উপজেলা নির্বাচনে সহিংসতায় একজন নিহত

  • ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪
ছবির কপিরাইট focus bangla
Image caption চাপাইনবাবগঞ্জের একটি কেন্দ্রে ভোটারদের লাইন

বাংলাদেশে দ্বিতীয় পর্যায়ে উপজেলা নির্বাচনে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, কেন্দ্র দখল এবং হতাহতের ঘটনার মধ্য দিয়ে ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে।

নোয়াখালী জেলার একটি ভোট কেন্দ্রে সংঘর্ষে একজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এই নোয়াখালী জেলার একটি উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন জায়গায় ২৮টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। ১১টির মতো উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সমর্থিতদের বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ তুলে নির্বাচন বর্জন করেছে। তবে, নির্বাচন কমিশন বলেছে, বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন হয়েছে।

নোয়াখালীর স্থানীয় সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, সোনাইমুড়ি উপজেলায় নান্দিয়াপাড়া ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্রে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রর্থীর সমর্থকরা গুলি চালিয়ে এবং ককটেল ফাটিয়ে কেন্দ্রটি দখলের চেষ্টা করলে বিএনপি এবং জামায়াত সমর্থকদের সাথে সংঘর্ষ হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ পুলিশ রাবার বুলেট ছোঁড়ে।

এই সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে একজন নিহত এবং বেশ কয়েকজন আহত হয়। এই সোনাইমুড়ি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রহিমা খাতুন সংঘর্ষের বিষয়টি তুলে ধরেছেন। তবে জড়িতদের পরিচয় সম্পর্কে তিনি কিছু বলেননি।

এই নোয়াখালীতেই সদর উপজেলায় পুরো নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। জেলাটির রিটার্নিং অফিসার অনুপম বড়ুয়া বলেছেন, বিভিন্ন কেন্দ্রে নানান অভিযোগ আসায় নির্বাচন কমিশন এই ব্যবস্থা নিয়েছে।

নোয়াখালীর আশেপাশে ফেনী ,চাঁদপুরেও কয়েকটি কেন্দ্রে দখলের চেষ্টা এবং সংঘর্ষসহ বিভিন্ন সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে। দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে যশোর, কুষ্টিয়া ,বরিশাল এবং ভোলাসহ বিভিন্ন জায়গায় কেন্দ্র দখল ,ব্যালট পেপার ছিনতাইসহ বিভিন্ন অভিযোগ উঠেছে।

যশোর, বরিশাল এবং ভোলাসহ ১১টির মতো উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা ভোট গ্রহণের মাঝে নির্বাচন বর্জন করেছে।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, দ্বিতীয় পর্যায়ে এই নির্বাচনে সবক’টি উপজেলাতেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থকরা কেন্দ্রদখলসহ ভোট কারচুপির সবকিছুই করেছে। দলটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ প্রমাণ করেছে যে ,তাদের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্ব্চন সম্ভব নয়।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুল আলম হানিফ বলেছেন, যে উপজেলায় নির্বাচনে জিততে পারবে না, সেখানে বিএনপি নানান অভিযোগ তুলছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, দু’একটি ঘটনা ছাড়া সার্বিকভাবে নির্বাচন সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণ হয়েছে।