মানির ডয়েশ বুন্ডেসব্যাংক এক বিবৃতিতে জানায়, নোট জাল করা গুরুতর অপরাধ এতে কোন সন্দেহ নেই; কিন্তু এর শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার হুমকিকে তারা বাড়াবাড়ি বলে মনে করে।


ডয়েশ বুন্ডেস ব্যাংক বলছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে যখন এই প্রকল্প নিয়ে আলোচনা শুরু হয়, তখন এই বিষয়টি তাদের গোচরে ছিল না।


জার্মান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই ঘোষণার পরই বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও এ নিয়ে বেশ কিছু তড়িৎ ব্যবস্থা নিয়েছে।


বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণর আতিউর রহমান বিবিসি বাংলাকে জানান, ভুল বশত মৃত্যুদণ্ডের সুপারিশ একটি খসড়ায় চলে গিয়েছিল।


তিনি বলেন, “এই বিষয়টি এভাবে যাওয়ার আগে আরও পর্যালোচনার প্রয়োজন ছিল। জানার সাথে সাথেই আমি সিদ্ধান্ত দিয়েছি যে এটি ফিরিয়ে আনতে হবে, প্রত্যাহার করতে হবে।”


“আমরা জার্মান কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছি। তাদেরকে বলেছি এটা নিয়ে আমরা পুনরায় বিবেচনা করছি। মৃত্যুদণ্ড ছাড়া অন্য যে সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা, সেটাই করা হবে। যাতে জাল নোটের বিস্তার রোধ করা যায়।”

আতিউর রহমান আরও বলেন, “আমরা যেহেতু এই প্রতিষ্ঠানকে একটি মানবিক কেন্দ্রীয় ব্যাংক হিসেবে গড়ে তুলতে চাচ্ছি, আমাদের নীতির সঙ্গে এটি নিঃসন্দেহে অসামঞ্জস্যপূর্ণ। এ কারণেই আমরা এ ধরণের বিধান ছাড়াই পুনরায় আইন করতে পাঠাবো।”


“যারা জাল নোট ছড়ায়, তারা নিঃসন্দেহে বড় ধরণের অপরাধী। তাদের শাস্তিও হওয়া উচিৎ। কিন্তু তাই বলে এত বড় শাস্তি না দিলেও চলবে। আমরা সেরকম একটা ভারসাম্যপূর্ণ আইন করার জন্য পাঠাবো।”

উল্লেখ্য জার্মানির ডয়েশ বুন্ডেসব্যাংকের এই প্রকল্পটি শুরু হওয়ার কথা ছিল সামনের মাস থেকে। এর আওতায় বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ, কারিগরি সহায়তা এবং পরামর্শ সেবা দেয়ার পরিকল্পনা ছিল।

ডয়েশ বুন্ডেসব্যাংকের একজন মুখপাত্র বিবিসিকে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের এই সিদ্ধান্তের ব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে তারা বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে এই সহযোগিতার ব্যাপারে বুন্ডেসব্যাংকের নির্বাহী বোর্ড যথাসময়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻