অস্ট্রিয়ায় আজ থেকে নিকাব ও বোরকা নিষিদ্ধ

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption নিকাব

অস্ট্রিয়ায় মুসলিম মহিলাদের প্রকাশ্য স্থানে পুরো মুখ-ঢাকা নিকাব বা বোরকা পরা নিষিদ্ধ করে যে আইন হয়েছে - তা আজ থেকে কার্যকর হচ্ছে।

অস্ট্রিয়ার সরকার বলছে, এই আইনে মাথার চুল থেকে চিবুক পর্যন্ত মুখ দৃশ্যমান থাকতে হবে, এবং অস্ট্রিয়ার মূল্যবোধ রক্ষার জন্যই এটা করা হচ্ছে।

অস্ট্রিয়ায় প্রায় ৭ লক্ষ মুসলিম বাস করেন, কিন্তু তার মধ্যে মাত্র ১৫০ জনের মতো মহিলা পুরো মুখ-ঢাকা বোরকা বা নিকাব পরেন বলে অনুমান করা হয়।

এ আইন এমন এক সময় কার্যকর হচ্ছে - যখন দেশটিতে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে নির্বাচনের আগে ইসলাম-ভীতি বা বিদ্বেষের অনুভুতিকে কাজে লাগানোর চেষ্টা হচ্ছে।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption অস্ট্রিয়া ছাড়াও কিছু ইউরোপিয়ান দেশ নিকাব নিষিদ্ধ করেছে

মনে করা হচ্ছে আগামী মাসের ওই নির্বাচনে হয়তো একটি উগ্রদক্ষিণপন্থী দল কোয়ালিশন সরকারের অংশ হয়ে উঠতে পারে।

নিকাব নিষিদ্ধ করার এই আইনের অন্য আরো কিছু দিকও আছে। এ আইনে চিকিৎসাগত কারণে মুখ ঢাকা বা সং সাজাও নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এই আইনের কারণে পর্যটন কর্মকর্তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে অস্ট্রিয়াতে প্রতি বছর উপসাগরীয় আরব রাষ্ট্র থেকে যেসব পর্যটকরা আসে - তার ওপর বিরূপ প্রভাব পড়তে হবে।

Image caption নিকাব
Image caption বোরকা

ফ্রান্স এবং বেলজিয়াম ২০১১ সালে বোরকার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। নেদারল্যান্ডের পার্লামেন্টেও এ ধরণের একটি বিল আনা হয়েছে।

জার্মান চ্যান্সেলর এ্যাংগেলা মারকেল বলেছেন, আইনগতভাবে সম্ভব হলে জার্মানিতেও পুরো-মুখ-ঢাকা বোরকা বা নিকাব নিষিদ্ধ করা উচিত।

যুক্তরাজ্যে নিকাব বা বোরকার ওপর কোন নিষেধাজ্ঞা নেই।

অস্ট্রিয়ার জনসংখ্যা ৮০ লাখের মতো।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

কাতালান গণভোট: রাতভর ভোটকেন্দ্র পাহারা দিচ্ছেন বিচ্ছিন্নতাবাদীরা

কাতালোনিয়া কেন বেরিয়ে যেতে চায় স্পেন থেকে

সম্পর্কিত বিষয়