বাংলাদেশের নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোবাশ্বার ফিরেছেন: কেন নিখোঁজ ছিলেন তিনি?

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সহকারী অধ্যাপক মোবাশ্বার হাসান ছবির কপিরাইট মোবাশ্বার হাসানের ফেসবুক পাতা থেকে নেয়া
Image caption নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সহকারী অধ্যাপক মোবাশ্বার হাসান

এবার ঘরে ফিরেছেন ঢাকার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোবাশ্বার হাসান

নিখোঁজ হওয়ার দেড় মাস পর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এই শিক্ষক বৃহস্পতিবার রাত ১টার দিকে ঢাকার বনশ্রী এলাকায় তাদের বাসায় ফেরেন বলে তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

মি. হাসানের বোন তামান্না তাসমিন বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, তাঁর ভাই বিশ্রামে আছেন। তিনি ক্লান্ত ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত।

তিনি আরো বলেন, ভাইয়ের সাথে কথা বলে তিনি এমন ধারণা পেয়েছেন যে তাকে টাকার জন্য অপহরণ করা হয়ে থাকতে পারে।

মি. হাসান তাঁর পরিচিতজনদের কাছে সিজার নামে পরিচিত।

গত এক বছর যাবত বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে 'পলিটিকাল সায়েন্স এন্ড সোশিওলজি' বিভাগে শিক্ষকতা করছিলেন মি. হাসান।

তিনি পিএইচডি গবেষণার বিষয় ছিল বাংলাদেশের রাজনীতিতে ইসলামের প্রভাব।

তাঁর ফেরার ঠিক দুদিন আগে আরেক নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপল দাস বাড়িতে ফেরেন।

তিনিও দুমাস ধরে নিখোঁজ ছিলেন।

এই দুটি নিখোঁজের ঘটনাই বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে আলোচিত ছিল।

দুজনের ফেরার দাবিতেই বিভিন্ন তরফ থেকে বিক্ষোভ প্রতিবাদ হয়েছে।

আরো পড়ুন:

কে এই নিখোঁজ মোবাশ্বার হাসান?

সন্ধান মিলেছে নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপল দাসের

'কোন শব্দই এই কষ্টকে ব্যাখ্যা করতে পারবে না'

মোবাশ্বার হাসান কিভাবে বাসায় ফিরেছেন তার একটা বর্ণনা এসেছে তাঁর বোন তামান্না তাসমিনের কাছ থেকে।

তিনি বলেন, তাঁর ভাইকে একটি মাইক্রোবাসে করে বিমানবন্দর সড়কে এনে ছেড়ে দেয়া হয়। সেখান থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় রাত ১টার দিকে বনশ্রীর বাসার নিচে এসে পৌঁছান তার ভাই।

বাসার সামনে এসে সিএনজি চালকের মোবাইল ব্যাবহার করে পরিবারের সদস্যদের ফোন করেন মি. হাসান এবং বলেন সিএনজি ভাড়া বাবদ ৫শ টাকা নিয়ে আসতে।

খিলগাঁও থানা পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গির কবির খান জানিয়েছেন, রাত একটার দিকে মি. হাসানের বাবা থানায় ফোন করে তাঁর ফেরার কথা জানিয়েছেন। তবে অসুস্থ থাকার কারণে পুলিশ মি. হাসানের সাথে এখনই কোন কথা বলছে না। প্রয়োজন হলে তার সাথে কথা বলা হবে।

মিজ তাসমিন তার ফেসবুক একাউন্ট থেকে আজই (শুক্রবার) সকালে বাংলা ও ইংরেজিতে একটি স্ট্যাটাসেও মি. হাসানের ফিরে আসার খবরটি দেন।

তিনি লেখেন, "আল্লাহতালার অশেষ রহমতে গতকাল দিবাগত রাত ১টায় আমার ভাইয়া সুস্থ অবস্থায় বাসায় ফিরেছে!"

গত ৭ই নভেম্বর থেকে মি. হাসানকে পাওয়া যাচ্ছিল না।

এ বিষয়ে খিলগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি)করা হয়।

বাংলাদেশে নিখোঁজ ব্যক্তিরা ফেরার পর চুপ থাকেন কেন - এ বিষয়ে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে দেখতে পারেন প্রতিবেদনটি:

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর