ফেসবুকে আসছে আপত্তিকর মন্তব্য লুকিয়ে রাখার 'ডাউনভোট' বাটন

Thumbs down icon ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ফেসবুক 'ডাউনভোট' বাটন নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছে।

ফেসবুকে আপত্তিকর বা অপছন্দের মন্তব্য যারা মুছে ফেলতে বা লুকিয়ে রাখতে চান, তাদের জন্য আসছে 'ডাউনভোট' বাটন।

এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে ইতোমধ্যে সীমিত আকারে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেছে ফেসবুক। তবে এটিকে 'ডিসলাইক' বাটন বলতে নারাজ তারা।

ফেসবুক ব্যবহারকারীরা বহুদিন ধরেই একটি 'ডিসলাইক' বা অপছন্দ করার বাটন যোগ করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের অল্পসংখ্যাক ফেসবুক ব্যবহারকারী পরীক্ষামূলকভাবে 'ডাউনভোট' বাটন ব্যবহারের সুযোগ পাচ্ছেন।

ফেসবুক সম্প্রতি এরকম আরও কিছু উদ্যোগ নিয়েছে নানা ধরণের সমালোচনার জবাবে।

'কেট ক্রাঞ্চ' নামের একটি সাইটের কাছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ 'ডাউনভোট' বাটন নিয়ে তাদের নিরীক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

আরও পড়ুন: এবার কেন হরতাল-অবরোধের মতো কর্মসূচি দেয়নি বিএনপি

সুখী হওয়ার পাঁচটি উপায়: অধ্যাপকের পরামর্শ

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মিনিস্কার্ট পরে প্রতিবাদ

ছবির কপিরাইট @MattNavarra
Image caption ডাউনভোট বাটনে ক্লিক করে আপত্তিকর মন্তব্য লুকিয়ে রাখা যাবে।

অন্য কিছু সোশ্যাল মিডিয়া সাইটে এরকম 'ডাউনভোট' বাটন আগে থেকে আছে। এর মাধ্যমে অজনপ্রিয় পোস্টগুলো যাতে কম দেখা যায়, সেই ব্যবস্থা করা যায়।

ফেসবুক যে 'ডাউনভোট' বাটন নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছে, সেটিতে ক্লিক করলে সংশ্লিষ্ট মন্তব্যটি আর দেখা যাবে না। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা এভাবে আপত্তিকর, বিভ্রান্তিকর বা অপ্রাসঙ্গিক পোস্ট বা মন্তব্য লুকিয়ে রাখবে পারবেন।

তবে এই ডাউনভোট দিয়ে পুরো পোস্টটিকে আড়াল করা যাবে না বা নিউজ ফিডের র‍্যাংকিং এ এটির অবস্থান পরিবর্তন করা যাবে না।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ফেসবুক এখন চেষ্টা করছে নিজেদের একটি দায়িত্বশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান হিসেবে তুলে ধরতে। তাদের এই সর্বশেষ উদ্যোগকে সেই লক্ষ্যেই আরেকটি পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে।

শুক্রবার ফেসবুক আরও ঘোষণা করেছে যে তারা লন্ডনে তাদের প্রকৌশলীর সংখ্যা বাড়িয়ে দ্বিগুন করছে। এদের কাজ হবে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা যেসব সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন তার সমাধান করা।

প্রতারণা, হয়রানি, মিথ্যে খবর থেকে শুরু করে নানা ধরণের সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করা হবে তাদের দায়িত্ব।

ফেসবুক একই সঙ্গে 'রাজনৈতিক রেষারেষি' ঠেকাতে এক কোটি ডলারের একটি তহবিল গঠনেরও ঘোষণা দিয়েছে।

এই তহবিলের অর্থ দেয়া হবে চার্চ গ্রুপ, স্পোর্টস ক্লাব বা এ ধরণের অরাজনৈতিক গোষ্ঠীগুলোকে।

ফেসবুক মনে করছে এ ধরণের অরাজনৈতিক গোষ্ঠীগুলোকে পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে রাজনৈতিক বিভেদ ঘোচানো যাবে।

ফেসবুকের একজন মুখপাত্র বলেন, " আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে লোকজনকে তাদের চেয়ে ভিন্ন এমন লোকের সঙ্গে মিশতে উৎসাহিত করা।"

ফেসবুক গ্রুপগুলো এই তহবিলের অর্থের জন্য আবেদন করতে পারবে। ব্রিটেনের পাঁচটি কমিউনিটি গ্রুপকে তাদের কাজের জন্য এক মিলিয়ন ডলার করে দেয়া হবে।

আরও প্রায় একশো গ্রুপকে দেয়া হবে ৫০ হাজার ডলার করে।