বাংলাদেশের কক্সবাজারের শরণার্থী এলাকায় আটক ১১ বিদেশিকে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

কক্সবাজারে এমএসএফের একটি চিকিৎসা কেন্দ্র। ছবির কপিরাইট AFP
Image caption কক্সবাজারে এমএসএফের একটি চিকিৎসা কেন্দ্র।

বাংলাদেশের কক্সবাজারে পাসপোর্ট ছাড়া চলাফেরার সময় আটক ১১ জন বিদেশি ত্রাণ কর্মীকে পুলিশ মুক্তি দিয়েছে।

আন্তর্জাতিক মেডিকেল চ্যারিটি মেদ্যঁ স্যঁ ফ্রতিয়ে বা এমএসএফ বলছে, আটক হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে তাদের ১০ জন কর্মী ছিল।

কক্সবাজারে পুলিশের এসপি ড. এ.একে.এম. ইকবাল হোসেন বিবিসিকে জানান, শুক্রবার দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন এদের আটক করে।

তবে তাদের গ্রেফতার করা হয়নি বলে তিনি জানান।

উখিয়ার পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, এরা গাড়িতে চড়ে স্থানীয় একটি শরণার্থী শিবিরে যাচ্ছিল।

কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কে পুলিশের নিরাপত্তা চৌকিতে এদের বহনকারী গাড়িটিকে থামানো হয়।

র‍্যাব কর্মকর্তারা তাদের তাদের পাসপোর্ট এবং বাংলাদেশে কাজ করার অনুমতিপত্র দেখাতে বললে তারা সেটি দেখাতে পারেনি।

পুলিশ সুপার বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটক ব্যক্তিরা জানিয়েছেন যে তারা তাদের পাসপোর্ট ঢাকায় রেখে এসেছেন।

আরও দেখুন:

জুবায়ের-নার্গিস-নিয়ামত: ভেজা চোখের রোহিঙ্গা জীবন

দেশটি ছোট্ট, কিন্তু তুলা আমদানিতে এক নম্বর বাংলাদেশ

ছবির কপিরাইট TAUSEEF MUSTAFA
Image caption রোহিঙ্গা শিবিরে স্বাস্থ্য সেবার সঙ্কট রয়েছে।

আটকের পর এই বিদেশিদের উখিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়।

পুলিশ এখন বলছে, জিজ্ঞাসাবাদের পর মুচলেকা নিয়ে এদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, এমএসএফ-এর কর্মীরা স্থানীয় হাসপাতালে আগে থেকেই কাজে নিযুক্ত ছিলেন।

তবে কক্সবাজারে সম্প্রতিকালে বিদেশিদের আটক করার ঘটনা এটাই প্রথম নয়।

বাংলাদেশে শরণার্থী সঙ্কটের গোঁড়ার দিকে গত নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসেও কয়েকজন বিদেশি নাগরিককে আটক করা হয়েছিল। তাদের কাছেও ওয়ার্ক পারমিট ছিল না বলে কর্মকর্তারা বলছেন।

সম্পর্কিত বিষয়