ভারতে মূর্তি ভেঙে হিন্দুত্ব আর বামপন্থার লড়াই?

ছবির কপিরাইট বিবিসি হিন্দি
Image caption ত্রিপুরায় ভাঙা হচ্ছে লেনিনের মূর্তি

বুধবার সকালে হিন্দুত্ববাদীদের অন্যতম প্রধান আদর্শিক নেতা শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর একটি মূর্তি হাতুড়ি দিয়ে কিছুটা ভেঙ্গে তার ওপরে কালো কালি লাগিয়ে দিয়েছে কলকাতার কয়েকজন অতি-বামপন্থী ছাত্রছাত্রী। পুলিশ সেখান থেকে সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

এর আগে ত্রিপুরার নির্বাচনে বিজেপি বড়সড় সাফল্য পাওয়ার পরের গত কয়েকদিনে সেরাজ্যের অন্তত দুটি জায়গায় ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে লেনিনের মূর্তি। অভিযোগের তীর হিন্দুত্ববাদী বিজেপি-র কর্মী সমর্থকদের দিকে।

যদিও দলীয় কর্মীদের সরাসরি ওই মূর্তি ভাঙ্গার ঘটনায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে বিজেপি, তবে তারা লেনিনের মূর্তি নিয়ে বামপন্থীদের কটাক্ষও করেছে একই সঙ্গে।

আজ শ্যামাপ্রসাদের মূর্তি ভাঙ্গার সময়ে ছাত্রছাত্রীদের হাতে ছিল লেনিন মূর্তি ভাঙ্গারই প্রতিবাদ সম্বলিত পোস্টার।

মতাদর্শগত নেতাদের মূর্তি ভেঙ্গে দেওয়ার পেছনে কী তাহলে বামপন্থী আর হিন্দুত্ববাদী - এই দুই সম্পূর্ণ বিপরীত মেরুর রাজনৈতিক আদর্শের লড়াই-ই কাজ করেছে?

প্রশ্নটা করেছিলাম রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক বিমল শঙ্কর নন্দকে।

ছবির কপিরাইট বিবিসি হিন্দি
Image caption কলকাতায় কালি মাখানো শ্রামাপ্রসাদ মুখার্জির আবক্ষ মূর্তি

তাঁর জবাব ছিল, "এতদিন বৌদ্ধিক পর্যায়ে সংঘাতটা ছিল বামপন্থী আর জাতীয়তাবাদী, অর্থাৎ আপনি যাদের হিন্দুত্ববাদী বলছেন, তাঁদের মধ্যে। বামপন্থী বুদ্ধিজীবিরাই ইতিহাস ব্যাখ্যা করে এসেছে এতদিন। কিন্তু জাতীয়তাবাদীরা নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার পর তাদের মতাদর্শের সমর্থক বুদ্ধিজীবিরা ইতিহাস সমাজ নতুন করে ব্যাখ্যা করছেন এখন।"

"তাই এই সংঘাতটা ইন্টেলেকচুয়াল পর্যায়ে আছেই। তবে নতুন যেটা যোগ হয়েছে, তা হল ওই দুই মতাদর্শের লড়াই এখন তৃণমূল স্তরেও প্রকট হচ্ছে। এটা সম্ভবত তারই বহি:প্রকাশ।"

শুধু যে লেনিন বা শ্যামাপ্রসাদের মূর্তিই ভাঙ্গা হয়েছে, তা নয়।

রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক সব্যসাচী বসু রায় চৌধুরীর কাছে জানতে চেয়েছিলাম বিজেপি তো কংগ্রেস কে হারিয়ে অনেক রাজ্যেই ভোটে জিতেছে। কিন্তু তারপরে সেখানে জওহরলাল নেহরু বা ইন্দিরা গান্ধীদের মূর্তি ভাঙ্গার তো সংবাদ পাওয়া যায় নি!

তাহলে কেন কোথাও লেনিন বা কোথাও শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর মতো যারা এই দুই মতাদর্শের অন্যতম প্রধান প্রবক্তা - তাদের মূর্তি ভাঙ্গা হচ্ছে?

"স্বাধীনতার আগে থেকেই কংগ্রেস ছিল মুক্তমনাদের একটা মঞ্চ। সেখানে বামপন্থীরাও যেমন থেকেছেন, তেমনই দক্ষিণপন্থীরাও ছিলেন। তাই সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে কংগ্রেসই বিজেপি-র প্রধান প্রতিপক্ষ হলেও তাদের সঙ্গে সেভাবে মতাদর্শের লড়াই নেই হিন্দুত্ববাদীদের।"

ছবির কপিরাইট বিবিসি
Image caption অতীতে ইউক্রেনেও ভাঙা হয়েছে লেনিনের মূর্তি (ফাইল চিত্র)

"কিন্তু বামপন্থীদের সঙ্গে তাদের চরম মতাদর্শগত বৈরিতা। তাই কেরালায় যেটা অনেকদিন ধরেই আমরা দেখছি - দুই মতাদর্শের লড়াই - এবার সেটা কিছু কিছু দেখা যাচ্ছে ত্রিপুরার মতো জায়গাতেও," বলছিলেন সব্যসাচী বসুরায়চৌধুরী।

এই বিপরীত মেরুর আদর্শের মধ্যে চরম সংঘাত এতদিন মূলত দেখা গেছে দক্ষিণ ভারতের কেরালাতেই। সেখানেই দুই পক্ষের সংঘাত বারে বারেই রক্তাক্ত হয়ে উঠেছে। এভাবে মতাদর্শগত নেতাদের মূর্তি ভাঙ্গার আসলে দুই পক্ষের মধ্যেই পরমত অসহিষ্ণুতার একটা লক্ষণ - বলছিলেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও কলাম লেখক শুভাশীষ মৈত্র।

তার কথায়, "এটা যে দুই মতাদর্শগত বিরোধের প্রকাশ, তা ঠিক। কিন্তু আমার মনে হয় এর মধ্যে পরমত অসহিষ্ণুতা বেশি প্রকাশ পাচ্ছে - যেখানে অন্য মতের আদর্শিক নেতাদের সামনে রাখবই না - এরকম একটা চিন্তা প্রকাশ পাচ্ছে। এটাই সবথেকে ভয়ের।"

তিনি আরও বলছিলেন, "অনেকে বলছেন সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পরেও তো সেখানে লেনিন মূর্তি ভেঙ্গে ফেলা হয়েছিল। মনে রাখতে হবে, সেখানে লেনিনকে দেখা হত রাষ্ট্রশক্তির প্রতীক হিসাবে। ত্রিপুরায় লেনিন তো রাষ্ট্রশক্তির প্রতীক ছিলেন না, সেখানে তিনি মতাদর্শের প্রতীক ছিলেন।"

বিশ্লেষকরা অবশ্য এটাও মনে করছেন, যে কেরালা ছাড়া অন্য যে দুটি জায়গায় বামপন্থীরা শক্তিশালী ছিল - সেই পশ্চিমবঙ্গ এবং ত্রিপুরাতে তারা এখন চাপের মধ্যে আছে। তাই মূর্তি ভাঙ্গা বা তাকে কেন্দ্র করে মতাদর্শগত সংঘাতের অসহিষ্ণুতার বহিপ্রকাশ কেরালার বাইরে কতটা ছড়িয়ে পড়বে, তা বলা কঠিন।

কিন্তু সর্বভারতীয় স্তরে বৌদ্ধিক পর্যায়ে দুই মতাদর্শের মধ্যে সেই সংঘাত চলতে থাকবে বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

আমাদের পেজে আরও পড়তে পারেন:

বিবাহ-বহির্ভূত প্রেম, নির্যাতনে অভিযুক্ত ক্রিকেটার শামি

বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের সামরিক শক্তির পার্থক্য কতটা?

মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেব কি সত্যিই হিন্দু বিদ্বেষী ছিলেন?

সম্পর্কিত বিষয়