আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে নেতৃত্ব নির্বাচনে সম্মেলনের আদৌ কি কোন গুরুত্ব রয়েছে ?

আওয়ামী লীগ ও বিএনপি
ছবির ক্যাপশান,

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া

বাংলাদেশের সবচেয়ে পুরনো রাজনৈতিক দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলন শুরু হলো আজ।

দুদিনের এ সম্মেলনে যোগ দিতে সারাদেশ থেকে নেতা-কর্মী-সমর্থকরা এসে ইতোমধ্যেই জড়ো হয়েছেন ঢাকায়।

এ সম্মেলনের মাধ্যমে পরবর্তী তিন বছরের জন্য দলটিতে নেতৃত্ব নির্বাচিত করা হবে।

সাধারণত দলের কাউন্সিলরদের ভোটে এ নেতৃত্ব নির্বাচিত হবার কথা।

আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপির সম্মেলনও প্রায় একই প্রক্রিয়ায় সম্মেলনের আয়োজন করে থাকে।

চলতি বছরেই বিএনপির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে যেখানে কমিটি গঠনের দায়িত্ব দেয়া হয়েছিলো চেয়ারপার্সনের হাতেই।

ছবির ক্যাপশান,

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

অর্থাৎ দুটি দলেই দেখা যায় ক্ষমতায় থাকলে সম্মেলনের বনার্ঢ্য আয়োজন করে এবং শেষ পর্যন্ত সম্মেলনে কাউন্সিলরা নিজ নিজ দলীয় প্রধানের হাতেই দলের নেতৃত্ব নির্বাচনের ভার অর্পণ করে থাকেন।

তাহলে বাংলাদেশে রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে দলগুলোর নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে এ ধরনের সম্মেলনের গুরুত্ব আসলে কতটা?

এমন প্রশ্নের জবাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক শান্তনু মজুমদার বলেন আওয়ামী লীগের সম্মেলনের কয়েক ঘণ্টা আগেও সর্বোচ্চ পদগুলোতে কি হবে তা নিয়ে কোন আবহ তৈরি হয়নি।

তিনি বলেন সবাই কিন্তু মোটামুটি বুঝতে পারে যে কি হতে যাচ্ছে। কোন ব্যতিক্রম না হলে আগের কাউন্সিলের পুনরাবৃত্তিই হবে।

তার মতে রাজনৈতিক দলগুলো সংহতি রক্ষা আর ভোটের বিষয় বিবেচনা করেই পদক্ষেপ নেয়।

ছবির ক্যাপশান,

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম

তাহলে এ সম্মেলনের গুরুত্ব কতটা ? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন রাজনৈতিক সংস্কৃতি পরিবর্তনের ক্ষেত্রে গুরুত্ব নেই কিন্তু দলের জন্য এর গুরুত্ব রয়েছে, যদিও কোন ফলপ্রসূ আলোচনা হবেনা। কারণ সবাই জানে দলগুলোর কাউন্সিলে কি হয়।

সারাদেশ থেকে আসা নেতাকর্মী কাউন্সিলরদের মতামত কতটা প্রতিফলিত হয় সম্মেলনে ? জবাবে মিস্টার মজুমদার বলেন বাস্তবে সেটি হয়না। তবে প্রধানমন্ত্রী চাইলে কিছু ক্ষেত্রে বড় ধরনের পরিবর্তন আনা সম্ভব।

তাহলে এ ধরনের সম্মেলনেরই বা গুরুত্ব কোথায় ? জবাবে তিনি বলেন নেতাকর্মীরা এ স্বপ্ন দেখেননা যে এ ধরনের প্রক্রিয়ায় রাজনীতিকে ওপরে উঠবেন তারা। তবে নেতাকর্মীদের একটা আশা আকাঙ্ক্ষা উদ্দীপনা থাকে।