ব্রিটিশ জলসীমায় রাশিয়ার ফ্রিগেট, নজরদারির জন্য যুদ্ধজাহাজ পাঠালো ব্রিটেন

রুশ যুদ্ধজাহাজ এডমিরাল গোর্শকভকে এসকর্ট করে নিয়ে যাচ্ছে ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ এইচএমএস সেন্ট অলবান্স ছবির কপিরাইট PA
Image caption রুশ যুদ্ধজাহাজ এডমিরাল গোর্শকভকে এসকর্ট করে নিয়ে যাচ্ছে ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ এইচএমএস সেন্ট অলবান্স

ক্রিসমাসের দিন নর্থ সী-তে ব্রিটেনের কাছাকাছি চলে এসেছিল এক রুশ যুদ্ধজাহাজ 'এডমিরাল গোর্শকভ'। দূর থেকে এটিকে চোখে চোখে রেখেছে ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ।

ব্রিটেনের রাজকীয় নৌবাহিনি জানিয়েছে, ব্রিটেনের জাতীয় স্বার্থ জড়িত এমন এলাকায় রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজ কী করছিল, তার ওপর নজর রাখছিল তারা।

'এডমিরাল গোর্শকভ' হচ্ছে রাশিয়ার একটি নতুন অত্যাধুনিক যুদ্ধজাহাজ। গাইডেড মিসাইল ছুঁড়তে সক্ষম এই যুদ্ধজাহাজ দিয়ে এখন মহড়া চালাচ্ছে রাশিয়া।

ব্রিটেনের সন্দেহ, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে রুশ যুদ্ধজাহাজগুলো তাদের সমূদ্রসীমায় এসে নানা তৎপরতা চালাচ্ছে।

সাগরতলে যে ইন্টারনেট কেবল আছে, রাশিয়ার সাবমেরিনগুলো তার জন্য হুমকি তৈরি করছে বলেও মনে করে ব্রিটেন।

গত শনিবার যখন রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজটি ব্রিটেনের সমুদ্রসীমার কাছে চলে আসে, তখন সাথে সাথে রাজকীয় নৌবাহিনী তাদের যুদ্ধজাহাজ সেখানে পাঠায় এটির গতিবিধির ওপর নজর রাখত।

ছবির কপিরাইট PA
Image caption রুশ যুদ্ধ জাহাজের ওপর নজর রাখার সময় ব্রিটিশ যুদ্ধ জাহাজে মোতায়েন রাজকীয় নৌবাহিনীর সদস্যরা।

সোমবার পর্যন্ত এই ব্রিটিশ জাহাজটি সেখানে ছিল।

ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রী গ্যাভিন উইলিয়ামসন বলেছেন, তিনি ব্রিটেনের জলসীমা রক্ষায় কোন দ্বিধা করবেন না এবং কোন ধরণের আগ্রাসন সহ্য করবেন না।

সম্প্রতি ব্রিটেন এবং রাশিয়ার নৌবাহিনীর মধ্যে নানা কারণে উত্তেজনা বেড়েছে।

রাশিয়ার একটি গোয়েন্দা তথ্য অনুসন্ধানী জাহাজ সম্প্রতি নর্থ সী-তে আসলে সেখানেও যুদ্ধ জাহাজ পাঠিয়েছিল ব্রিটেন। অন্য কয়েকটি রুশ জাহাজের অবস্থান জানতে সেখানে হেলিকপ্টারও পাঠানো হয়।

গত জানুয়াারি মাসে রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজ এডমিরার কুজনেটসভ ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করে। তখন সেটির ওপর নজর রাখতে আকাশে চক্কর দেয় ব্রিটেনের রাজকীয় বিমান বাহিনীর ফাইটার জেট।

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর