ভারতের গুজরাটে নবরাত্রি উৎসবের নাচে যোগ দিয়ে গণপিটুনিতে নিহত দলিত যুবক

জয়েশ সোলাঙ্কি
Image caption জয়েশ সোলাঙ্কি

ভারতের গুজরাটে নবরাত্রি উৎসবের সময় যে নাচের অনুষ্ঠান হয়, সেখানে যাওয়ার পর উচ্চবর্ণের প্যাটেল সম্প্রদায়ের লোকজন এক দলিত বা তথাকথিত নিম্নবর্ণের যুবককে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে।

পুলিশ বলছে, আনন্দ জেলার ওই ঘটনায় জয়েশ সোলাঙ্কিকে রবিবার ভোররাতে তার গ্রামেরই প্যাটেল সম্প্রদায়ের কিছু লোক একসঙ্গে মিলে মারধর করেছিল। তবে এখন অভিযুক্ত মোট আটজনকেই গ্রেফতার করা হয়েছে।

গুজরাটের পরিস্থিতি সম্পর্কে যারা ওয়াকিবহাল, তারা বলছেন উত্তর ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের মতোই সেখানেও দলিতদের ওপর আক্রমণের ঘটনা প্রায়শই ঘটে থাকে - যদিও সংবাদমাধ্যমে সে সব ঘটনা তেমন গুরুত্ব পায় না।

গুজরাটে নবরাত্রির সময় গারভা নৃত্যানুষ্ঠান প্রায় প্রতিটি পাড়া বা মহল্লায় খুব জনপ্রিয় - আর আনন্দ জেলার ভাদরানিয়া গ্রামের স্থানীয় মন্দিরে এমনই একটি গারভা দেখতে গিয়েছিলেন একুশ বছরের যুবক জয়েশ সোলাঙ্কি।

সেখানে জাতপাত নিয়ে প্যাটেল সম্প্রদায়ের কিছু লোকজনের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন তিনি। আর তারা একসঙ্গে মিলে তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।

ওই নিহত যুবকের এক ভাতিজা বলছিলেন, "সঞ্জয় প্যাটেল ওরফে ভিমোর নেতৃত্বে একদল ছেলে আমার চাচাকে জিজ্ঞেস করে, আমরা গারভায় কী করছি, কী দেখতে এসেছি। বলেই তারা তাকে চড়-থাপ্পড় মারতে থাকে, তারপর বলে আমাদের গারভায় আমার কোনও অধিকার নেই।"

"শেষে মারতে মারতে তাকে একেবারে আধমরা করে ফেলে দিয়ে যায় - একটু পরে ওকে হাসপাতালে নিয়ে যেতেই বলা হয় সব শেষ।"

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption দলিত নির্যাতনের প্রতিবাদে গুজরাটে এর আগেও বিক্ষোভ হয়েছে। (ফাইল ফটো)

রবিবার ভোর চারটের পর ঘটা ওই ঘটনায় নিহতের মাথা বারবার সজোরে দেওয়ালে ঠুকে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ - তার শরীরেও নানা স্থানে মিলেছে গভীর ক্ষতচিহ্ন।

আনন্দ জেলার পুলিশ সুপার সৌরভ সিং জানান, অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তারা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছেন।

তিনি বলেন, "আমরা ইতিমধ্যেই ডিএসপি পদমর্যাদার এক কর্মকর্তার নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। মারধরে অভিযুক্ত আটজনকেই গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। আরও কেউ জড়িত ছিল কি না সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। খুব দ্রুতই আমরা এই ঘটনায় চার্জশিট পেশ করব।"

ভারতে যিনি জাতির জনকের মর্যাদা পান, অহিংসার পূজারী সেই মোহনদাস গান্ধীর জন্মজয়ন্তীর প্রাক্কালে তার নিজের রাজ্য গুজরাটের এই ঘটনা রাজ্যের মাথা হেঁট করে দিয়েছে বলেই মনে করছেন সেখানকার বিদগ্ধ সমাজ।

গুজরাটের সাবেক তথ্য কমিশনার শৈলেশ গান্ধীর কথায়, "একটা চরম অসহিষ্ণুতা ও ঔদ্ধত্যের বাতাবরণ সর্বত্র ছেয়ে আছে - সরকার যদি এখনই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না-নেয় তাহলে এমন ঘটনা আরও ঘটবে। আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলব, স্বচ্ছ ভারত অভিযানের পাশাপাশি তিনি যেন দেশকে হিংসামুক্ত করার অভিযানেও নামেন।"

আসলে গারভার মতো একটা সামাজিক উৎসব, যেখানে নবরাত্রি উদযাপন করা হয় ও সমাজের সব শ্রেণীর লোক যোগ দিয়ে থাকে - সেখানেই এই ঘটনাটা ঘটা খুব দু:খজনক, বলছিলেন বিবিসি গুজরাটির অনন্যা দাস।

কিন্তু বিহার-উত্তরপ্রদেশে যেমন দলিতদের ওপর হামলার খবর প্রায়ই শোনা যায়, গুজরাটও কিন্তু সে দিক থেকে একেবারে পিছিয়ে নেই।

অনন্যা দাস বলছিলেন, "গুজরাটেও দলিতদের সংখ্যা প্রচুর - আর তাদের ওপর হামলার ঘটনাও হামেশাই ঘটে থাকে। দলিতরা সাধারণত লোকের বাড়িতে কাজকর্ম, শৌচাগার বা শহরের সাফাই এই জাতীয় ছোটখাটো কাজকর্ম করে থাকেন - কিন্তু তাদের ওপর হামলা হলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে জাতীয় সংবাদমাধ্যমে তা নিয়ে কোনও হইচই হয় না!"

গুজরাটে বিধানসভার ভোট এ বছরের শেষ দিকেই - তার আগে উচ্চবর্ণের লোকজনের হাতে দলিত যুবককে পিটিয়ে মারার ঘটনায় রাজ্য রাজনীতিও উত্তপ্ত হয়ে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সম্পর্কিত বিষয়