শ্রীদেবীর মৃত্যুর 'তদন্ত শেষ', মৃতদেহ হস্তান্তর

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption শ্রীদেবী

বলিউডের কিংবদন্তী অভিনেত্রী শ্রীদেবীর মৃত্যুর প্রায় তিন দিন পর অবশেষে দুবাইয়ের কর্তৃপক্ষ তার মরদেহ আজ পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছে।

তার মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত শেষ হয়ে গেছে বলেও দুবাই সরকারের মিডিয়া অফিস এদিন টুইট করে জানিয়েছে।

তবে শ্রীদেবীর ময়না তদন্তে যে রকম অস্বাভাবিক সময় লেগেছে ও 'বাথটাবে দুর্ঘটনাবশত জলে ডুবে মৃত্যুর' যে কথা ফরেনসিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, তার পর থেকেই তার মৃত্যুর পেছনে আসল রহস্যটা কী - তা নিয়ে জল্পনা চরমে উঠেছে।

তার স্বামী বনি কাপুরকেও পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করেছে, এদিকেও ভারতেও অনেকেই সন্দেহ প্রকাশ করছেন শ্রীদেবীর মৃত্যু মোটেও স্বাভাবিক ছিল না।

কিন্তু কেন ও কীভাবে এই মৃত্যুকে ঘিরে এত প্রশ্ন ও অবিশ্বাস তৈরি হয়েছে?

গত শনিবার রাতে দুবাইয়ের বিলাসবহুল হোটেল জুমেরাহ এমিরেটস টাওয়ারের একটি অ্যাপার্টমেন্টে সুপারস্টার শ্রীদেবীর মৃত্যুর প্রায় বাহাত্তর ঘন্টা পর তার মরদেহ অবশেষে এদিন সন্ধ্যায় ভারতের উদ্দেশে রওনা হতে পারছে।

মৃত্যুর কারণ ও সঠিক সময় নিয়ে নানা পরস্পরবিরোধী ব্যাখ্যা ও বিবরণ, ফরেনসিক রিপোর্টে বাথটাবে জলে ডুবে মৃত্যুর উল্লেখ, দুবাইয়ের সরকারি কৌঁসুলিকে সোমবার রাতে এই মৃত্যুর তদন্তের ভার দেওয়া - সব মিলিয়ে গত তিনদিন ধরে শ্রীদেবীকে নিয়ে রহস্য ক্রমেই ঘনীভূত হয়েছে।

তবে এদিন বিকেলে দুবাই কর্তৃপক্ষ অবশেষে টুইট করে জানিয়েছে - এই 'কেস ক্লোজড'!

সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিযুক্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূত নভদীপ সুরি এদিন জানান, "আমাদের টিম আগাগোড়া স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করেছে এবং পুলিশের কাছ থেকে অবশেষে ছাড়পত্রও মিলেছে। এখন স্বাস্থ্য বিভাগ ও ইমিগ্রেশন বিভাগের কিছু ফর্ম্যালিটি বাকি আছে, তারই কাজ চলছে।"

"নিয়মমাফিক সব পদ্ধতি শেষ করতে দুবাই সরকার তাদের সময় নিয়েছেন, এখন আমরা তার মরদেহ যত দ্রুত সম্ভব ভারতে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি।"

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

পুরনো কোরান রাখার জন্য দুই মাইল লম্বা এক সুড়ঙ্গ

হৃদরোগে নয়, 'পানিতে ডুবে' মারা গেছেন শ্রীদেবী

মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্মূল্যায়নের পক্ষে আকবর আলি

সৌদি আরবে শীর্ষ সেনা কর্মকর্তারা বরখাস্ত

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির হাত থেকে পুরস্কার নিচ্ছেন শ্রীদেবী

আজ বেশি রাতে মুম্বাইতে শ্রীদেবীর মরদেহ পৌঁছবে বলে ধারণা করা হচ্ছে - এবং তার পরিবার আজ জানিয়েছে বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটের সময় মুম্বোইয়ের ভিলে পার্লেতে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে।

তবে দুবাই কর্তৃপক্ষ আপাতত 'তদন্ত শেষ' বলে জানিয়ে দিলেও শ্রীদেবীর মৃত্যু নিয়ে ভারতে মূল ধারার গণমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়াতে যে পরিমাণ জল্পনা-কল্পনা চলছে তা প্রায় নজিরবিহীন।

৫৪ বছরের একজন সুস্থ-সবল মহিলা কীভাবে বাথটাবে জ্ঞান হারিয়ে ডুবে যেতে পারেন, তা নিয়ে অবিরাম প্রশ্ন তোলা হচ্ছে।

তার স্বামী বনি কাপুরকে দুবাই পুলিশ জেরা করায় এবং শ্রীদেবীর স্বামীর প্রথম পক্ষের সন্তান অভিনেতা অর্জুন কাপুর এদিন সকালে তড়িঘড়ি দুবাই পাড়ি দেওয়ায় মিডিয়ার সন্দেহ আরও দানা বেঁধেছে।

আর এরই মধ্যে আরও মারাত্মক অভিযোগ করেছেন বিজেপি নেতা ও এমপি সুব্রহ্মণ্যম স্বামী।

মি স্বামী বলছেন, "প্রথমে বলা হল হার্ট অ্যাটাক, পরে সেটা পাল্টে গেল। তারপর জানা গেল দুর্ঘটনা, বলা হল তার রক্তে না কি অ্যালকোহল ছিল। যে শ্রীদেবীকে আমরা জানতাম তার কোনওটার সঙ্গেই কিন্তু এগুলো যায় না।"

"আমি নিশ্চিত, এটা একটা হত্যাকান্ড - যদিও মোটিভটা কী, সেটা আমি জানি না। তবে সবাই জানে বলিউডের সাথে দুবাইয়ের আন্ডারওয়ার্ল্ডের এক ঘনিষ্ঠ ও অস্বাস্থ্যকর যোগাযোগ আছে - হতে পারে এই হত্যাকান্ডের সঙ্গে তারই সম্পর্ক আছে", বলেন তিনি।

মধু কিশওয়ারের মতো অ্যাক্টিভিস্ট আবার প্রশ্ন তুলেছেন, শ্রীদেবীর কথিত ক্র্যাশ ডায়েট কোর্স ও জিরো ফিগার রাখার জন্য নানা ক্লিনিক্যাল চিকিৎসাই অকালে তার মৃত্যু ডেকে এনেছে কি না।

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত গুরজিৎ সিং আবার বলছেন, শ্রীদেবীর ফরেনসিক রিপোর্টই আসলে এই সব সন্দেহের জন্ম দিয়েছে।

দুবাইতে কূটনীতিকের দায়িত্ব পালন করা মি সিং বলছিলেন, "সেখানে হাসপাতালের বাইরে যে কোনও মৃত্যুই পোস্ট মর্টেমের জন্য যায়। এ ক্ষেত্রে ময়না তদন্তের জন্য অনুরোধ করা হয়েছিল না কি তার আইনগত প্রয়োজনীয়তা ছিল আমি জানি না - কিন্তু ঘটনা হল এই রিপোর্টে যেখানে সব অস্পষ্টতার উত্তর মিলবে বলে ভাবা হয়েছিল - দেখা গেল তার বদলে তা আরও বিভ্রান্তি বাড়িয়েছে।"

শ্রীদেবীকে শেষ বিদায় জানানোর জন্য মুম্বাই-সহ গোটা ভারত যখন অধীর উৎকন্ঠায় অপেক্ষা করছে, তার মধ্যেও কিন্তু সেই বিভ্রান্তির রেশ রয়েই যাচ্ছে।

আর গত চব্বিশ ঘন্টায় ভারতে সোশ্যাল মিডিয়াতে সবচেয়ে ট্রেন্ডিং টপিকগুলোর মধ্যে একটি ছিল 'বাথটাব'!

সম্পর্কিত বিষয়