গরু পাচারকারীরা হত্যার হুমকি দিল পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রীকে

Image caption গরু পাচারের বিরুদ্ধে নানা ব্যবস্থার পরও পাচারকারীরা সক্রিয়

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের এক মন্ত্রী অভিযোগ করেছেন যে গরু পাচারের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ায় তাঁকে পাচারকারি চক্র হত্যার হুমকি দিয়েছে।

মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে নির্বাচিত ও রাজ্যের শ্রম দপ্তরের রাষ্ট্র মন্ত্রী জাকির হুসেন বিবিসিকে বলছেন, "গরু পাচারের বিরুদ্ধে কৃষকরা মুখ খুলেছেন, অভিযোগ জমা পড়ছে, তাই তারা মরিয়া হয়ে উঠেছে।"

ফসলের ক্ষেতের ওপরে দিয়েই পাচারের জন্য শয়ে শয়ে গরু নিয়ে যাওয়া হয় সীমান্তের দিকে। গরুর পায়ের চাপে নষ্ট হয় ক্ষেতের ফসল।

মি. হুসেন বলছেন, "ফসল নষ্ট হওয়ার বিরুদ্ধে আমার এলাকার হাজার হাজার চাষী অভিযোগ জমা দিয়েছে। সেই সব অভিযোগের কথা জানতে পেরেই পাচারকারীদের কয়েকটি গোষ্ঠী প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে। তারা এমনকি আমাকেও মেরে দেওয়ার হুমকি দিয়ে এসেছে অনেক এলাকায়।"

মুর্শিদাবাদের পুলিশ বলছে তারাও এই হুমকির খবর জেনেছে।

"প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পেয়েছি আমরা। তদন্ত শুরু হয়েছে। আইন অনুযায়ী যা যা ব্যবস্থা নেওয়ার, তাই নিচ্ছি আমরা," বিবিসিকে জানিয়েছেন মুর্শিদাবাদের পুলিশ সুপারিন্টেডেন্ট শ্রী মুকেশ।

সীমান্ত অঞ্চলের মানবাধিকার রক্ষা আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত সংগঠন মাসুম বলছে গরু পাচারের কারণে ফসল নষ্ট হওয়াটা শুধু মন্ত্রীর এলাকায় নয়, মুর্শিদাবাদ, নদীয়া আর উত্তর চব্বিশ পরগণা - সব জেলার সীমান্তে এটা নিয়মিত ঘটনা।

মন্ত্রী জাকির হুসেনও বলছিলেন যে পাচারে বিরুদ্ধে মুখ খুলেছে তাঁর যেসব সমর্থক, তাঁদের এই ভয়ও দেখানো হচ্ছে।

"ওরা ভয় দেখাচ্ছে যে বেশী প্রতিবাদ করলে হেরোইন বা অন্য মাদকের অভিযোগে ফাঁসিয়ে দেবে," বলছিলেন মি. হুসেন।

ভারতের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ কয়েক বছর ধরেই দাবী করে আসছে যে দক্ষিণবঙ্গ সীমান্তের যে অংশ দিয়ে গরু পাচার হত দীর্ঘদিন ধরে, সেখানে ব্যাপক কড়াকড়ির ফলে গরু পাচার প্রায় বন্ধই হয়ে গেছে।

তবে পশ্চিমবঙ্গের এই মন্ত্রীর অভিযোগের পর বোঝা যাচ্ছে, পাচার চলছে।

সম্পর্কিত বিষয়

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর