প্রশ্ন ফাঁসের জন্য শিক্ষকদের একাংশকে দায়ী করলেন মন্ত্রী ও দুদক

ছবির কপিরাইট UNK
Image caption পাবলিক পরীক্ষাগুলোর প্রশ্ন ফাঁস এক বিরাট সমস্যায় পরিণত হয়েছে বাংলাদেশে

বরগুনার একটি প্রাথমিক স্কুলের একজন শিক্ষার্থীর বাবা শামীম সিকদার। মি. সিকদার বলছেন, প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার কারণে আজকের নির্ধারিত পরীক্ষা স্থগিত হয়েছে ঠিকই - কিন্তু তার সন্তান বুঝতেও পারেনি যে প্রশ্ন ফাঁস বিষয়টি আসলে কি।

মি. সিকদারের সন্তানের মতো আজ বহু শিক্ষার্থী বার্ষিক পরীক্ষা আজকের নির্ধারিত বিষয় গণিতের পরীক্ষা দিতে পারেনি

কারণ, প্রশ্ন ফাঁসের খবরের পর গতরাতেই ১৪০টি স্কুলে পরীক্ষা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল মজিদ।

শিক্ষামন্ত্রী এ জন্য শিক্ষকদের একটি অংশেই দায়ী করেছেন । এই কথা বলেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের কর্মকর্তারাও।

তবে বরগুনার স্কুলে প্রশ্ন ফাঁস নতুন কিছু নয়। এর আগে চলতি মাসেই প্রথম ও চতুর্থ শ্রেণীর তিন বিষয়ের প্রশ্ন ফাঁস হওয়ায় স্থগিত হয়েছিলো ২৪৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষায়।

আবার এটি শুধু বরগুনাতেই নয়, গত কয়েকবছরে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী, জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট, এসএসসি, এইচএসসিসহ প্রায় সব পাবলিক পরীক্ষাতেই প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ ওঠে। এ থেকে মুক্ত ছিলো না বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ভর্তি পরীক্ষা কিংবা ব্যাংকসহ নানা জায়গায় চাকুরিতে নিয়োগ পরীক্ষাও।

শিক্ষাবিদ সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলছেন, পরিস্থিতি ভয়াবহ অবস্থায় পৌঁছেছে - যা জাতিকে ভবিষ্যতকে চরম সংকটে ফেলবে।

তবে দেশ জুড়ে নানা পরীক্ষায় প্রশ্নফাসের তীব্র সমালোচনার মুখে পুলিশী অভিযানে এবছরেই আটক হয়েছে ৭১ জন। বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধানে নেমেছিলো দুর্নীতি দমন কমিশনও।

আজ ঢাকায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এক যৌথ সভায় দুদক কমিশনার নাসির উদ্দিন আহমেদ প্রশ্ন ফাঁসের জন্য কর্মকর্তা ও শিক্ষক উভয়কেই দায়ী করেছেন।

এ সভাতেই শিক্ষকদের তীব্র সমালোচনা করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি প্রশ্নফাঁসের জন্য শিক্ষকদের একটি অংশকেই দায়ী করেছেন।

তবে বরগুনারই একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন বলছেন, ঢালাওভাবে শিক্ষকদের দায়ী করার বিষয়ে একমত নন তারা।

তবে সভায় শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, প্রশ্নফাঁস বন্ধে অনেক ধরনের পরামর্শ তারা পেয়েছেন এবং এটি ঠেকাতে আধঘন্টা আগেই পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে প্রবেশ করানো এবং এরপরে প্রশ্নপত্রের খাম খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

সম্পর্কিত বিষয়