'পুরুষ অভিভাবক প্রথা' বাতিলের দাবিতে অনলাইনে প্রচারাভিযান শুরু করেছেন সৌদি নারীরা

Image caption আমিই আমার অভিভাবক, দাবি করছেন এই সৌদি নারীরা

সৌদি আরবের 'নারীদের বিদেশে যেতে হলে একজন পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি নিতে হবে' - এই নিয়ম বাতিলের জন্য আবেদন করেছেন দেশটির ১৪ হাজারেরও বেশি মহিলা।

সৌদি আরবের প্রথা অনুযায়ী মেয়েদের কাজ বা লেখাপড়া করতে হলে, অথবা বিদেশে যেতে হলেও একজন পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি দরকার হয়। অনেক সময় ফ্ল্যাট ভাড়া নিতে, হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে বা আইনী উদ্যোগ নিতে গেলেও পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি লাগে।

এই প্রথার অবসানের জন্য সৌদি নারীদের আবেদনের খবর এবং টুইটারে এ সংক্রান্ত হ্যাশট্যাগ ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি করেছে।

Image caption আজিজা আল-ইউসেফ

অনেক নারী 'আমিই আমার অভিভাবক' লেখা ব্রেসলেটের ছবি শেয়ার করছেন। কয়েক শ' মহিলা সৌদি বাদশাহর কার্যালয়ে টেলিগ্রাম পাঠিয়েছেন।

আবেদনটি সৌদি রাজপ্রাসাদে নিয়ে গিয়েছিলেন মহিলারা কিন্তু সেখানে তাদের 'দাবিটি ইমেল করে পাঠিয়ে দিতে' বলা হয়।

নারী অধিকারকর্মী আজিজা আল-ইউসেফ বলছেন, তিনি এ উদ্যোগের জন্য গর্বিত বোধ করছেন।

Image caption 'আমিই আমার অভিভাবক' লেখা ব্রেসলেট

মিজ ইউসেফ এর আগে সৌদি মহিলাদের গাড়ি চালানোর অধিকার দেবার আন্দোলনেও যোগ দিয়েছিলেন - এ নিয়ে ২০১৩ সালে পুলিশ তাকে আটকিয়েছিল।

তাদের দাবিগুলোর একটি হচ্ছে মেয়েদের বয়েস ১৮ বা ২১ পার হলে তাকে যেন একজন প্রাপ্তবয়স্ক বলে বিবেচনা করা হয়।

এ ব্যাপারে সৌদি সরকারের কোন প্রতিক্রিয়া এখনো জানা যায় নি।