বার্লিনে হামলাকারীর ব্যাপারে নিশ্চিত নয় পুলিশ

ক্রিসমাস বাজারে লরি উঠিয়ে দিয়ে এই হামরা চালানো হয়

ছবির উৎস, AFP

ছবির ক্যাপশান,

ক্রিসমাস বাজারে লরি উঠিয়ে দিয়ে এই হামরা চালানো হয়

জার্মানির রাজধানী বার্লিনে ক্রিসমাস বাজারে ট্রাক চালিয়ে দেওয়ার ঘটনায় আটক ব্যক্তি অপরাধী কিনা তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে।

সোমবার সন্ধ্যায় ভয়াবহ ঐ ঘটনার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে জার্মানির পুলিশ রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী পাকিস্তানি এক যুবককে আটক করে।

কিন্তু পুলিশ এখন বলছে ঐ ব্যক্তিই যে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, সে ব্যাপারে তারা নিশ্চিত হতে পারছে না।

সোমবারের ঘটনায় ১২ জন মারা গেছে এবং জার্মান সরকার ঘটনাটিকে সন্ত্রাসী হামলা হিসাবেই দেখছে।

জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টমাস ডে মাজিয়ের এর আগে বলেছিলেন, ২৩ বছর বয়সী সন্দেহভাজন হামলাকারী একজন পাকিস্তানি। তার নাম নাভিদ বি।

সে গত ফেব্রুয়ারি মাসে জার্মানিতে ঢুকেছিল।

কিন্তু আটক ব্যক্তি হামলার সাথে তার জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করছে বলে জার্মানির পুলিশ বলছে।

ফেডারেল সরকারের কৌসুলি পিটার ফ্র্যাঙ্ক বলছেন, লরি দিয়ে এই হামলাটা কি সত্যিই আটক ব্যক্তি চালিয়েছিলেন কি না, তা বিবেচনা করে দেখতে হবে।

তিনি বলেন যে কায়দায় এই হামলা হয়েছে এবং যাদেরকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করা হয়েছে তা দেখে মনে হচ্ছে, এটা জঙ্গি ইসলামপন্থীদের কাজ।

যে ব্যক্তি এখন পুলিশের হেফাজতে, এই হামলার পর সে বার্লিনের একটি পার্ক টিয়েরগার্টেনের দিকে দৌড়ে পালাচ্ছিলো।

ঘটনাস্থল থেকে প্রায় দু'মাইল দূরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

একজন পথচারী যিনি তাকে অনুসরণ করছিলেন, তিনিই ফোন করে পুলিশকে তার অবস্থান জানিয়ে দেয়।

ছবির উৎস, Reuters

ছবির ক্যাপশান,

জার্মান চ্যান্সেলরের পুস্পস্তবক অর্পণ

জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মের্কেল হামলার জায়গাটিতে ঘুরে দেখেছেন এবং পুষ্প স্তবক অর্পণ করেছেন।

তিনি দোষী ব্যক্তিদের কঠোর সাজা দেয়ার কথা বলেছেন। মিসেস মের্কেলের জন্য এই ঘটনাটি একটি বড় রাজনৈতিক আঘাত হয়ে দেখা দিয়েছে এই কারণে যে তিনি অভিবাসীদের জন্য জার্মানির দরোজা খুলে রাখার পক্ষপাতী।

তিনি বলেছেন, যদি সত্যিই প্রমাণিত হয় যে এই হামলাকারী একজন শরণার্থী তবে সেটা হবে চরম ভয়ংকর ঘটনা।