রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে ইউনেস্কো রিপোর্টে কী আছে

সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে পড়তে পারে বলে আশংকা করছে ইউনেস্কো
ছবির ক্যাপশান,

সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে পড়তে পারে বলে আশংকা করছে ইউনেস্কো

রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে ইউনেস্কো যে রিপোর্ট দিয়েছে, তাতে সুন্দরবনের কী ধরণের ক্ষতির আশংকার কথা রয়েছে?

তিরিশ পৃষ্ঠার বেশি দীর্ঘ এই রিপোর্টটি ইউনেস্কো প্রকাশ করেছে মঙ্গলবার। এতে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কারণে সুন্দরবনের মূলত চার ধরণের ক্ষতির আশংকার কথা তুলে ধরা হয়।

  • রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে কয়লা পুড়িয়ে। এই কয়লা পোড়ানোর পর সেখান থেকে থেকে নির্গত কয়লার ছাইকে সুন্দরবনের পরিবেশের জন্য এক নম্বর হুমকি হিসেবে চিহ্ণিত করা হয়েছে ইউনেস্কোর এই প্রকল্পে।
  • বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে নির্গত বর্জ্য এবং পানিকে দ্বিতীয় হুমকি গণ্য করছে ইউনেস্কো।
  • এই প্রকল্পকে ঘিরে সুন্দরবন এলাকায় যেভাবে জাহাজ চলাচল বাড়বে এবং ড্রেজিং করার দরকার হবে, সেটিও সুন্দরবনের পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।
  • আর সবশেষে বিদ্যুৎ কেন্দ্রকে ঘিরে ঐ অঞ্চলের সার্বিাক শিল্পায়ন এবং উন্নয়ন কর্মাকান্ডও সুন্দরবনের পরিবেশকে হুমকির মুখে ফেলবে বলে মনে করে ইউনেস্কো।

ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সেন্টার এবং ইন্টারন্যাশনাল কনজার্ভেশন ইউনিয়ন (আইইউসিএন) এর তিনজন বিশেষজ্ঞ সরেজমিনে ঘুরে দেখে এবং বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে কথা বলে এই রিপোর্টটি তৈরি করেছেন।

এতে বলা হয়েছে, যেখানে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হচ্ছে, সেটি সুন্দরবনের সীমানা থেকে প্রায় ৬৫ কিলোমিটার দূরে।

রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের এনভায়রনমেন্টাল ইম্প্যাক্ট এসেসমেন্টের (ইআইএ) জন্য আইউসিএন যে নির্দেশনা দিয়েছিল, তা ঠিকমত মেনে চলা হয়নি বলে উল্লেখ করা হয় এই রিপোর্টে।

এছাড়া সুন্দরবনের পরিবেশের জন্য ক্ষতি এড়াতে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রে যে ধরণের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার এবং যেরকম আন্তর্জাতিক মানদন্ড মেনে চলা উচিৎ, সেটাও করা হচ্ছে না বলে মন্তব্য করা হয় রিপোর্টে।

ছবির ক্যাপশান,

রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে

বিদ্যুৎ কেন্দ্র সরিয়ে নিন:

ইউনেস্কো সুন্দরবনের কাছে এই বিশাল কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজ বন্ধ রাখতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছে।

ইউনেস্কো হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, এরকম একটি প্রকল্প বাংলাদেশে সুন্দরবনের পরিবেশ এবং জীববৈচিত্র্যের জন্য গুরুতর হুমকি তৈরি করবে।

সুন্দরবনের কাছে রামপালে প্রস্তাবিত এই বিদ্যুৎ প্রকল্পটি বাংলাদেশ এবং ভারতের যৌথ উদ্যোগে করা হচ্ছে। এটির উৎপাদন ক্ষমতা হবে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট। প্রতি বছর প্রায় পঞ্চাশ লাখ টন কয়লা এটিতে ব্যবহার করা হবে।

বাংলাদেশের পরিবেশবাদীরা এবং বিভিন্ন নাগরিক সংগঠন এর বিরুদ্ধে গত কিছুদিন ধরেই আন্দোলন করছে।

ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সেন্টার এবং ইন্টারন্যাশনাল কনজার্ভেশন ইউনিয়ন (আই ইউ সি এন) বলেছে, এমন সম্ভাবনা খুব প্রবল যে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দূষণ সুন্দরবনের অপূরণীয় ক্ষতি করবে।

ইউনেস্কো বলেছে, এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি এমন কোন জায়গায় সরিয়ে নেয়া উচিৎ, যাতে সুন্দরবনের কোন ক্ষতি না হয়।

উল্লেখ্য ১৯৯৭ সালে ইউনেস্কো সুন্দরবনকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট ঘোষণা করে।

২০১৮ সালে কয়লা ভিত্তিক এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি চালু হওয়ার কথা।

ইউনেস্কোর এই আহ্বানের জবাবে বাংলাদেশ সরকারের দিক থেকে এখনো কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

তবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর আগে এই প্রকল্প বাতিলের দাবি নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, এই বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিরুদ্ধে আন্দোলন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।