গার্মেন্টসের জেনেভা বৈঠকে ক্ষতিপূরণের প্রতিশ্রুতি পাওয়া যায়নি

  • ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৩
ঢাকার মর্গে তাজরীন শ্রমিকদরে লাশ (ফাইল ফটো)
ঢাকার মর্গে তাজরীন শ্রমিকদের লাশ (ফাইল ফটো)

বাংলাদেশে রানা প্লাজা ধস ও তাজরীন ফ্যাশনসে অগ্নিকান্ডে নিহত ১২০০রও বেশি শ্রমিকের জন্য সুনির্দিষ্ট ক্ষতিপূরণের সিদ্ধান্ত ছাড়াই জেনেভায় আন্তর্জাতিক ক্রেতা কোম্পানিগুলোর সাথে ট্রেড ইউনিয়ন সংস্থা ইন্ডাস্ট্রিঅল-এর দু'দিনব্যাপী বৈঠক শেষ হয়েছে।

ঐ দুটি ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের পরিবারের জন্য ইন্ডাস্ট্রিঅল তিন মাসের বেতনের সমপরিমাণ অর্থ চেয়েছিল।

কিন্তু পোশাক কোম্পানীগুলো এতে রাজি হয় নি।

শ্রমিকদের কর্মপরিবেশের নিরাপত্তা নিয়ে আন্দোলন চলছে বিশ্বজুড়েই।

বৈঠকে উপস্থিত ইন্ডাস্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিলের একজন সম্বন্বয়ক জেড.এম. কামরুল আনাম বিবিসিকে জানান, ক্ষতিপূরণ নিয়ে আলোচনার জন্য বৈঠকে উপস্থিত নয়টি আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড বিশেষ কমিটি গঠন করে আলোচনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিনি বলেন, বৈঠকে মূলত তিনটি বিষয়ের ওপর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

প্রথমত, রানা প্লাজা এবং তাজরীন ফ্যাশন্সের সঙ্গে জড়িত যেসব আন্তর্জাতিক ক্রেতা, তারা এক সাথে ক্ষতিপূরণের অর্থ জোগাড় করবে।

দ্বিতীয়ত, এই কোম্পানিগুলো আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে বৈঠক করে তাদের পরবর্তী করণীয় চুড়ান্ত করবে।

তৃতীয়ত, এসব কাজের সমন্বয়ের জন্য একটি কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

মি. আনাম জানান, এসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে যেহেতু সময় লাগবে সেহেতু আগামী তিনমাস দুর্ঘটনার শিকার পোষাক শ্রমিকদের জন্য তিনি বেতন-ভাতার দাবি করেছিলেন।

ইন্ডাস্ট্রি-অল

কিন্তু বৈঠকে উপস্থিত আন্তর্জাতিক ক্রেতারা এতে রাজি হয়নি বলে তিনি বলেন।

রানা প্লাজা এবং তাজরিন ফ্যাশন্স কারখানায় দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন যে শত শত শ্রমিক, তাদের জন্য যথাযথ ক্ষতিপূরণ আদায়ের লক্ষ্যে বুধবার থেকে শুরু হয়েছিল এই বৈঠক।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা বা আইএলওর মধ্যস্থতায় এই বৈঠকে ১২টি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান যোগ দিতে রাজি হলেও ২০টিরও বেশি নামকরা ব্র্যান্ড এতে যোগ দেয়নি।

অন্যদিকে কারখানা মালিকরাও এই আলোচনার বাইরে ছিলেন।

এই খবর নিয়ে আরো তথ্য