দুর্নীতি মামলায় রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার ৩ বছরের জেল

সোহেল রানা, গ্রেফতার হওয়ার পর। ছবির কপিরাইট এএফপি
Image caption সোহেল রানা, গ্রেফতার হওয়ার পর।

বাংলাদেশের এক আদালত এক দুর্নীতি মামলায় সাভারের ধসে পড়া রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানাকে তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন মি. রানার বিরুদ্ধে যে মামলা দায়ের করেছিল তাতে বলা হয়েছে, আসামী এবং তার স্ত্রীকে তাদের সব স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদের হিসেব জমা দেয়ার নোটিশ দেয়া হলেও তিনি সম্পর্কের বিবরণীর ফর্মটি পূরণ করেননি।

এরপর দুদকের উপপরিচালক মাহবুবুল আলম রমনা থানায় ২০১৫ সালের ২০শে মে মি. রানার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

মঙ্গলবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালতের বিচারক কারাদণ্ডের আদেশ দেয়ার পাশাপাশি আসামীকে ৫৯,০০০ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরো তিন মাসের জেলের আদেশ দিয়েছেন।

গত ২০১৩ সালের ২৪শে এপ্রিল ঢাকার অদূরে সাভারে রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় সব মিলিয়ে রয়েছে ১৪টি মামলা।

এর মধ্যে রয়েছে অবহেলা-জনিত মৃত্যুর অভিযোগে পুলিশের মামলা, রাজউকের করা ইমারত নির্মাণ আইন লঙ্ঘন এবং নিহত একজন পোশাক শ্রমিকের স্ত্রীর দায়ের করা খুনের মামলা।

ছবির কপিরাইট BBC Bangla
Image caption এক সময় এখানেই ছিলো রানা প্লাজা

আরও দেখুন:

'আমরা কি কোনদিন বিচার পাবো?'

অ্যাকর্ড-অ্যালায়েন্সকে চান না গার্মেন্টস মালিকরা

হত্যা মামলায় ৪১ জন অভিযুক্তর মধ্যে ৩০ জন ইতোমধ্যেই জামিন পেয়েছেন।

ভবন মালিক সোহেল রানাসহ তিনজন আছেন কারাগারে। আর সাত জন পলাতক।

বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচাইতে ভয়াবহ এই শিল্প দুর্ঘটনায় ১১০০'র বেশি শ্রমিক নিহত হয়।

এই দুর্ঘটনার পর পোশাক শ্রমিকদের নিরাপত্তার ইস্যুতে ব্যাপক ইমেজ সংকটে পড়ে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প।

বিচারের অপেক্ষায় থাকা শ্রমিকদের অনেকেই পোশাক শিল্পে কাজ করতে এখনো ভয় পান। তাই বেকার হয়েই রয়েছেন।

আহতদের অনেকেই বয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছেন আঘাতের যন্ত্রণা।

শ্রমিকেরা পুনর্বাসনের দাবিও করছেন দীর্ঘদিন ধরে।

সম্পর্কিত বিষয়