ছাড়া পেয়েছেন দাউদ মার্চেন্ট, গন্তব্য অজানা

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার
ছবির ক্যাপশান,

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার

সাত বছরেরও বেশী সময় বাংলাদেশের কারাগারে আটক থাকার পর ভারতীয় নাগরিক আবদুর রউফ ওরফে দাউদ মার্চেন্টকে কেরানীগঞ্জে অবস্থিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়েছে।

কারা বিভাগের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক কর্নেল ইকবাল হাসান জানিয়েছেন, রোববার বিকেলে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

তবে দাউদ মার্চেন্ট কোথায় গেছেন কিংবা কারো হেফাজতে তাকে নেয়া হয়েছে কি-না, সে সম্পর্কে তিনি কিছু বলতে পারেননি।

দাউদ মার্চেন্টকে বাংলাদেশে আটক করা হয় ২০০৯ সালের মে মাসে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের অভিযোগে।

গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এরপর ২০১৪ সালে তিনি জামিনে মুক্তি পেলে তাকে ফৌজদারী কার্যবিধির ৫৪ ধারায় গ্রেফতার করা হয়। গত ৩রা নভেম্বর ঢাকার একটি আদালত এই ধারার অভিযোগ থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল আজ সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন যে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে তার কারাবাসের মেয়াদ আগেই শেষ হয়েছে। তাকে পুশব্যাক করা হয়েছে কি-না, এমন এক প্রশ্নে তিনি বলেন, তাকে ছেড়ে হয়েছে।

এর আগে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছিলেন যে দাউদ মার্চেন্টকে ভারতে ফেরত পাঠানো হবে এবং এ ব্যাপারে একটি প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে।

কারাগার থেকে তার মুক্তির সময় তাকে কোন কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে কি-না, তা জানতে চাইলে কর্নেল ইকবাল হাসান বলেন, যেভাবে অন্যদের কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়, আবদুর রউফ নামের ঐ ব্যক্তিকে ঠিক একই ভাবে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

ছবির ক্যাপশান,

অনুপ চেটিয়া ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আলফার নেতা - ফাইল ছবি

বাংলাদেশে দীর্ঘ সময় ধরে আটক আসামের বিচ্ছিন্নতাবদী নেতা অনুপ চেটিয়াকে এর আগে গত বছরের নভেম্বর মাসে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেয়া হয়েছিল বলে সেদেশের গণমাধ্যম জানিয়েছিল।

দাউদ মার্চেন্ট ভারতের মুম্বাইয়ের সিনেমা জগতের র্শীষস্থানীয় সঙ্গীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান টি-সিরিজের মালিক গুলশান কুমার হত্যাকাণ্ডে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী।

তার রউফ রাজা নামেও পরিচিতি রয়েছে।

তিনি দুই শীর্ষ অপরাধী হিসেবে চিহ্নিত দাউদ ইব্রাহীম ও আবু সালেমের সহযোগী বলে ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে।