ফতেহপুর সিক্রিতে সুইস দম্পতির ওপর হামলা

হামলায় কোয়েন্টিন জেরেমি ক্লের্ক মাথায় চোট পেয়েছেন এবং ম্যারি দ্রজের হাত ভেঙ্গে যায়। ছবির কপিরাইট LAXMI KANT
Image caption হামলায় কোয়েন্টিন জেরেমি ক্লের্ক মাথায় চোট পেয়েছেন এবং ম্যারি দ্রজের হাত ভেঙ্গে যায়।

ভারতের জনপ্রিয় পর্যটক আকর্ষণের কেন্দ্র ফতেহপুর সিক্রিতে আক্রমণের শিকার হয়েছেন।

পুলিশের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বিবিসি হিন্দি সার্ভিসকে বলেছেন চার জন ঐ দম্পতিকে বাকবিতণ্ডার জেরে আক্রমণ করে।

ভারতের উত্তরের শহর আগ্রায় রবিবার ঐ ঘটনা ঘটলেও তা জানা যায় পরে। স্থানীয় গণমাধ্যমে খবর বের হয় হামলায় কোয়েন্টিন জেরেমি ক্লের্ক মাথায় চোট পেয়েছেন এবং ম্যারি দ্রজের হাত ভেঙ্গে যায়।

তাদেরকে এখন দিল্লির একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তবে এই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে এখনো কাউকে আটক করা হয় নি।

মি. ক্লের্ক 'দ্যা টাইমস অব ইন্ডিয়া' সংবাদপত্রকে বলছেন ঐ চার ব্যক্তি তাঁর এবং তাঁর স্ত্রীর অনুমতি না নিয়েই ছবি তুলতে থাকে।

মি.ক্লের্ক তাদেরকে নিষেধ করেন ছবি না তোলার জন্য। এদিকে পুলিশের বরাত দিয়ে খবরে বলা হচ্ছে তারা মিজ দ্রজকে তাদের সাথে সেলফি তোলার জন্য বাধ্য করেন।

এবং পরের এক ঘণ্টা ধরে তাদেরকে অনুসরণ করতে থাকে। এর পরেই লাঠি দিয়ে ঐ দম্পতিতে তারা বেধড়ক পেটাতে থাকে। এতে দুইজনেই মারাত্মক আহত হন।

আগ্রার পুলিশ কর্মকর্তা অমিত পাঠক বলেছেন সন্দেহভাজনদের চিহ্নিত করা গেছে এবং খুব শিগ্রী গ্রেফতার করা হবে।

তিনি বলেছেন "ঐ দম্পতি থানায় এসেছিলেন কিন্তু কোন রিপোর্ট করেন নি। তবে আমরা ঐ চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছি এবং হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছি"।

এদিকে বিষয়টি কেন্দ্রীয় সরকার বেশ গুরুত্ব-সহকারে নিয়েছে। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ আজ বৃহস্পতিবার উত্তর প্রদেশে সরকারের বলেছেন এই মামলার প্রতিবেদন জমা দিতে।

আরো পড়ুন:

‘ওরা আমার বাবা-মা, সন্ত্রাসী নয়’

পুলিশের দুর্নীতি দমনে বাংলাদেশে কী ব্যবস্থা রয়েছে?

থাইল্যান্ডের প্রয়াত রাজার এক বছর পর আজ শেষকৃত্য

কলকাতায় কেন এত ‘বিপজ্জনক বাড়ি’?

সম্পর্কিত বিষয়