'ওবামার শাসনামলকে ইতিহাসের চোখে হয়তো ভালোভাবে দেখা হবে না'

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হিসেবে ইতিহাস রচনা করেছেন বারাক ওবামা। ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হিসেবে ইতিহাস রচনা করেছেন বারাক ওবামা।

আর কয়েক ঘন্টা পর নতুন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করবেন বারাক ওবামা। আগামীকাল ২০শে জানুয়ারি শপথ নেবেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মি: ওবামা যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট। ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে প্রথম মেয়াদে ক্ষমতায় আসেন। এর পর ২০১২ সালে দ্বিতীয় দফায়ও বিজয়ী হন।

বারাক ওবামার এই আট বছরের শাসনামলকে ইতিহাসে কিভাবে মূল্যায়ন করা হতে পারে ?

লন্ডনে রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড. মুশতাক খান বলেছেন- "বারাক ওবামা অনেক কিছু অর্জন করেছেন কিন্তু উনার নেতৃত্বের প্রতি যে প্রত্যাশা ছিল সে অনুযায়ী তার অর্জন হয়নি।"

"সম্ভবত ইতিহাসের চোখে ওবামার এই আট বছরকে খুব ভালোচোখে দেখা হবে না কারণ যাবার সময় তিনি বিভাজনপূর্ণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রেখে গেছেন।"

"যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরীন যে সমস্যা রয়ে গেছে তা কঠিন এক সমস্যা। অর্থনীতিতে দুর্বলতা এসেছে। বেকারত্ব আর প্রবৃদ্ধির দিক থেকে খারাপ করেনি। কিন্তু ধনী ও গরীবের মধ্যে বিভাজন বেড়ে গেছে। আর এটা মূল রাগের কারণ ক্রোধের কারণ" -বলছিলেন ড: মুশতাক খান।

মি: খান বলছিলেন "এই ব্যবধান কমানোর জন্য যে কাজগুলো করার দরকার ছিল সে কাজগুলো করতে কঠিন সিদ্ধান্ত তিনি নেননি। কারণ অনেক শক্তিশালী সংগঠন এর বিপক্ষে বিরোধিতা করবে।

"তবে বুশ সরকারের সময়ে যে গভীর গর্তে পড়ে গিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র সেখান থেকে দেশটি বের হতে পেরেছে ওবামার শাসনামলে"।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ২০শে জানুয়ারি দায়িত্ব গ্রহণ করবেন নতুন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

মি; খান বলছিলেন, বারাক ওবামা যেই যুক্তরাষ্ট্রে ক্ষমতায় এসেছিলেন সেই যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যেই গভীর আন্তর্জাতিক সংকটে পড়েছিল।

"যে যুদ্ধগুলো বুশ সরকার শুরু করেছিল সেগুলো অপ্রত্যাশিত ছিল, যে পরিমাণ সৈন্যদের জীবন গেছে তার তুলনায় বেশি ক্ষতি হয়েছে অর্থনৈতিকভাবে। সেই অর্থনৈতিক ক্ষতি থেকে যুক্তরাষ্ট্র বের হতে পারেনি" বলে মনে করেন ড: মুশতাক খান।

তবে আট বছরে বারাক ওবামার যে সাফল্য আছে তার মধ্যে সবচেয়ে বড় অবদান হচ্ছে স্বাস্থ্যখাতে সরকারি বীমাসেবা চালু করা।

মি: খান বলছেন এই ব্যবস্থার ফলে দুই কোটি মার্কিন নাগরিক, যারা এই স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত ছিল, তারা এই সেবা নিতে পারছে।

বারাক ওবামার চালু করা এই স্বাস্থ্যসেবা তুলে নেয়ার প্রতিজ্ঞা করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

আরও পড়ুন:

শেষ সংবাদ সম্মেলনে সমালোচনার মুখে বারাক ওবামা

ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং পারমানবিক বোমা

সম্পর্কিত বিষয়