বাংলাদেশের মিরপুরে জঙ্গী আস্তানায় অভিযান, নিহত ১

বাংলাদেশ, সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গী
ছবির ক্যাপশান,

কল্যাণপুর অভিযানের সময় গোলাগুলির পর পড়ে থাকা গুলির খোসা

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার মিরপুরে এক কথিত জঙ্গী আস্তানায় পুলিশের অভিযানে একজন নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

নিহত মেজর মুরাদের মৃতদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আজ ময়না তদন্ত করা হতে পারে।

শুক্রবার রাতের ওই অভিযানে একজন জঙ্গি নিহত আর কয়েকজন পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হয়। আহত পুলিশ সদস্যদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে রাতে ঢাকার মিরপুরের রূপনগরের একটি বাড়িতে পুলিশের একটি দল হানা দেয়। কিন্তু সেখানে পুলিশের উপর হামলা করা হলে তারা গুলি করেন।

বাংলাদেশ পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বিবিসিকে জানিয়েছেন, নিহত ব্যক্তি জেএমবির সামরিক শাখার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একজন নেতা।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আজ পুলিশের একটি দল রূপনগরের একটি বাড়িতে হানা দেয়।

সেখানে "মেজর মুরাদ" নামে কথিত এই জেএমবি নেতা লুকিয়ে ছিলেন বলে তাদের কাছে খবর ছিল।

পুলিশ সেখানে অভিযানে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভেতর থেকে এক ব্যক্তি পিস্তল এবং ছুরি হাতে বেরিয়ে আসে।

তার ছুরির আঘাতে এবং পিস্তলের গুলিতে তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়।

পুলিশের পাল্টা গুলিতে ঐ ব্যক্তি নিহত হয়।

মনিরুল ইসলাম জানান, নিহত কথিত মেজর মুরাদ আসলে সেনাবাহিনীর একজন সাবেক সৈনিক। গুলশান এবং শোলাকিয়ায় জঙ্গী হামলায় অংশগ্রহণকারীদেরকে এই ব্যক্তিই প্রশিক্ষণ দিয়েছে বলে পুলিশ সন্দেহ করে।

তিনি আরও জানান, গাইবান্ধার চরে এই প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল।

পুলিশ বলছে, নিহত মুরাদ নব্য জেএমবির সেকেন্ড ইন কমাণ্ড হিসাবে কাজ করতেন। তিনি নারায়ণগঞ্জে সম্প্রতি নিহত জেএমবি নেতা তামিম চৌধুরীর স্থলাভিষিক্ত হতে যাচ্ছিলেন।

তবে মুরাদ নাম ছাড়াও সে জাহাঙ্গীর, ওমর বলেও নিজেকে পরিচয় দিতেন বলে পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন।