BBC navigation

কেন বাড়ছে নৌবাহিনীর গুরুত্ব?

সর্বশেষ আপডেট বৃহষ্পতিবার, 24 জানুয়ারি, 2013 15:23 GMT 21:23 বাংলাদেশ সময়

বাংলাদেশের নৌবাহিনীতে যুক্ত হয়েছে দেশে নির্মিত প্রথম যুদ্ধজাহাজ বিএনএস পদ্মা

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সে দেশের নৌবাহিনীর জন্য তৈরি একটি নতুন যুদ্ধজাহাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বলেছেন, তারা বাংলাদেশের নৌবাহিনীকে আরো শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে চান এবং সে জন্য ভবিষ্যতে তারা একটি সাবমেরিনও কিনতে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, বঙ্গোপসাগর এলাকার অর্থনৈতিক ও কৌশলগত গুরুত্ব ক্রমশ বাড়তে থাকায় নৌবাহিনীর ক্ষমতা বাড়ানো প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।

বাংলাদেশের নৌবাহিনীকে আরো শক্তিশালী করে গড়ে তোলা এবং নতুন যুদ্ধজাহাজ বা সাবমেরিন যোগ করার এই যে উদ্যোগের কথা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলছেন, তা আসলে কতটা জরুরি ?

বাংলাদেশের নৌবাহিনীর প্রধান জহির উদ্দিন আহমেদ প্রতিরক্ষা সাময়িকী জেন্‌স ডিফেন্স উইকলিকে দেয়া একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ক্রমবর্ধমান প্রতিযোগিতা সামলাতে বাংলাদেশের নৌবাহিনীকে ত্রিমুখী শক্তি হিসাবে গড়ে তোলা দরকার, যাতে নৌবাহিনী আকাশ আর পানির নীচেও ভুমিকা রাখতে পারে।

নৌবাহিনীর গুরুত্ব কেন বাড়ছে?

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রব খান বলছেন, বঙ্গোপসাগর আর ভারত মহাসাগর আন্তর্জাতিক ও কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে।

"বঙ্গোপসাগর আর ভারত মহাসাগর আন্তর্জাতিক ও কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। এবাংলাদেশের সমুদ্রসীমা বেড়ে যাওয়ার ফলে নৌবাহিনীর গুরুত্বও ক্রমান্বয়ে বাড়ছে।"

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রব খান

এই অঞ্চল কেন্দ্র করে বিভিন্ন শক্তির প্রতিযোগিতার বাইরেও জলদস্যুতা আর বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা বেড়ে যাওয়ার ফলে নৌবাহিনীর গুরুত্বও ক্রমান্বয়ে বাড়ছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার সকালে খুলনায় নৌবাহিনীর একটি অনুষ্ঠানে বলেছেন, খুব তাড়াতাড়িই ঘাঁটি সুবিধাসহ নৌবাহিনীতে সাবমেরিন যুক্ত করা হবে।

তবে মি.খান আশংকা করছেন, সাবমেরিনের মতো অত্যাধুনিক সরঞ্জাম হয়তো প্রতিবেশীদের সাথে কিছুটা দুরত্বেরও তৈরি করতে পারে।

বাংলাদেশের সরকার এর আগেই ঘোষণা দিয়েছে, পর্যায়ক্রমিকভাবে ২০২০ সালের মধ্যে নৌবাহিনীকে একটি আধুনিক ও প্রযুক্তি-নির্ভর বাহিনী হিসাবে গড়ে তোলা হবে।

প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল মুনীরুজ্জামান বলছেন, সে জন্য বাংলাদেশের নৌবাহিনীকে ত্রিমাত্রিক দক্ষতায় গড়ে তুলতে হবে এবং তার জন্য সব ধরণের জাহাজের সংমিশ্রণ থাকতে হবে।

বিশেষ করে ছোট ও মাঝারি দ্রুতগতির পেট্ট্রোল বোট ও মিসাইল বোট বেশি করে বহরে যুক্ত করতে হবে, যেটি বাহিনীটি এর মধ্যেই করতে শুরু করেছে।

নৌবাহিনীর জন্যে একটি বিমানবহরও থাকা দরকার বলে তিনি মনে করেন।

তবে আবদুর রব খানের মতে, বাংলাদেশের মতো স্বল্পোন্নত দেশের ক্ষেত্রে সামরিক ব্যয়ের ক্ষেত্রে দেশের আয় ও সঙ্গতির বিষয়টিও বিবেচনায় রাখতে হবে, যাতে এ ধরণের ব্যয় দেশের অর্থনীতিতে সংকট তৈরি না করে।

মি. খান বলেন নিরাপত্তার জন্যে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা অবশ্যই জরুরি, কিন্তু আধুনিকায়ন করার মধ্যেও একটি সমন্বয় রাখতে হবে, যাতে তা বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি, আর্থিক সামর্থ্যের ভারসাম্য রক্ষা করে। না হলে তা দেশের জন্য উল্টো সংকটের কারণ হয়ে উঠতে পারে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বাংলাদেশের নিজেদের তৈরি যুদ্ধজাহাজ একটি শুভসূচণা। বাংলাদেশ যদি নিজেরাই বড় ধরণের যুদ্ধজাহাজ তৈরিতে পুরোপুরি সক্ষম হয়ে ওঠে তাহলে সেটি শুধু নৌবাহিনী নয় দেশের অর্থনীতির জন্যেও সহায়ক হয়ে উঠবে।

সম্পর্কিত বিষয়

BBC © 2014 বাইরের ইন্টারনেট সাইটের বিষয়বস্তুর জন্য বিবিসি দায়ী নয়

কাসকেডিং স্টাইল শিট (css) ব্যবহার করে এমন একটি ব্রাউজার দিয়ে এই পাতাটি সবচেয়ে ভাল দেখা যাবে৻ আপনার এখনকার ব্রাউজার দিয়ে এই পাতার বিষয়বস্তু আপনি ঠিকই দেখতে পাবেন, তবে সেটা উন্নত মানের হবে না৻ আপনার ব্রাউজারটি আগ্রেড করার কথা বিবেচনা করতে পারেন, কিংবা ব্রাউজারে css চালু কতে পারেন৻