সোমবার থেকে বিরোধী জোটের টানা ৬০ ঘন্টা হরতাল

fakhrul islam
Image caption হরতালের ঘোষণা দিচ্ছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব

বাংলাদেশে নির্বাচনকালীন সরকার প্রশ্নে অব্যাহত অচলাবস্থার মাঝে এক সপ্তাহের ব্যবধানে আবারো টানা ৬০-ঘণ্টা হরতালের ডাক দিয়েছে বিরোধী ১৮-দলীয় জোট।

সোমবার সকাল ছটা থেকে হরতাল শুরু হবে।

জোটের শরিক দলগুলোর মহাসচিবদের সাথে এক বৈঠকের পর বিএনপি'র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর নতুন দফা এই হরতালের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

মি আলমগীর বলেন সরকারের, তার ভাষায়, এক তরফা নির্বাচনের পরিকল্পনার প্রতিবাদে তাদের এই কর্মসূচি।

মি আলমগীর বিবিসিকে বলেন, "আমাদের নেত্রী বলেছিলেন ২৯ তারিখের পর যে কোন সময় আমরা আলোচনায় বসতে রাজী। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে কোন সাড়া নেই।"

তিনি বলেন, সরকার বরঞ্চ সর্বদলীয় একটি সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা নিচ্ছে, নির্বাচন কমিশন তৈরি হচ্ছে। "সুতরাং আন্দোলন জোরদার করা ছাড়া আমাদের উপায় নেই।"

ঠিক এক সপ্তাহ আগে বিরোধী নেত্রীকে প্রধানমন্ত্রীর টেলিফোনের পর রাজনৈতিক সঙ্কট সমাধানের যে সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল, নতুন দফা হরতালের কর্মসূচিতে তা দুরে সরে যাবে সন্দেহ নেই।

তবে মি আলমগীর বলেন, সরকার এখনও আলোচনার সময় দিতে পারেন।

"কিন্তু সমস্যা হচ্ছে মন্ত্রীদের কথার মধ্যে এমনকি প্রধানমন্ত্রীর কথার মধ্যেও কোন ধারাবাহিকতা নেই। সবাই বিভ্রান্ত।"

গত রোববার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত বিরোধী জোট টানা ৬০-ঘণ্টা হরতালের এক কর্মসূচি পালন করে। এসময় দেশজুড়ে বোমাবাজি এবং সহিংসতা ১২ জনের মত মানুষ প্রাণ হারায়।

জেএসসি পরীক্ষা নিয়ে উদ্বেগ

সোমবার থেকে বিরোধী জোটের নতুন দফা হরতালের ঘোষণা আসার পর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা নিয়ে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

সোমবার থেকেই দেশজুড়ে এই পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা যেখানে ২১ লাখ ছাত্র-ছাত্রীর অংশ নেওয়ার কথা।

এ ব্যাপারে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিবকে প্রশ্ন করা হলে, তিনি এড়িয়ে যান।

বাংলাদেশে নভেম্বরের শেষ থেকে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত স্কুলগুলোতে ফাইনাল পরীক্ষা হয়।

ঠিক এই সময়ে বিরোধী জোটের আন্দোলনের তীব্রতা বাড়ায় পরীক্ষা মৌসুম নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

মি আলমগীর বিবিসিকে বলেন, কঠোর কর্মসূচি দিতে সরকার বিরোধী দলকে বাধ্য করছে।