টেনিসে ইতিহাস গড়লেন রজার ফেডেরার

পঁয়ত্রিশ বছর বয়েসে অস্ট্রেলিয়ার ওপেন শিরোপা জিতে টেনিসে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করলেন রজার ফেডেরার।

পাঁচ সেটের এই রুদ্ধশ্বাস উত্তেজনাপূর্ণ ফাইনালে সুইস ফেডেরার হারিয়েছেন তার পুরোনো প্রতিদ্বন্দ্বী স্পেনের রাফায়েল নাদালকে।

"আমি ভেবেছিলাম, ফেডেরারের এবার জেতার কোন চান্স নেই। কিন্তু এই বয়েসে ইনজুরি থেকে ফিরে এসে সে যা খেলেছে তা অসাধারণ। ওর এমন খেলা আমি আগে দেখিনি" - এবারের মাঠে ময়দানেতে এ ফাইনাল সম্পর্কে বলেছেন সাবেক টেনিস খেলোয়াড় জয়দীপ মুখার্জি - যিনি ১৯৬০ ও ৭০এর দশকে চারটি গ্র্যান্ড স্ল্যামেই খেলেছেন, ডেভিস কাপে ভারতীয় দলের অধিনায়কও ছিলেন।

"মাই স্যালুট, রজার ফেডেরারের মতো বড় খেলোয়াড় হয়তো আর হবে না" - বলছিলেন জয়দীপ মুখার্জি।

তার কথা, 'রাফায়েল নাদালও ফিরে এসেছে, দারুণ খেলেছে । সে ফিট থাকলে আরো কিছু গ্র্যান্ড স্ল্যামে নোভাক জোকোভিচ বা এন্ডি মারের প্রতিদ্বন্দ্বী হবে।'

ছবির উৎস, Cameron Spencer

ছবির ক্যাপশান,

রজার ফেডেরার

অনেকেই ধরে নিয়েছিলেন, রজার ফেডেরারের আর গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতা হবে না।

তিনি সবশেষ গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতেছিলেন ২০১২ সালে, উইম্বলডনে - যদিও এর পর তিনি আরো তিনটি গ্র্যান্ড স্ল্যামের ফাইনালে উঠেও শিরোপা জিততে পারেন নি।

মনে করা হচ্ছিল বয়স, চোট, আর সুপারফিট একঝাঁক তরুণতর খেলোয়াড়ের উত্থানের ফলে - রজার ফেডেরারের যুগ শেষ হয়ে গেছে।

ছবির উৎস, Cameron Spencer

ছবির ক্যাপশান,

রজার ফেডেরার আর রাফায়েল নাদাল

ফেডেরার আর নাদালকে আবার একটি গ্র্যান্ড স্ল্যামের ফাইনালে দেখা যাবে এটাও হয়তো অনেকেই ভাবেন নি।

কিন্তু এ সবকিছুকেই ভুল প্রমাণিত করে - চোটের কারণে ছয় মাস বাইরে থাকার পর - ৩৫ বছর ১৭৪ দিন বয়েসে ফেডেরার ১৮তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা জিতলেন।

অস্ট্রেলিয়ান ওপেন টেনিসে এবার বেশ কিছু চমক ছিল। সেরেনা আর ভেনাস উইলিয়ামস দুই বোনকে ফাইনাল খেলতে দেখা গেল আট বছর পর। আর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে এবার পুরুষ ও মহিলাদের সিঙ্গলসে চার ফাইনালিস্টই ছিলেন ৩০ বা তার বেশি বয়েসের - এমনটা বহুকাল দেখা যায় নি।

জয়দীপ মুখার্জি বলছেন, আগে মনে করা হতো একজন টেনিস খেলোয়াড়ের সেরা বয়েস হচ্ছে ২২-২৩ কিন্তু এখন মেলবোর্নে এই বয়স্কদের খেলা দেখার পর মনে হচ্ছে সেরা বয়েস আসলে ২৭-২৮। ।

ছবির উৎস, JUSTIN TALLIS

ছবির ক্যাপশান,

আফ্রিকান কাপ অব নেশনস

আফ্রিকা থেকে এত ভালো ভালো ফুটবলার বেরোচ্ছে কিভাবে?

গ্যাবনে চলছে আফ্রিকার দেশগুলোর টুর্নামেন্ট আফ্রিকা কাপ অব নেশন্স ফুটবল্ ।

ইউরোপের ক্লাবগুলোতে খেলে বহু আফ্রিকার ফুটবলার তারকা খ্যাতি পেয়েছেন। ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ক্লাব ফুটবলে আফ্রিকান তারকার ছড়াছড়ি। তারা এখন অনেকেই এই টুর্নামেন্টে যার যার দেশের হয়ে খেলতে গিয়েছেন।

কিন্তু ইউরো বা কোপা আমেরিকার মতো এ টুর্নামেন্ট তেমন সাড়া ফেলতে পারে না কেন?

ইউরোপের ফুটবলের সর্বোচ্চ স্তরে আফ্রিকান ফুটবলার দের বিপুল উপস্থিতি দেখে এটা স্পষ্ট বোঝা যায় যে আফ্রিকার ফুটবলে প্রতিভা এবং তারকার কোন কমতি নেই।

কিন্তু এই তারকারা যখন নিজেদের দেশের হয়ে খেলছেন মহাদেশীয় টুর্নামেন্টে তখন তা যেন ঠিক ইউরোর মতো, বা কোপা আমেরিকার মতো বড় ইভেন্ট হয়ে উঠতে পারে না?

কিন্তু তা সত্বেও এই আফ্রিকা থেকে এত বড় বড় ফুটবলার উঠে আসছে কিভাবে?

ব্যাখ্যা করেছেন লন্ডনে ফুটবল বিশ্লেষক মিহির বোস।