কুর্দি বিদ্রোহীদের প্রতিরোধে মুখে তুরস্কের সেনারা

সিরিয়া, তুরস্ক ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption আফরিন থেকে কুর্দি বিদ্রোহীদের উৎখাতের লক্ষ্যে সৈন্য পাঠানো হয় বলে জানায় তুরস্ক।

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে তুরস্কের সামরিক বাহিনীর চালানো অভিযানে কুর্দি কুর্দি বাহিনী পাল্টা আক্রমণ চালালে শনিবার একদিনেই সাতজন সেনা নিহত হয়েছে।

আফরিনে ওয়াইপিজি গেরিলারা তুরস্কের ট্যাঙ্ক বহরে হামলা চালালে সেখানে পাঁচ তুর্কি সেনা নিহত হয়। অপর দুটি হামলায় আরও দুই তুর্কি সৈন্য নিহত হয়।

অভিযান শুরুর পর এ দিনটিকেই তুরস্কের জন্য সবচেয়ে প্রাণঘাতী দিন হিসেবে বর্ণনা করা হচ্ছে। এ নিয়ে তুরস্কের অভিযানটিতে সব মিলিয়ে ১৪ তুর্কি সেনা নিহত হল।

এ ঘটনার পাল্টা প্রতিশোধ নেওয়ার হুমকি দিয়ে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম বলেছেন, 'দ্বিগুণের বেশি মূল্য দিতে হবে'।

আরও পড়ুন:

'আমি তো সুস্থ আমি কেন ডাক্তারের কাছে যাবো?'

না ঘুমিয়ে যেভাবে বিশ্বরেকর্ড করেন মার্কিন স্কুল বালক

পুরোনো সাময়িকীতে আফগানিস্তানের হারানো অতীত

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption সিরিয়ার বিদ্রোহী গ্রুপ ফ্রি সিরিয়ান আর্মির সদস্যরাও তুরস্কের সামরিক বাহিনীর সাথে লড়াই করছে।

কুর্দি ওয়াইপিজি গেরিলাদের আফরিন থেকে উৎখাত করতে গত ২০শে জানুয়ারি 'অপারেশন অলিভ ব্রাঞ্চ' শুরু করে তুর্কি সেনারা। তুরস্ক সরকারের বক্তব্য তুরস্ক সীমান্তকে সন্ত্রাসমুক্ত করাই এ অভিযানের লক্ষ্য।

তুরস্কের সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়, আফরিন শহরের উত্তর-পূর্ব এলাকায় শেখ হারুয-এ কুর্দি মার্কিন সমর্থন-পুষ্ট ওয়াইপিজি বিদ্রোহীরা সেনা ট্যাংকের ওপর হামলা চালায়।

কুর্দি বিদ্রোহীরা অবশ্য বলছে, তুরস্কের এই অভিযানে হাজার হাজার মানুষ ঘরহারা হয়েছে।

শনিবার সিরিয়ান কুর্দি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান, অন্তত ১৫০ জন বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছে এবং ৩০০ মানুষ আহত হয়েছে অভিযান শুরুর পর থেকে।

তবে স্বাধীনভাবে এই তথ্য যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

সম্পর্কিত বিষয়