সৌদি মেয়েদের গাড়ি চালাতে দিতে প্রিন্স আলওয়ালিদের আহ্বান

প্রিন্স আল ওয়ালিদ বিন তালাল
ছবির ক্যাপশান,

প্রিন্স আল ওয়ালিদ বিন তালাল

সৌদি আরবের একজন প্রভাবশালী রাজপুত্র কোটিপতি বিনিয়োগকারী প্রিন্স আলওয়ালিদ বিন তালাল তাঁর দেশে মেয়েদের গাড়ি চালানোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, সৌদি আরবের মেয়েদের অধিকার এবং অর্থনৈতিক প্রয়োজনের স্বার্থেই এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া উচিৎ।

বিশ্বে সৌদি আরব হচ্ছে একমাত্র দেশ যেখানে মেয়েদের গাড়ি চালানো নিষেধ। এই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় সৌদি আরবে অনেক নারী অধিকার কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রিন্স আলওয়ালিদ বলেছেন, সৌদি আরবে এখন মেয়েদের নিজেদের গাড়ি চালানোর সুযোগ দেয়ার সময় এসেছে।

প্রিন্স আলওয়ালিদকে সৌদি আরবের রাজপরিবারের মধ্যে একজন স্পষ্টভাষী সমালোচক বলে গণ্য করা হয়। এর আগেও তিনি সৌদি আরবে মেয়েদের অধিকারের পক্ষে কথা বলেছেন।

তবে সৌদি আরবে তাঁর কোন রাজনৈতিক অবস্থান নেই। তিনি কিংস হোল্ডিং কোম্পানির চেয়ারম্যান। বিশাল মার্কিন ব্যাংক সিটিগ্রুপ এবং ইউরো -ডিজনি থিম পার্ক, টুয়েন্টি ফার্ষ্ট সেঞ্চুরি ফক্স, নিউজ কর্প, অ্যাপল, জেনারেল মোটর্স এবং টুইটার-সহ আরও অনেক বড় বড় কোম্পানিতে তাঁর শেয়ার আছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে কিংস হোল্ডিং কোম্পানি অন্যতম।

প্রিন্স আলওয়ালিদ বলেছেন, একজন মহিলাকে গাড়ি চালাতে না দিলে সেটা তাকে শিক্ষার অধিকার বা স্বাধীন পরিচয় ধারণ করার অধিকার থেকে বঞ্চিত করার মতই একটা ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।

প্রিন্স আলওয়ালিদের এই বিবৃতি প্রকাশ করা হয় তাঁর ওয়েবসাইটে।

ছবির ক্যাপশান,

প্রিন্স আল ওয়ালিদ বিন তালালের ওয়েবসাইট:

সৌদি আরবে মেয়েদের গাড়ি চালানোর ওপর নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু হয় বিশ বছর আগে।

সৌদি আরবের জনপরিবহন ব্যবস্থাও যেহেতু ভালো নয়, তাই মেয়েদের যাতায়তের জন্য পুরোপুরি নির্ভর করতে হয় পুরুষ চালকদের ওপর। প্রায় দশ লাখ পুরুষ সৌদি আরবে গাড়ি চালকের পেশায় নিয়োজিত। এদের বেশিরভাগই বিদেশি।

প্রিন্স আলওয়ালিদের হিসেব অনুযায়ী, একটি গড় পড়তা পরিবার প্রতিমাসে একজন গাড়ি চালকের পেছনে প্রায় তিন হাজার আটো রিয়াল বা এক হাজার মার্কিন ডলার খরচ করে।