ইউরেনিয়াম বিক্রির অভিযোগে আটক ১১

পুলিশের হাতে আটক কথিত ইউরেনিয়াম ছবির কপিরাইট focus bangla
Image caption পুলিশের হাতে আটক কথিত ইউরেনিয়াম

বাংলাদেশের গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা দাবি করছেন, ঢাকায় তেজস্ক্রিয় পদার্থ ইউরেনিয়াম বেচা-কেনার সাথে জড়িত এমন ১১ ব্যক্তিকে তারা গ্রেপ্তার করেছে।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, গ্রেফতার হওয়া লোকদের কাছ থেকে দুই পাউন্ড ওজনের কথিত ইউরেনিয়ামও জব্দ করা হয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার কৃষপদ রায় বিবিসিকে বলেছেন, ''আমরা যাদের আটক করেছি তারা সেটাকে ইউরেনিয়াম বলে দাবি করেছে। তাই আমরা এটাকে বলেছি কথিত ইউরেনিয়াম।''

কিন্তু পরীক্ষার ফলাফলে নিশ্চিত হওয়ার আগে এভাবে বিষয়টি জানানোর ফলে উদ্বেগ তৈরি হবে কি না জানতে চাইলে মি. রায় আবারো বলেন, তারা এটাকে 'কথিত ইউরেনিয়াম' বলেই উল্লেখ করেছেন।

পুলিশের দাবি ঢাকার বাইরে থেকে এইসব পদার্থ সংগ্রহ করা হয়। আটক ব্যক্তিরা একটি নেটওয়ার্কের সদস্য এবং প্রতারণার মাধ্যমে তারা এগুলো বিক্রী করতো।

কিন্তু এগুলো কিনতে আগ্রহী ছিল কিংবা আগে কিনেছে এমন কারও সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেনি পুলিশ কর্মকর্তারা।

এসব অভিযোগের ব্যাপারে গ্রেফতারকৃতদের কোন বক্তব্য এখনো জানা যায়নি।

এরা কোথা থেকে এই বস্তু সংগ্রহ করেছে সেগুলোর বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে পুলিশ কিছু জানাতে পারেনি। ফলে বিষয়টি নিয়ে এক ধরনের অস্পষ্টতা তৈরি হয়েছে।

ইউরেনিয়াম মূলত পারমানবিক বিদ্যুত তৈরির জ্বালানি এবং পরমাণু বোমা তৈরির কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

আনবিক শক্তি কমিশনের ফিজিক্যাল সায়েন্স ভিাগের পরিচালক মামুনুর রশিদ বলছিলেন, ''ইউরেনিয়াম একটি উচ্চমাত্রার তেজস্ক্রীয় পদার্থ। এভাবে সাধারণ মানুষের পক্ষে এটি ব্যবহার করা সম্ভব নয়।''

''সাধারণভাবে খোলাবাজারে বিক্রীর মত কোনও পদার্থ এটি নয়,'' বলেও তিনি জানান।