খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের দিন ঢাকায় মিছিলের ওপর পুলিশের নিষেধাজ্ঞা

ছবির কপিরাইট STR/AFP/Getty Images
Image caption খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলার রায় ঘোষণা করা হবে ৮ই ফেব্রয়ারী

বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আগামীকাল বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণার দিন নৈরাজ্য-অরাজকতা সৃষ্টির চেষ্টা হতে পারে বলে আশংকা করছে পুলিশ। এজেন্য সেদিন ঢাকার রাস্তায় মিছিল করা এবং ছুরি বা লাঠিসোটা বহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন ঢাকার পুলিশ কমিশনার।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফ্যানেজ ট্রাস্ট্রে দুর্নীতি সংক্রান্ত মামলাটির রায় এদিন ঘোষণার তারিখ নির্ধারিত আছে। এ নিয়ে ইতোমধ্যে বাংলাদেশের রাজনীতিতে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে।

বিএনপি অভিযোগ করেছে, তাদের শত শত কর্মীকে ইতোমধ্যে আটক করা হয়েছে।

এই পটভূমিতে গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের তরফ থেকে এই নিষেধাজ্ঞার কথা ঘোষণা করা হয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া এই নির্দেশে জানান, একটি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে ৮ই ফেব্রুয়ারী ঢাকায় নৈরাজ্য এবং অরাজকতা সৃষ্টির মাধ্যমে জননিরাপত্তা বিঘ্নিত করার চেষ্টা হতে পারে বলে তাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য আছে। গণমাধ্যমে এবং সোশ্যাল মিডিয়াতেও এরকম খবর প্রকাশিত হচ্ছে।

এ কারণে বৃহস্পতিবার ভোর চারটা হতে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় সকল প্রকার ছুরি, চাকু বা ধারালো অস্ত্র, ছড়ি, লাঠি, বিস্ফোরক দ্রব্য এবং দাহ্য পদার্থ বহন নিষিদ্ধ করা হলো বলে নির্দেশ জারি করেন তিনি।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়ুন:

রাষ্ট্রপতি হিসেবে পুন:নির্বাচিত আব্দুল হামিদ

কানাডায় শিক্ষার্থীদের ঠিকানায় রহস্যময় সেক্স টয়

‘বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসার নামে বাণিজ্য’

জাপানি রাজকুমারী কেন তার বিয়ে পিছিয়ে দিচ্ছেন

একই নির্দেশ জানানো হয়েছে, যানবাহন বা মানুষের চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে এমন কোন মিছিলও রাস্তায় করা যাবে না।

বিএনপির পক্ষ থেকে পুলিশের এই নিষেধাজ্ঞার নিন্দা করা হয়েছে। দলের একজন নেতা রুহুল কবির রিজভী পুলিশের এই নির্দেশকে একটি কালাকানুন বলে মন্তব্য করেন।

বৃহস্পতিবার বিএনপির পক্ষ থেকে ঢাকায় কোন সভা-সমাবেশের কর্মসূচী দেয়া না হলেও সেদিন দলের কর্মীদের বিভিন্ন জায়গায় জমায়েত হওয়ার প্রস্তুতি রাখতে বলা হয়েছিল বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের একজন নেতা জানিয়েছেন, পুলিশের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও তারা শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ করবেন।

আরও পড়তে পারেন:

রিজার্ভ চুরি: কেন জড়িতরা চিহ্নিত হচ্ছে না?

জেল-জুলুম-বোমা: নারীর ভোটের লড়াইয়ের একশো বছর