কেনিয়ার প্রশ্ন-ফাঁস ঠেকাবে সুরক্ষিত কন্টেইনার

কেনিয়া

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

কেনিয়ায় পরীক্ষায় ভালো করার তীব্র প্রতিযোগিতা দুর্নীতি উস্কে দিচ্ছে

কেনিয়ায় পরীক্ষায় প্রশ্ন-ফাঁস এবং নকল প্রবণতা এত বেশি বেড়ে গেছে যে এখন জাতীয় পরীক্ষাগুলোর প্রশ্নপত্র শিপিং কন্টেইনারে তালাবন্ধ করে রেখে ২৪ ঘন্টাব্যাপী সশস্ত্র পুলিশ পাহারার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

বিবিসির জোসেফ ওয়ারুঙ্গু জানাচ্ছেন, কেনিয়ায় সমাজে সাফল্য পাবার তীব্র প্রতিযোগিতার পরিবেশে ছাত্রদের ওপর পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করার জন্য চাপ তৈরি হয় প্রাথমিক স্কুল থেকেই। পরবর্তী স্তরগুলোতে তা আরো বাড়তে থাকে।

এ কারণে পরীক্ষায় ভালো করার সহজ পন্থা হিসেবে দেশটিতে গড়ে উঠেছে এক ধরণের চক্র - যারা শিক্ষা কাউন্সিল কর্মকর্তা, পুলিশ এবং শিক্ষকদের একটি অংশকে কাজে লাগিয়ে পরীক্ষার প্রশ্নপত্র আগেভাগেই সংগ্রহ করে এবং তার পর তা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছে বিক্রি করে।

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

কেনিয়ায় পরীক্ষায় দুর্নীতি ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে

গত বছর এ দুর্নীতি নজিরবিহীন মাত্রায় পৌঁছে যায়। ধরা পড়ার পর ৫ হাজার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুল ছাত্রের পরীক্ষার ফল বাতিল করা হয়।

জাতীয় পরীক্ষা বোর্ড ভেঙে দেয়া হয়, কয়েকজন উর্ধতন কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়। পুলিশ কর্মকর্তা সহ প্রায় ২০০ লোককে গ্রেফতার করা হয়।

কিন্তু একে কেন্দ্র করে কেনিয়া সমাজে দেখা দিয়েছে আস্থার সংকট। সরকার, শিক্ষক, শিক্ষার্থী কেউ কাউকে বিশ্বাস করতে পারছে না। কোন কোন ছাত্র মনে করে, নকল ছাড়া সে পরীক্ষায় পাস করতেই পারবে না।

তাই এখন পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হও্য়া ঠেকাতে সেগুলো স্টিলের কনটেইনারে সুরক্ষিত রাখতে হচ্ছে।

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

শিপিং কন্টেইনারকে বাড়ি বানিয়েছেন অনেকে, এবার তা লাগবে প্রশ্নপত্র সুরক্ষিত করতে

আগামি মাসেই কেনিয়ায় জাতীয় পর্যায়ে পরীক্ষা । এর আগে কর্তৃপক্ষ বলে দিয়েছে, কোন স্কুলে পরীক্ষায় প্রতারণা হলে তার জন্য প্রধান শিক্ষক ব্যক্তিগতভাবে দায়ী হবেন।

কারণ তাকেই কনটেইনার থেকে প্রশ্নপত্র নিয়ে যেতে হবে এবং পরীক্ষার পর উত্তরপত্রসহ তা কন্টেইনারেই ফেরত দিতে হবে।

সরকার আশা করছে এ ব্যবস্থায় কাজ হবে।