মসুলে ড্রোন থেকে বিস্ফোরক ফেলেছে আই এস

ছবির কপিরাইট SAFIN HAMED
Image caption মসুল দখলের লড়াইয়ে ইরাকি সেনারা

ইসলামিক স্টেটের হাত থেকে মসুলের নিয়ন্ত্রণ পুন:দখলের লড়াইতে বড় ধরণের সাফল্য দাবি করেছে ইরাকের সরকারি সৈন্যরা।

আজ শহরের পশ্চিমাংশের বেশ কয়েকটি গ্রাম দখলের পর মসুল এয়ারপোর্টের দিকে অগ্রসর হচ্ছে সৈন্যরা।

লড়াইতে ভারি কামান এবং হেলিকপ্টার গানশিপ ব্যবহার করা হচ্ছে। এর জবাবে ইসলামিক স্টেট গাড়ি বোমা, এবং একটি ক্ষেত্রে ড্রোন থেকে ফেলা বিস্ফোরক ব্যবহার করছে।

ভোর হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই এই অভিযান শুরু হয়। তারপরই ইরাকি বাহিনী খুব দ্রুত পশ্চিম মসুলের দক্ষিণাঞ্চলে কয়েকটি গ্রাম দখল করার উদ্দেশ্যে অগ্রসর হয়।

ছবির কপিরাইট ODD ANDERSEN
Image caption মসুল শহর থেকে লোকজন পালাচ্ছে

এই অভিযানে প্রাথমিকভাবে নেতৃত্ব দেয় কেন্দ্রীয় পুলিশ বাহিনী। কয়েকশ সাঁজোয়া গাড়ি নিয়ে তারা ওই গ্রামগুলোর দিকে অগ্রসর হতে থাকে। আকাশ থেকে এই অভিযানে তাদেরকে সহযোগিতা করে যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনীর হেলিকপ্টার গানশিপ।

বিবিসির সংবাদদাতা সেবাস্টিয়ান আশার বলছেন, ইরাকি সৈন্যরা কিছু কিছু প্রতিরোধের মুখেও পড়ছে। কিন্তু পশ্চিম মসুলের ঘনবসতিপূর্ণ এলাকার রাস্তায় ইরাকি বাহিনী যে ধরনের প্রতিরোধের মুখে পড়তে পারে বলে ধারণা করা হয়েছিলো, তার তুলনায় এটা কিছুই নয়।

আরো পড়ুন : বইমেলায় বিক্রির শীর্ষে এখনো হুমায়ুন আহমেদ

'ডুব' ছবি নিয়ে বিতর্ক: এটি কি হুমায়ুন আহমেদের জীবনী?

দেশে ফিরে যাচ্ছে কিছু রোহিঙ্গা, বলছেন বাংলাদেশের কর্মকর্তারা

ইন্টারনেট মাতলো ‘ক্ষুদ্রাকৃতির ডোনাল্ড ট্রাম্প’ নিয়ে

একাত্তরে পরাজয়ের আগের দিনগুলোতে ইয়াহিয়া খান

এখন সরকারি বাহিনীর লক্ষ্য হচ্ছে, দক্ষিণ উপকণ্ঠে শহরের বিমানবন্দর দখল করা। তারপর ইসলামিক স্টেটের সবশেষ এই ঘাঁটির ওপর চালানো হবে সর্বাত্মক অভিযান।

ছবির কপিরাইট YASIN AKGUL
Image caption মসুল দখলের লড়াই

ধারণা করা হচ্ছে, ওই এলাকায় এখনও সাড়ে সাত লাখের মতো বেসামরিক লোকজন আটকা পড়ে আছে।

ইরাকি প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল-আবাদি অভিযানের সময় এইসব লোকজনের প্রাণহানি এড়াতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যে তার বাহিনীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

সম্পর্কিত বিষয়