বাংলাদেশের কক্সবাজারে অভিভাবককে রশি দিয়ে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ শিক্ষকদের বিরুদ্ধে

বাংলাদেশ, কক্সবাজার, নির্যাতন ছবির কপিরাইট ফেসবুক থেকে নেয়া
Image caption এ ধরণের ছবি শেয়ার হচ্ছে ফেসবুকে

বাংলাদেশের কক্সবাজারের সদর উপজেলার খরুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে একজন অভিভাবককে বেঁধে নির্যাতনের একটি ভিডিও ও ছবি ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে।

এসব ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে নির্যাতনের পর ওই অভিভাবকের হাত পা থেকে রশি খুলে দেয়া হচ্ছে।

একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে তিনি মাটিতে পড়ে আছেন আর তার হাত রশিতে বাঁধা।

নির্যাতনের শিকার ওই অভিভাবকের নাম মো: আয়াতুল্লাহ।

বিবিসিকে তিনি বলেন তার বাচ্চার স্কুলে ভর্তির বিষয়ে কথা বলতে তিনি খরুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন কেজি স্কুলে যান।

"সেখানে বাচ্চার বেতন বাড়ানো ও পরীক্ষার ফল নিয়ে আমার সাথে কেজি স্কুলের প্রধানের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে পাশের স্কুলের হেডমাস্টার দলবল নিয়ে সেখানে আসেন। এরপর তার চেম্বারের কাছে নিয়ে আমাকে রশি দিয়ে বেঁধে নির্যাতন করা হয়"।

তিনি জানান তাকে যখন মাটিতে ফেলে এভাবে নির্যাতন করার পাশাপাশি ছবি তোলা ও ভিডিও করা হচ্ছিলো। পরে খবর পেয়ে তার পরিবারের সদস্যরা এসে তাকে উদ্ধার করেন।

মিস্টার আয়াতুল্লাহ বলেন তিনি আজই থানায় হেডমাস্টার জহিরুল হক সহ হামলাকারীদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করবেন।

অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে জহিরুল হক বলেন আয়াতুল্লাহ নিজেই তাকে লাঞ্ছিত করেছে। সেকারণেই শিক্ষার্থীরা উত্তেজিত হয়েছে।

তিনি বলেন, "আমাকে ঘুষি দেয়ায় সবাই উত্তেজিত হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। আমিই তাকে উদ্ধার করে আমার রুমে এনেছি। পরে সে আর বেয়াদবি করবেনা মর্মে লিখিত দিয়ে চলে গেছে"।

মিস্টার হক বলেন, "ওখানে যা ঘটেছে তা শিক্ষার্থীরাই করেছে"।

যদিও মো: আয়াতুল্লাহ বলছেন নির্যাতনের পর তার কাছ থেকে জোর করে সাদা কাগজে স্বাক্ষর রাখা হয়েছে।

কক্সবাজার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত রনজিত কুমার বড়ুয়া বিবিসিকে বলেন কথা কাটাকাটি থেকে আয়াতুল্লাহকে মারধরের ঘটনায় থানায় এজাহারের প্রক্রিয়া চলছে এবং এ ঘটনায় মামলা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

সম্পর্কিত বিষয়

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর