র‍্যাবের নিরপেক্ষ তদন্ত চেয়েছে এইচআরডব্লিউ

  • ১৪ মে ২০১৪
hrw ছবির কপিরাইট HRW

বাংলাদেশে বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনী র‍্যাবের বিরুদ্ধে বিচার বহির্ভূত হত্যা, নির্যাতন ও গুমের নানা অভিযোগের নিরপেক্ষ তদন্ত চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে খোলা চিঠি দিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ।

নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড নিয়ে অব্যাহত বিতর্ক-উদ্বেগের মাঝে এই চিঠি পাঠিয়েছে নিউইয়র্ক ভিত্তিক এই মানবাধিকার সংস্থা।

এ ব্যাপারে সংস্থাটির পক্ষ থেকে আজ (বুধবার) সংবাদ মাধ্যমগুলোতে একটি বিবৃতি পাঠানো হয়।

এশিয়া বিভাগের পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামসকে উদ্ধৃত করে ঐ বিবৃতিতে নারায়ণগঞ্জের হত্যাকাণ্ডের বিচারের জন্য সরকারের প্রতিশ্রুতির প্রশংসা করা হয়েছে।

"বছরের পর বছর র‍্যাবের প্রশ্নে তদন্ত করতে অস্বীকার করার পর নারায়ণগঞ্জ নিয়ে সরকার তার মনোভাব বদলেছে...এটা প্রশংসাযোগ্য...আশা করা যায় র‍্যাব এবং অন্যান্য নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর বিভিন্ন অপরাধকে এতদিন ধরে যেভাবে আড়াল করা হচ্ছিল, সেই নীতির পরিবর্তনের সূচনা হলো।"

বিবৃতিতে ব্র্যাড অ্যাডামস বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এখন উচিৎ শুধু নারায়ণগঞ্জ নয়, একটি নিরপেক্ষ প্রক্রিয়ায় সমস্ত অভিযোগের তদন্তের ব্যবস্থা করা।

মি অ্যাডামস আবারো র‍্যাব বিলুপ্তির আহ্বান জানিয়েছেন। "গণতন্ত্রে ডেথ স্কোয়াডের কোন স্থান নেই।"

এ প্রসঙ্গে হিউম্যান রাইটসের বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া যিনি নিজে এই বাহিনী প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তিনিই এখন এর বিলুপ্তি চাইছেন।

"নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধে বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের যে প্রতিশ্রুতি, তা রক্ষার একটা সুযোগ তৈরি হয়েছে।"

র‍্যাবের প্রতিক্রিয়া

র‍্যাবকে তদন্তের আহ্বান জানিয়ে হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচের এই খোলা চিঠির প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া চাইলে র‍্যাবের মহা পরিচালক মোখলেসুর রহমান বিবিসিকে বলেন, "মানবাধিকার সংস্থাগুলো বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা সম্পর্কে শুনে মন্তব্য করে। সামগ্রিক বিষয়টি তারা দেখে না"।

মি রহমান বলেন, সরকার নিরপেক্ষ তদন্ত করবে কী করবে না সেটা সরকারের সিদ্ধান্ত, কিন্তু র‍্যাব সদস্যদের বিরুদ্ধে ওঠা প্রতিটি অভিযোগেরই সঠিক তদন্ত হয়।

নিরপেক্ষ তদন্তের কথা তারা কেন বলছেন -- এই প্রশ্নে হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচের দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের পরিচালক মীনাক্ষী গাঙ্গুলি বিবিসিকে বলেন, র‍্যাবের মধ্যে সেনাবাহিনীর প্রাধান্য থাকায় অভ্যন্তরীণ এসব তদন্তে অপরাধ ঢেকে দেওয়া হয়।