জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে পোশাক কারখাানার উপকরণ ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

  • সায়েদুল ইসলাম
  • বিবিসি বাংলা, ঢাকা
ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে পোশাক কারখানার উপকরণ ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে চট্টগ্রামের র‍্যাব-৭ এর সদস্যরা।
ছবির ক্যাপশান,

আ ক ম মঞ্জুর এলাহির বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের শহীদ হামজা ব্রিগেডকে পাঁচ লাখ টাকা অর্থায়নের অভিযোগ রয়েছে বলে র‍্যাব জানিয়েছে।

বাংলাদেশে জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে ঢাকার উত্তরা থেকে তৈরি পোশাক কারখানার উপকরণ ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‍্যাব)।

আ ক ম মঞ্জুর এলাহির বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের শহীদ হামজা ব্রিগেডকে পাঁচ লাখ টাকা অর্থায়নের অভিযোগ রয়েছে বলে র‍্যাব জানিয়েছে।

জঙ্গিদের অর্থায়নের অভিযোগের এই মামলায় এ নিয়ে চারজন আইনজীবীসহ মোট পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হলো।

আ ক ম মঞ্জুর এলাহি তৈরি পোশাক কারখানায় সরঞ্জাম সরবরাহের ব্যবসা করেন। রাতে তাকে ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে চট্টগ্রামের র‍্যাব-৭ এর সদস্যরা।

র‍্যাব বলছে, তিনি ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে হামজা বিগ্রেডকে দুই দফায় মোট পাঁচ লাখ টাকা দিয়েছেন বলে তারা প্রমাণ পেয়েছেন এবং এই অভিযোগেই বুধবার তার উত্তরার বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‍্যাব-৭ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মেফতাহউদ্দিন আহমেদ বলছেন, ২০১৫ সালে শহীদ হামজা বিগ্রেডের অর্থায়নের বিষয়টি তদন্ত করে গিয়ে তারা জানতে পারেন, বিভিন্ন ব্যক্তি সংগঠনটিকে মোট ১ কোটি ৩৮ লাখ ৭০ হাজার টাকা দিয়েছে। তখন ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাসহ তিনজন আইনজীবী, পরে আরো একজন আইনজীবীকে গ্রেপ্তার করা হয়। সেই তদন্তের সূত্র ধরেই মঞ্জুর এলাহিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তিনি বলছেন, ইসলামী ব্যাংকের একটি হিসাবে মাধ্যমে তিনি হামজা বিগ্রেডের নেতা মনিরুজ্জামান মাসুদের একাউন্টে ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা দিয়েছেন। এছাড়া নগদ দিয়েছেন ৮০ হাজার টাকা।

চট্টগ্রামভিত্তিক শহীদ হামজা বিগ্রেড নামের জঙ্গি সংগঠনটির অস্তিত্বের কথা জানা যায় গত বছরের ফেব্রুয়ারি।

সে সময় ওই সংগঠনের কয়েকটি আস্তানার সন্ধান পায় র‍্যাব এবং বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পাশাপাশি বাংলাদেশ ব্যাংকের গোয়েন্দা দলের সহযোগিতায় জঙ্গি সংগঠনগুলোর আর্থিক লেনদেনের বিষয়য়ে তদন্ত শুরু করে র‍্যাব।

কিছুদিন আগে মামলাটির অভিযোগপত্র দিয়েছেন র‍্যাবের তদন্ত কর্মকর্তা। ওই মামলার বেশিরভাগ অভিযুক্তই জামিনে রয়েছেন। পলাতক রয়েছেন কয়েকজন।

বাংলাদেশে সম্প্রতি কয়েকটি জঙ্গি হামলার ঘটনার পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এসব জঙ্গি সংগঠন দেশ ও বিদেশ থেকে আর্থিক সহায়তা পাচ্ছে।

অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাত বলছেন, ধর্মভিত্তিক রাজনীতির সুযোগে জঙ্গিরা তাদের নিজেদের অর্থায়নের বিষয়টি গড়ে তুলেছে।

মি: বারকাত বলছেন, ধর্মভিত্তিক রাজনীতির সুযোগে জামায়াত ইসলামী এবং এরকম অন্যান্য দল নানা আর্থিক ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। গত ৩৫/৪০ বছরে তারা নানা স্তরে তাদের প্রতিষ্ঠান তৈরি করেছে। এখন আদর্শগত কারণেই তারা জঙ্গি কর্মকাণ্ডে অর্থায়ন করে।

তিনি বলছেন, তবে শুধু অভ্যন্তরীণভাবেই নয়, নিজেদের স্বার্থের জন্য অনেক দেশও তাদের অর্থায়ন করছে। সিরিয়া, ইরাক, আফগানিস্তানে যেভাবে হয়েছে, এখানেও এসব দেশ নিজেদের স্বার্থে ধর্মের নামে এদের ব্যবহার করছে।

মঞ্জুর এলাহিকে বুধবার আদালতে পাঠানোর পর, আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে।