মিয়ানমারে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ইঙ্গিত টিলারসনের

ছবির কপিরাইট Win McNamee
Image caption মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন এই প্রথমবারের মতো মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর সে দেশের সেনাবাহিনীর অভিযানকে 'এথনিক ক্লিনসিং' বা জাতিগত নিধন বলে বর্ণনা করেছেন।

তিনি আরও বলেছেন, এর ফলে রোহিঙ্গারা ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এবং সে কারণেই এর জন্য যারা দায়ী তাদের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নির্দিষ্টভাবে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা বিবেচনা করছে।

গত সেপ্টেম্বর মাসে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান জেইদ রাদ আল হুসেইনও মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধন চালানোর অভিযোগ এনেছিলেন।

মি টিলারসন এমন একটা সময়ে এ মন্তব্য করলেন, যখন তার দিনকয়েকের মধ্যেই খ্রিষ্টানদের ধর্মগুরু পোপ মিয়ানমার সফরে যাচ্ছেন।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার বিবৃতিতে বলেছেন, "আমাদের হাতে যা তথ্য এসেছে তা খতিয়ে দেখে ও গভীরভাবে বিশ্লেষণ করলেই এটা পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে যে উত্তর রাখাইন প্রদেশের পরিস্থিতি রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে একটা জাতিগত নিধনযজ্ঞ ছাড়া আর কিছুই নয়।"

মার্কিন সেনেটন জেফ মার্কলের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল খুব সম্প্রতি মিয়ানমার ও তার প্রতিবেশী বাংলাদেশে সফর করে ফিরে এসেছেন।

ছবির কপিরাইট Paula Bronstein
Image caption যুক্তরাষ্ট্রের মতে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যা ঘটেছে তা এথনিক ক্লিনসিং

ওই প্রতিনিধিদলের সদস্যরা বলেছেন, তারা রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন-হত্যা-খুন-ধর্ষণের যে সব ঘটনা শুনেছেন তা তাদের গভীরভাবে বিচলিত করেছে।

পোপ ফ্রান্সিসও আগামী ২৬ নভেম্বর মিয়ানমারে আসবেন বলে কথা রয়েছে।

ভ্যাটিকান জানিয়েছে, পোপ ওই সফরে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান জেনারেল মিন অং লেইং ও সে দেশের ডি ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চি-র সঙ্গে বৈঠক করবেন।

আমাদের পেজে আরও পড়ুন:

মাসিক বন্ধ হওয়া আর ধর্ষণই যেখানে নারীদের রুটিন

যুদ্ধাপরাধ ও গণহত্যায় দন্ডিত বসনিয়ান সাবেক সার্ব কমান্ডার রাতকো ম্লাদিচ

সাভার আর মানিকগঞ্জে মাটির নিচে পানির 'খনি'